শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ জানুয়ারি, ২০২০ ২৩:০৭

কোয়ালিটি ছাড়া কোনো পত্রিকা টিকবে না

------ আহমেদ আকবর সোবহান

নিজস্ব প্রতিবেদক

কোয়ালিটি ছাড়া কোনো পত্রিকা টিকবে না
দেশ রূপান্তর পত্রিকার প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে কেক কাটেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ও বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান। এ সময় বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফিয়াত সোবহান, রূপায়ণ গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান মুকুলসহ অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন -বাংলাদেশ প্রতিদিন

দেশের শীর্ষ শিল্পোদ্যোক্তা পরিবার বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান বলেছেন, আমাদের দেশে অনেক পত্রিকা। আরও হয়তো আসবে। তবে কেউই টিকে থাকতে পারবে না কোয়ালিটি ছাড়া। দৈনিক দেশ রূপান্তর সেটি করতে পারবে বলে আমরা আশা করি। দেশ রূপান্তরের সাংবাদিক ও কর্মীদের আমার এবং বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা। গতকাল রাজধানীর বাংলামোটরে রূপায়ণ টাওয়ারে দেশ রূপান্তরের কার্যালয়ে আয়োজিত ‘সাফল্যের ১ বছর’ শিরোনামে পত্রিকাটির প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্যে এসব কথা বলেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান। অনুষ্ঠানে বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান ও ভাইস চেয়ারম্যান সাফিয়াত সোবহান রূপায়ণ গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান মুকুলের হাতে ফুল দিয়ে দেশ রূপান্তরের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানান। বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে বিশ্বে বাংলাদেশকে ব্র্যান্ডিং করতে কাজ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, আমরা মূলত ব্যবসায়ী। কিন্তু মিডিয়ায় আসার একটাই লক্ষ্য, বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং করা। আমরা কাজ করে যাচ্ছি কীভাবে এই ব্র্যান্ডিং করা যায়। বঙ্গবন্ধুর যে সোনার বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন তার জন্য দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন তারই সুযোগ্য কন্যা এবং আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান বলেন, আগে আমরা ব্যবসায়ীরা চিন্তায় থাকতাম ব্যবসা নিয়ে। আগুন দেওয়া, বাস পোড়ানো এসব হতো। সেসব থেকে আমাদের মুক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আশা করছি শিগগিরই বাংলাদেশকে উন্নত দেশ হিসেবে বিশ্বদরবারে আমরা ব্র্যান্ডিং করতে পারব। অনুষ্ঠানে দেশ রূপান্তরের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কেটে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ১১ বছর আগে দেশে পত্রিকার সংখ্যা ছিল ৭৫০টি। এখন ১৩শ-র বেশি। টিভি চ্যানেল ছিল ১০টি। এখন ৩৪টি। হাজার হাজার অনলাইন। অর্থাৎ, গত ১১ বছরে দেশের গণমাধ্যমের ব্যাপক বিকাশ ঘটেছে। দেশ রূপান্তর সেই বিকাশেরই একটি অংশ। দেশ রূপান্তরের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আরও সফলতা কামনা করি। ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বসুন্ধরা গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইস্ট-ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের প্রতিষ্ঠান দৈনিক কালের কণ্ঠ সম্পাদক ও বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন, দেশ রূপান্তর সম্পাদক অমিত হাবিব, প্রকাশক ও রূপায়ণ গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মাহির আলী খান রাতুল, বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমের সম্পাদক জুয়েল মাজহার, দৈনিক কালের কণ্ঠের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোস্তফা কামাল প্রমুখ।


আপনার মন্তব্য