Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:১১

চোরাকারবারিদের হামলায় রক্তাক্ত কাস্টমস কর্মকর্তারা

পুলিশের নাটকীয়তা, কাস্টমস বন্ডের দুঃসাহসী অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক

চোরাকারবারিদের হামলায় রক্তাক্ত কাস্টমস কর্মকর্তারা
রাজধানীর নয়াবাজারে গভীর রাতে ঢাকা কাস্টমস বন্ডের অভিযানে চোরাকারবারিদের হামলায় আহত কয়েকজন -বাংলাদেশ প্রতিদিন

গভীর রাতে চোরাকারবারিদের হামলায় রক্তাক্ত হয়েছেন ঢাকা কাস্টমস বন্ড কমিশনারেটের ৬ কর্মকর্তা। রাজধানীর নয়াবাজারে প্রায় ৪০ জন কাস্টমস কর্মকর্তা এই বন্ড সুবিধায় আমদানি হওয়া পণ্যের অপব্যবহারের বিরুদ্ধে দুঃসাহসী অভিযান চালান। এ সময় তারা চোরাই কাগজ জাতীয় পণ্যসহ ৩ কাভার্ডভ্যান আটক করেন। এ ঘটনায় দিনভর পুলিশের নাটকীয়তা ও আসামিদের ধরতে রহস্যজনক ভূমিকা দেখা গেছে। এমনকি কাস্টমসের মামলা দুর্বল করতে কোতোয়ালি থানা সময়ক্ষেপণ করেছে বলে জানা গেছে। এ প্রসঙ্গে ঢাকা কাস্টমস বন্ড কমিশনারেটের কমিশনার এস এম হুমায়ুন কবীর গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন- কাস্টমস কর্মকর্তাদের ওপর হামলাকারী প্রত্যেককে খুঁজে বের করব। সরকারি কর্মকর্তাদের ওপর এই আঘাতকারীদের আইনের আওতায় আনতে সবরকম ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তারা সরকারি কাজে বাধা দিয়েছেন। একই সঙ্গে রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছেন। তাদের কোনো ছাড় নেই। এ ছাড়া রাজস্ব সংরক্ষণ ও দেশীয় শিল্পের বিকাশে অভিযান আরও জোরদার করা হবে। জানা গেছে, শুল্কমুক্ত বন্ডেড ওয়্যার হাউস সুবিধায় আমদানি হওয়া পণ্য চোরাই পথে কালোবাজারে বিক্রয় প্রতিরোধে রাত-দিন বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছেন ঢাকা কাস্টমস বন্ড কমিশনারেটের এক দল সাহসী ও চৌকস কর্মকর্তা। তারই ধারাবাহিকতায় উপ কমিশনার রেজভী আহম্মেদ ও সহকারী কমিশনার শরীফ মোহাম্মদ ফয়সালের নেতৃত্বে দুটি প্রিভেন্টিভ দল গত বুধবার রাতে পুরান ঢাকার বিভিন্ন পয়েন্টে অভিযান চালায়। অভিযানকারী দল রাত ১টায় ঢাকেশ্বরী মন্দির সংলগ্ন নামফলকবিহীন একটি গুদামের সন্ধান পায়। সেখানে প্রচুর পরিমাণে বন্ড সুবিধায় আমদানি হওয়া পণ্য চোরাইপথে বিক্রয়ের জন্য মজুদ পাওয়া যায়। এ অবস্থায় গুদামটি ইনভেন্টরির লক্ষ্যে কাস্টমস কর্মকর্তা মোতায়েন করা হয়। এরপর অভিযানকারী দল রাত ৪টায় নয়াবাজার মোড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে শুল্কমুক্ত সুবিধায় আমদানি হওয়া কাগজ জাতীয় পণ্য ডুপ্লেক্স বোর্ড ভর্তি তিনটি কাভার্ডভ্যান আটক করে। এসব পণ্য নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় অবস্থিত ‘ভি টেক প্যাকেজিং ইন্ডাস্ট্রিজ’ নামের বন্ডেড প্রতিষ্ঠান চোরাইপথে খোলাবাজারে বিক্রির জন্য নয়াবাজারে খালাস করছিল। ওই সব চোরাই পণ্য আটক শেষে কাস্টমস কর্মকর্তারা ফিরে আসার সময় অবৈধ চোরাকারবারি চক্রের দুষ্কৃতকারীরা সংঘবদ্ধ হয়ে ইট-পাটকেল,  লাঠি-সোঁটা নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। তাদের আঘাতে ছয়জন কাস্টমস কর্মকর্তা আহত হন। কাস্টমসের একটি গাড়িও ভাঙচুর করা হয়। পরবর্তীতে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে হামলায় নেতৃত্ব দানকারী মাহফুজুর রহমান (৪৮) নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। জানা গেছে, কাস্টমস কর্মকর্তাদের ওপর চোরকারবারিদের এই ন্যক্কারজনক ঘটনা ও সরকারি কাজে বাধাদান, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রাণনাশের চেষ্টা এবং সরকারি সম্পদের ক্ষতিসাধনের অভিযোগে রাজধানীর কোতোয়ালি থানায় মামলা করা হয়েছে। মামলা নম্বর ২৭/১৪১। অভিযুক্ত আসামিদের গ্রেফতারসহ আইনের আওতায় নিয়ে পুলিশ কোনো প্রকার তৎপরতা শুরু করেনি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, চোরাকারবারি দলের সদস্য ও হামলায় নেতৃত্বদানকারী মাহফুজুর রহমান কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মওদুদ হাওলাদারের আত্মীয়। এ প্রসঙ্গে কোতোয়ালি থানার ওসি এ বি এম মশিউর রহমান গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন- কাস্টমস যেভাবে মামলা দিয়েছে, আমরা সেভাবেই মামলা নিয়েছি। একজন গ্রেফতার হয়েছেন। বাকি আসামিদের ধরতে অভিযান চলছে। পুলিশ-কাস্টমস উভয়ই সরকারি কাজ করছে। এখানে ভুল- বোঝাবুঝির অবকাশ নেই।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর