শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ জানুয়ারি, ২০২১ ২৩:১৫

স্কুল খোলার আগে এক গুচ্ছ নির্দেশনা সরকারের

আকতারুজ্জামান

স্কুল খোলার আগে এক গুচ্ছ নির্দেশনা সরকারের

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে প্রায় ১১ মাস বন্ধ থাকার পর স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়ার উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্প্রতি এক ভার্চুয়াল বৈঠক করে ফেব্রুয়ারিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা পর্যায়ের স্কুল-কলেজ খুলে দিতে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। করোনার সংক্রমণ থেকে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে স্কুল-কলেজ খোলার আগে একগুচ্ছ নির্দেশনা জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের জারি করা নির্দেশনা এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনেস্কো, ইউনিসেফ, বিশ্বব্যাংকের আন্তর্জাতিক নির্দেশনা অনুসরণ করে ‘কভিড-১৯ পরিস্থিতি বিবেচনায় জনস্বাস্থ্য ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালু’র এই নির্দেশনা জারি করা হয়। স্কুল খোলার পর দুই মাসের মধ্যে কোনো পরীক্ষা বা মূল্যায়নে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দৃশ্যমান স্থানে ‘নো মাস্ক নো স্কুল’ নির্দেশনা টাঙাতে বলা হয়েছে।

সরকারের নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে- সারা দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কবে থেকে পুনরায় চালু হবে তা সরকার ঘোষণা করবে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানগুলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে পারবে কি না, স্কুল চালু রাখলে ওই এলাকার সংক্রমণ বাড়িয়ে দিতে পারে কি না সেটিও বিবেচনায় আনতে হবে। মাউশি মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক প্রতিবেদককে বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার প্রস্তুতি হিসেবে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের। আগামী ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যেই এটি নিশ্চিত করতে হবে। এরপর সরকারের সিদ্ধান্ত পেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। স্কুল-কলেজ খোলার আগে সরকারের পরিকল্পনায় ছাত্র-ছাত্রীদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষাকে সর্বোচ্চ প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালুর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের (শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থী, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ, স্থানীয় স্বাস্থ্য ও প্রশাসন এবং কমিউনিটি) সম্পৃক্ত করতে বলা হয়েছে। প্রতিটি শিক্ষার্থীর শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে আনন্দঘন শিখন পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। সর্বোপরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবস্থান, প্রাতিষ্ঠানিক ও আর্থিক সক্ষমতা, জনবল ও দক্ষতা ইত্যাদি বিবেচনায় বাস্তবসম্মতভাবে নির্দেশনা প্রণয়ন করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর প্রতিষ্ঠানে অবস্থানকালে সব শিক্ষার্থী, শিক্ষক, স্টাফ ও সংশ্লিষ্ট সবার সর্বদা মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দৃশ্যমান স্থানে ‘নো মাস্ক নো স্কুল’ নির্দেশনা টাঙাতে হবে। শারীরিক দূরত্ব মেনে শ্রেণিকক্ষ ও প্রতিষ্ঠানের চত্বরে খোলা জায়গায় ১ মিটার বা ৩ ফুট দূরত্বে শিক্ষার্থীদের বসার ব্যবস্থা করতে হবে। এমনকি বেঞ্চে বসার ক্ষেত্রেও ৩ ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কার্যক্রমে নির্দেশিত শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালুর প্রথম দুই মাসের মধ্যে কোনোরকম আনুষ্ঠানিক পরীক্ষা বা মূল্যায়ন করা যাবে না। শিক্ষার্থীদের ওপর যাতে কোনো প্রকার মানসিক চাপ সৃষ্টি না হয় এ বিষয়টি মাথায় রেখে পরিকল্পনা করতে হবে।

মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পুরো এলাকা জীবাণুমুক্ত রাখতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রবেশের সময় শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও স্টাফদের স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষণের জন্য কন্টাক্টলেস থার্মোমিটার স্থাপন করতে হবে। ৬ থেকে ১১ বছরের শিক্ষার্থীদের জন্য রোগবিস্তারের ঝুঁকির ওপর নির্ভর করে মাস্ক ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুযায়ী ১২ বছরের বেশি সবার জন্য মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করতে হবে। প্রতি ৩০ জন ছাত্রীর জন্য একটি টয়লেট ও ৬০ জন ছেলের জন্য একটি টয়লেট নিশ্চিতের চেষ্টা করতে হবে। শিক্ষক/কর্মচারী, ছাত্র ও ছাত্রী এবং প্রতিবন্ধীদের পরিচ্ছন্ন পৃথক টয়লেটের পরিকল্পনা করতে হবে। প্রতিটি টয়লেটে পানি, সাবানসহ অন্য স্যানিটারি সরঞ্জাম সরবরাহের পরিকল্পনা করতে হবে। সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য স্বাস্থ্যবিধি, শারীরিক দূরত্বের বিধি, হাত ধোয়ার সঠিক নিয়ম, মাস্ক পরার নিয়ম, হাঁচি-কাশির শিষ্টাচারে প্রশিক্ষণের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোতে নির্দিষ্ট সময় পর পর নিয়ম মেনে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া ও পরিষ্কারের ব্যবস্থা রাখতে হবে। হাঁচি-কাশির শিষ্টাচার পালন করা ও উৎসাহিত করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মেঝেসহ সব এলাকা প্রতিদিন নিয়মিত পরিষ্কার ও জীবাণুমুক্ত করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়মিত পানি, স্যানিটেশন এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনার সুবিধা রাখা এবং পরিচ্ছন্ন ও দূষণমুক্ত পরিবেশ বজায় রাখার পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে থাকাকালীন শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মচারীর মধ্যে করোনার উপসর্গ দেখা গেলে তাদের আলাদা কক্ষে রাখতে হবে। সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত এটি নিশ্চিত করতে হবে। সমস্যা দেখা দিলে তাদের চিকিৎসাসেবা দিতে হবে। দরিদ্র, পিছিয়ে পড়া ও সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থীদের তালিকা করে তাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করতে হবে। সম্ভাব্য ক্ষেত্রে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার আগেই স্কুলের পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। পাঠদানের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে সব ছাত্র-ছাত্রীকে আনা সম্ভব না হলে একসঙ্গে এক শিফটে কতজন শিক্ষার্থীকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আনা সম্ভব, আসন ব্যবস্থা কেমন হবে ছাত্র-ছাত্রীদের, সে ব্যাপারে পরিকল্পনা করতে বলা হয়েছে। শিক্ষার্থীর চাহিদা বিবেচনায় ও অভিভাবকদের মতামতের ভিত্তিতে এবং ধারণ ক্ষমতা অনুযায়ী কারা প্রতিষ্ঠানে আসবে আর কারা বিকল্প উপায়ে বা দূরশিক্ষণ কার্যক্রমে অংশ নেবে সে ব্যাপারে পরিকল্পনা করতে হবে। ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত সব শিক্ষা কার্যক্রম একই সঙ্গে চালু করতে কতটি শিফট প্রয়োজন এবং প্রতিটি শিফটের জন্য কত কর্মঘণ্টা প্রয়োজন তা নির্ধারণ করতে হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর