শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৯ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৮ মার্চ, ২০২১ ২৩:৩২

ভুলের বৃত্তেই বন্দী টাইগাররা

টি-২০তে ৬৬ রানে হার

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ভুলের বৃত্তেই বন্দী টাইগাররা

একই গল্প। চরিত্রগুলো সব পরিচিত মুখ। গল্পের ফল একই, অসহায় আত্মসমর্পণ। দিন শেষে আবার ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যাশা। নতুন গল্পের ফলও সেই আত্মসমর্পণ।

নিউজিল্যান্ড সফরে বাংলাদেশের গল্পগুলো এমনই। হারের বৃত্তেই ঘুরছে ক্রিকেটাররা। অথচ প্রতিটি ম্যাচ শেষে ঘুরে দাঁড়াব বলে কথার  খৈ ফুটিয়েছেন টাইগাররা। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং ও বোলিংয়ের বিপক্ষে বারবার একই ভুল করছে। বাজে ব্যাটিং ও ফিল্ডিংয়ের খেসারত গুণে হেরেই চলেছে টাইগাররা। গতকাল হ্যামিল্টনের সিডন পার্কে বাজে ব্যাটিং ও ফিল্ডিংয়ে হেরেছে ৬৬ রানে। আজ তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয়টি মাঠে গড়াবে নেপিয়ারে।

ঢাকা ছাড়ার আগে টাইগার ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল ব্যর্থতার বৃত্ত ভাঙার প্রত্যাশা করেছিলেন। কিন্তু তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ব্যর্থতা থেকে বেরোনোর প্রত্যাশা স্বপ্নই রয়ে যায়। ওয়ানডে সিরিজের ভুলগুলো শুধরে টি-২০ সিরিজে নিজেদের মেলে ধরতে চেয়েছেন টি-২০ অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ। কিন্তু কোথায় কি? সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমকে ছাড়া দলটি কোনোভাবেই দৃঢ়তার পরিচয় দিতে পারেনি। সিনিয়রদের অনুপস্থিতিতে অভিষেক হয়েছে দুই তরুণ শরীফুল হাসান ও নাসুম আহমেদের। বাঁ হাতি স্পিনার নাসুম আলো ছড়ালেও ব্যর্থ হয়েছেন বাঁ হাতি পেসার শরীফুল। নাসুম প্রথম ওভারেই উইকেট নেন এবং সব মিলিয়ে নেন ২ উইকেট। কিন্তু শরীফুল ৪ ওভারের স্পেলে ৫০ রান দেওয়ার পাশাপাশি একটি ক্যাচ নিয়ে দড়ি স্পর্শ করে ছক্কা দেন।

তবে ভালো ব্যাটিং করেছেন ওপেনার নাঈম শেখ (১৮ বলে ২৭) ও আফিফ হোসেন ধ্রুব (৩৩ বলে ৪৫) এবং সাইফুদ্দিন (৩৪ বলে ৩৪)। সোধির লেগ স্পিনের বিপক্ষে অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ ১১, লিটন ৪, সৌম্য ৫, মিথুন ৪ ও মেহেদি ০ রান করেন। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৪৪ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ।

এর আগে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড ব্যাট করে প্রথম ওভারে উইকেট হারালেও মার্টিন গাপটিল, ডেভন কনওয়ে ও উইল ইয়াং দলকে ২১০ রান পর্যন্ত নিয়ে যান। গাপটিল ৩৫ রান করেন। ফর্মে থাকা ডেভন কনওয়ে অপরাজিত থাকেন ৯২ রানে। ৫২ বলে ইনিংসটিতে ছিল ১১ চার ও ৩ ছক্কা। বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে তার রান ২৭, ৭২ ও ১২৬। শেষ দিকে উইল ইয়াং ৩০ বলে ৫৩ রান করে দলের বড় সংগ্রহে অবদান রাখেন।

ওভারপ্রতি সাড়ে ১০ রানের টার্গেটে ৬৬ রানে হেরেও টাইগার অধিনায়ক মনে করেন সুযোগ ছিল দলের, ‘আমার মনে হয়, আমাদের সুযোগ ছিল। শুরুতে ২ উইকেট নিয়েছি। রান রেট সাতের নিচে ছিল। কিন্তু ডেভন কনওয়ে সাবলীল ব্যাটিং করে দলকে টেনে নিয়ে যান। বোলাররা ভালো বোলিং করেছে। ফিল্ডিংয়ে কিছু বাড়তি বাউন্ডারি হয়েছে। স্কোর ১৯০ রানের আশেপাশে হলে তাড়া করে জেতা যেত। কিন্তু এক সঙ্গে বেশি উইকেট হারানোয় ম্যাচ জেতা যায়নি। আমরা একই ভুল বারবার করে চলেছি।’ বাংলাদেশ প্রথম ৮ ওভারে ৫০ রানের মধ্যে ৬ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে।