শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ জুলাই, ২০২০ ২৩:৩১

হেফাজতে ঐক্যের সুর

শফী-বাবুনগরী দীর্ঘ বৈঠক

মুহাম্মদ সেলিম, চট্টগ্রাম

কোন্দল নিরসনে সমঝোতা বৈঠকে বসেছেন হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা আহমদ শফী ও মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। বৈঠকে আল্লামা শফীর কাছে ক্ষমা চেয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অঙ্গীকার করেন বাবুনগরী। বৈঠকের পর নেতা-কর্মীদের জন্যও যৌথ ভিডিও বার্তা দেওয়া হয়েছে। তাদের এ বৈঠকের মাধ্যমে কওমিদের মধ্যে চলমান ভার্চুয়াল যুদ্ধ অবসান হবে বলে ধারণা করছে সংশ্লিষ্টরা। বুুধবারের বৈঠকের পর গতকাল বিকালে আল্লামা আহমদ শফী ও আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী যৌথ ভিডিও বিবৃতি দেন। দুজনের উপস্থিতিতে বিবৃতি পাঠ করেন আল্লামা শফীপুত্র মাওলানা আনাস মাদানী। বিবৃতিতে বলা হয়, আমাদের মধ্যে চলমান বিরোধ নিজেরাই বসে নিসরন করব। আমাদের মধ্যে আর কোনো বিরোধ নেই। জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, ‘আমাদের মধ্যে কোনো গ্রুপিং নেই। তাই বাইরের কেউ আমাদের মধ্যে গ্রুপিং সৃষ্টি করবেন না।’ জানা যায়, দেশের শীর্ষ কওমি মাদ্রাসা দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সহযোগী পরিচালক নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রকাশ্যে আসে আল্লামা আহমদ শফী ও আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর দ্বন্দ্ব। এ নিয়ে ভার্চুয়াল যুদ্ধে নামেন দুই পক্ষের অনুসারীরা। এমনকি আল্লামা আহমদ শফীপুত্র ও হেফাজতে ইসলামের প্রচার সম্পাদক মাওলানা আনাস মাদানীর ফাঁস হওয়া একটি ফোনালাপে জুনায়েদ বাবুনগরীকে জামায়াতের এজেন্ট বলে আখ্যায়িত করা হয়। পক্ষান্তরে বাবুনগরীর অনুসারীরা আনাস মাদানী ও তাদের গ্রুপে যুক্ত সবাইকে ‘সরকারের দালাল’ আখ্যা দিয়ে লেখালেখিও করতে থাকেন।

সম্প্রতি হেফাজতে ইসলামের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্ব নিরসনে উদ্যোগ নেন হাটহাজারী মাদ্রাসার কয়েকজন শিক্ষক।

 গত কয়েকদিন ধরে তারা এ বিষয়ে দফায় দফায় বৈঠক করেন জুনায়েদ বাবুনগরী ও আনাস মাদানীর সঙ্গে। সর্বশেষ গত বুধবার সকালে বাবুনগরী ও আনাস মাদানীর মধ্যে ম্যারাথন বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে বিবাদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে সহমতে এলেন হেফাজতে ইসলামের দুই প্রভাবশালী নেতা। ওই দিন সন্ধ্যায় আল্লামা আহমদ শফীর সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক হয় বাবুনগরীর। বৈঠকে বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন দুই নেতা। বৈঠকে আল্লামা আহমদ শফীর কাছে ক্ষমা চেয়ে দোয়া নেন বাবুনগরী। একই সঙ্গে আল্লামা আহমদ শফীর পরামর্শের বাইরে হেফাজতের কোনো কর্মকা- পরিচালনা হবে না বলে অঙ্গীকার করেন তিনি। এরপর দুই নেতা যৌথ ভিডিও বার্তা দেন।হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা মাঈনুদ্দীন রুহী বলেন, ‘বুধবার হেফাজতে ইসলামের আমির ও মহাসচিবের মধ্যে দীর্ঘ বৈঠক হয়েছে। ওই বৈঠকে আমির ও মহাসচিবের মধ্যকার ভুল বোঝাবুঝির অবসান হয়েছে। তারা কওমি মতাদর্শীদের উদ্দেশ্যে একটি ভিডিও বার্তাও দেবেন। তাদের এ ঐক্য হেফাজতে ইসলামের জন্য একটি মঙ্গলজনক বার্তা।’


আপনার মন্তব্য