Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
প্রকাশ : ২৩ মার্চ, ২০১৯ ২১:৩৯

সালিশ বৈঠকে গুলি! আহত ৫

নরসিংদী প্রতিনিধি

সালিশ বৈঠকে গুলি! আহত ৫
প্রতীকী ছবি

নরসিংদীর পলাশের ডাঙ্গায় সালিশ বৈঠকে প্রতিপক্ষের ছোড়া গুলিতে একজন গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন পাঁচজন। গুরুতর আহতদের নরসিংদী সদরসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।  

শনিবার দুপুরে পলাশ উপজেলার ডাঙ্গার কেন্দুয়াবো গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

আহতরা হলেন, কেন্দুয়াবো ৯ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম বাদল, একই গ্রামের কাজল (৩৫), শাহালম (২৮), ইব্রাহীম (৩০) ও নাজিম উদ্দিন (৪৫)।

আহতদের স্বজন আলমগীর জানায়, জমি সংক্রান্ত বিষয়ের জের ধরে উপজেলার ডাঙ্গা ইউনিয়নের কেন্দুয়াবো গ্রামের বাতেনের সাথে একই গ্রামের মামুনের বিরোধ চলে আসছিল। বিষয়টি সমাধানের জন্য স্থানীয় ইউপি সদস্যের দারস্ত হয় মামুন। এই ধারাবাহিকতায় শনিবার উভয় পক্ষকে নিয়ে কেন্দুয়াবো মাদ্রাসা মাঠে সালিশ দরবারের বসে ৯ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাদল।

বৈঠকের এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষরা ২০-২৫ টি মোটরসাইকেল নিয়ে সালিশ বিচারক ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম বাদলের ওপর হামলা করেন। এসময় হামলাকারীরা অস্ত্র তাক করে এলোপাথারী গুলি ছুড়তে থাকে। পরে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম বাদলকে জখম করা হয়। এসময় তাদের ছোড়া গুলিতে একজন গুলিবিদ্ধ সহ পাঁচ জন আহত হয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম বাদল বলেন, যুবলীগ সভাপতি দেলুর নেতৃত্বে আমার ওপর হামলা হয়। এসময় তারা এলোপাথারী গুলি ছুড়ে। মারপিটের পর আমাদের আরো দুইটি বাড়ি ভাঙচুর করে। 

এঘটনায় বক্তব্য নিতে অভিযুক্ত ডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন দেলুর ব্যবহৃত নাম্বারে যোগাযোগ করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মকবুল হোসেন মোল্লা বলেন, জমি সংক্রান্ত বিষয়ের জের ধরে দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে বেশ কয়েক জন আহত হয়েছে। থানায় মামলা দায়ে করার প্রস্তুতি চলছে। 


বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য