শিরোনাম
প্রকাশ : ৪ এপ্রিল, ২০২০ ২২:২৮

চট্টগ্রামে প্রশাসনের সমন্বয়ে হবে ত্রাণ বিতরণ

সাইদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম:

চট্টগ্রামে প্রশাসনের সমন্বয়ে হবে ত্রাণ বিতরণ

করোনাভাইরাস (কোভিট-১৯) নিয়ে দেশের সাধারণ মানুষ শঙ্কিত। সরকার নিয়েছে নানা কঠোর ব্যবস্থাও। এতে চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর আরও কঠোর হচ্ছে প্রশাসন। এখন থেকেই ত্রাণ বিতরণ ও যান চলাচলে কড়াকড়ি আসছে। ফলে শৃঙ্খলা ফেরানো এবং যান চলাচল রোধে আরও কড়াকড়ি বাড়াতে তৎপরতা বাড়ানো হবে যে কোন সময়। ইতিমধ্যে গ্রামেগঞ্জে মাইকিং করে গাড়ি চলাচল বন্ধ ও মানুষকে ঘরে থাকতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। 

সিটি এলাকায় জরুরী প্রয়োজন ছাড়া বের হওয়া মানুষদের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে সামর্থ্য অনুযায়ী জরিমানা করা হচ্ছে। নগরীতে সেনাবাহিনীর ১১টি টিম ও জেলায় ৭টি টিম কাজ করছে।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন বলেন, মানুষের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সেনাবাহিনীর দশটি টিম ও আটজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সার্বক্ষণিক মাঠে আছে। অনেকেই ত্রাণ না পাওয়ার অভিযোগও করছে। এ জন্য ত্রাণ বিতরণে আরও শৃঙ্খলা ফেরাতে উদ্যোগ নিচ্ছি। বিত্তশালীরা যে ত্রাণ দিচ্ছে এগুলো সমন্বয় হওয়া উচিত। তারা যদি আমাদের সাথে সমন্বয় করতে পারে সে ক্ষেত্রে আমরা পরামর্শ দিতে পারি। কোথায় দিচ্ছেন সেগুলো আমাদের জানা উচিত।

চট্টগ্রাম জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা সজীব কুামর চক্রবর্তী বলেন, বারেবারে বলেই আসছি যারা ত্রাণ বিতরণ করবে তারা জেলা প্রশাসনে জানাবে। আমাদের সাথে কিছু এনজিও যোগাযোগ করেছে তাদের বলেছি, কাউন্সিলর মেম্বারদের তালিকা দেখে সেগুলো যেন ওভারলেপিং না হয়। সমন্বয় করতে হবে। এখন যেভাবে ত্রাণ বিতরণ হচ্ছে এক লোক দুইবারও ত্রাণ পাচ্ছেন।

হাটহাজারীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন বলেন, এ সময়টাতে সবার জন্য ত্রাণ প্রয়োজন। সরকারের যে ত্রাণ দেবে তার সাথে পাবলিকেরটা যোগ না হলে সম্ভব না। এখন তালিকা ধরে সরকারের পক্ষে যা আসবে এবং স্থানীয়ভাবে যা পাবো সমন্বয় করবো। একই কথা বললেন বোয়ালখালী উপজেলার (ইউএনও) আছিয়া খাতুনও।

সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দিনভর বিভিন্ন উপজেলায় মানুষ যাতে ঘর থেকে বের না হয় সেজন্য মাইকিং করা হয়েছে। একই সাথে ত্রাণ বিতরনে শৃঙ্খলা ফেরাতেও প্রশাসন তৎপর হয়েছে। সরকারি ত্রাণের তালিকায় যারা আছে তারা যেন পুনরায় ত্রাণ না পায়  জেন্য ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। সেনাবাহিনী পথেঘাটে ঘুরঘুর করা মানুষকে ঘরে ফিরতে বাধ্য করছে। 

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য