শিরোনাম
প্রকাশ : ২৩ জুন, ২০২১ ২০:৩৩
প্রিন্ট করুন printer

নেত্রকোনায় একটি গ্রামকে ‘মৎস্য গ্রাম’ ঘোষণা

নেত্রকোনা প্রতিনিধি

নেত্রকোনায় একটি গ্রামকে ‘মৎস্য গ্রাম’ ঘোষণা
নেত্রকোনার দক্ষিণ বিশিউড়া গ্রাম। পুরনো ছবি।
Google News

মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে নেত্রকোনার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে প্রত্যন্ত এবং পিছিয়ে পড়া ইউনয়নের একটি গ্রামকে মৎস্য চাষে উন্নীত করায় ‘মৎস্য গ্রাম’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

নেত্রকোনা সদর উপজেলার দক্ষিণ বিশিউড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ বিশিউড়া গ্রামকে ‘মৎস্য গ্রাম’ ঘোষণা করে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। মঙ্গলবার এক বিজ্ঞপ্তিতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ইফতেখার হোসেন এতথ্য জানান।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলা মৎস্য অফিসার দেবাশীষ ঘোষ বলেন, জেলা সদরের মোট ১২টি ইউনয়নের মধ্যে সবচেয়ে দূরবর্তী ইউনিয়ন হচ্ছে দক্ষিণ বিশিউড়া। এটি যাতায়াতের দিক দিয়ে অবহেলিত ছিল। সেই সাথে সবদিক থেকে পিছিয়ে পড়া ছিল। সাবেক মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু এলাকটিকে এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে আধুনিক মাছ চাষে উদ্বুদ্ধ করেন।

তিনি আরও বলেন, পরবর্তী সময়ে আমরা ওই এলাকায় জরিপ করে ২০২টি পুকুরের মালিককে খুঁজে ১৩৬ জন মাছ চাষিকে বের করি। তাদের আধুনিক ও বৈজ্ঞানিক মৎস্য চাষে উদ্বুদ্ধ করে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। গত ২০১৯-২০ অর্থ বছরের নভেম্বর-ডিসেম্বর থেকে ওই ইউনিয়নে কাজ শুরু করি। ২০২০-এর জানুয়ারি থেকে পুরোদমে ২০টি গ্রুপে ১৩৬ জনকে ভাগ করে উন্নত প্রযুক্তির আওতায় মাছ চাষের জন্য প্রশিক্ষণসহ যন্ত্রপাতি প্রদান করা হয়। তখন থেকে প্রদর্শনীসহ এ বছর শুধুমাত্র ওই ইউনিয়ন থেকেই ৪০ মেট্রিক টন মাছ উৎপাদন করা হয়। ফলে এখন আধুনিক মাছ চাষে আমাদের এই ইউনিয়ন মৎস্য গ্রাম হিসেবে ঘোষিত হয়। এই ঘোষণা হওয়ায় আমাদের মাঝে কাজের উৎসাহ বেড়ে গেছে অনেক গুণ।

এ ব্যাপারে জেলা মৎস্য অধিদপ্তরের সিনিয়র সহকারী পরিচালক মো. শাহজাহান কবীর জানান, এই জেলার প্রতিটি গ্রামে আমরা মৎস্য গ্রামে পরিণত করতে চাই। এটি এমনিতেই মৎস্য জেলা হিসেবে পরিচিত। তার মধ্যে যে গ্রামটিই পিছিয়ে থাকবে, বিভিন্নভাবে আমরা সেটিকে মৎস্য খাত দিয়ে এগিয়ে নিয়ে যাব।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর