শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৩ জুন, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ জুন, ২০১৮ ০২:১০

মোরেলগঞ্জে সাতজনকে কুপিয়ে জখম

সাত দিনে নিহত ১ আহত ৮০

মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি

মোরেলগঞ্জে সাতজনকে কুপিয়ে জখম

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে গত ৭ দিনে পৃথক পৃথক ঘটনায় একজনকে প্রকাশ্যে খুন ও এক মুক্তিযোদ্ধাসহ কমপক্ষে ৮০ জনকে পিটিয়ে কুপিয়ে জখম করার ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে সবশেষ হামলার ঘটনা ঘটে নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের হরতকীতলা গ্রামে। সেখানে ৪ সহোদরসহ ৭ জনকে পিটিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে প্রতিপক্ষ। রাত ১২টার দিকে জখমিদের মোরেলগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ৬ জনকে খুলনা মেডিকেলে স্থানান্তর করা হয়। মোরেলগঞ্জ হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. কামাল হোসেন মুফতি বলেন, আহত মোয়াজ্জেম, কাওছার, হেমায়েত, মধু, নিপু ও মিজানকে খুলনায় পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে মোয়াজ্জেম, কাওছার ও হেমায়েতের অবস্থা আশঙ্কাজনক। অপর আহত পারভেজকে মোরেলগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে। একই রাতে সোনাখালী গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা হারুন মীরকে মারপিট করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে তার শক্রপক্ষের লোকেরা। থানা পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ১ বিঘা জমির একটি মত্স্য ঘের, একটি বিদ্যালয়ে চুরি, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন ও মাদকের বিরুদ্ধে কথা বলায় হরতকীতলা গ্রামে দুটি গ্রুপের সৃষ্টি হয়। ঘটনার সময় শহিদুল শেখের নেতৃত্বে একটি বাহিনী হামলা চালায় কাওছারের বাড়িতে। তারা কাওছারের বসতঘর ভাঙচুর করে এবং পর্যায়ক্রমে ৬জনকে কুপিয়ে জখম করে। এ ঘটনায় শুক্রবার ২৩ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। এর আগে গত রবিবার পূর্ব চরহোগলাবুনিয়া গ্রামে মোকলেছ হাওলাদার (৫৫) নামে এক হতদরিদ্র কৃষককে প্রকাশ্যে পিটিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃৃত্তরা। এ ছাড়াও গত এক সপ্তাহে উপজেলা ২৯টি গ্রামে মারপিট সংঘর্ষের ঘটনায় কমপক্ষে ৮০ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে ১৭ জনই নারী এবং ১২ জনকে স্থানান্তর করা হয়েছে খুলনায়। মোরেলগঞ্জ হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে ঈদের দিন ১৬ জুন শনিবার থেকে গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত ৭ দিনে ২৯টি গ্রামে মারপিট ও সংঘর্ষে কমপক্ষে ৮০ জন আহত হয়েছেন। যার ৬৬ জন লোক এখানে ভর্তি হয়েছেন। এই পরিস্থিতি সম্পর্কে থানার ওসি মো. রাশেদুল আলম বলেন, আমি ছুটিতে থাকাকালীন বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটেছে। আজ (শুক্রবার) যোগদান করেছি। এখন ঠিক হয়ে যাবে।


আপনার মন্তব্য