শিরোনাম
প্রকাশ : ২৮ অক্টোবর, ২০২০ ১৯:১৭

এএসআইকে গ্রেফতার দাবি

রংপুরে দুই ধর্ষকের আদালতে স্বীকারোক্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

রংপুরে দুই ধর্ষকের আদালতে স্বীকারোক্তি

রংপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত দুই আসামি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। বুধবার বিকেলে সিনিয়র চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক জাহাঙ্গীর আলমের কাছে তারা জবানবন্দি দেন। 

এর আগে একই আদালতে ধর্ষিতার ২২ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। একই সঙ্গে আসামিদের শনাক্ত করে আদালতে ঘটনার বিবরণ দেন ভুক্তভোগী ছাত্রী।

এদিকে ধর্ষণের মূল অভিযুক্ত এএসআই রায়হানকে গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে স্মারকলিপি দিয়েছে রংপুরের নাগরিক সমাজ। দুপুরে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আব্দুল্লাহ আল ফারুকের কাছে স্মারকলিপি দেয়া হয়। রায়হানের বিষয়ে খুব দ্রুত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে জানিয়েছে পিবিআই পুলিশ সুপার। 

স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মঙ্গলবার ভোরে লালমনিরহাট সদরের পূর্ব মাজাপাড়া এলাকার করি মাহমুদের ছেলে বাবুল হোসেন (৩৮) এবং পূর্ব থানা পাড়ার মৃত কাচু মিয়ার ছেলে আবুল কালাম আজাদকে (৪০) গ্রেফতার করে পিবিআই। 

জানা যায়, রংপুর মেট্রোপলিটন এলাকার ময়নাকুঠি কচুটারিতে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশের এএসআই রায়হানুল ইসলাম। প্রেমের সূত্র ধরে গত শুক্রবার ওই ছাত্রীকে ক্যাদারের পুল এলাকার ডা. শহিদুল্লাহ মিয়ার ভাড়াটিয়া সুমাইয়া আক্তার মেঘলা ওরফে আলেয়ার বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে এসএসআই রায়হানুল। 

পরে গত রবিবার ভাড়াটিয়া মেঘলা ওরফে আলেয়া ও তার সহযোগী সুরভি আক্তারের সহায়তায় বাবুল হোসেন ও আবুল কালাম আজাদ মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন। ঘটনার দিন ওই ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়লে বিষয়টি জানাজানি হয়। পরে রাত সাড়ে আটটার দিকে পুলিশ তাকে ওই বাড়ি থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ সময় মেঘলা বেগমকে আটক করে পুলিশ। 

পরে রাতে আরেক সহযোগী সুরভিকেও আটক করা হয়। আটক মেঘলা ও সুরভি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবান বন্দি না দেয়ায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাদের জেল হাজাতে পাঠানো হয়। এদিকে বুধবার বিকেলে বাবুল ও আজাদ আদালতে ধর্ষণের কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন। 

পিবিআই পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসেন বলেন, দুই আসামি আদালতে ঘটনার কথা স্বীকার করেছে। তাই তাদের জেল-হাজতে পাঠানো হয়েছে। রায়হানকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মেয়ের জবানবন্দি ও অন্যান্য আসামিদের স্বীকারোক্তির কপি দেখার পর রায়হানকে গ্রেফতার দেখানো হবে।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর

BP

আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর