শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ মে, ২০২১ ২৩:২৯

নগদ সহায়তা বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করছে আওয়ামী লীগ, অন্যরা কোথায়

নিজস্ব প্রতিবেদক

মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করছে আওয়ামী লীগ, অন্যরা কোথায়
ভিডিও কনফারেন্সে গতকাল মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে আর্থিক সহায়তা কার্যক্রম উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা -পিআইডি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করছে সরকার। পাশাপাশি বরাবরের মতো মানুষের সাহায্যে এগিয়ে এসেছে আওয়ামী লীগ। কিন্তু যারা নিজেদের বিরোধী দল বা প্রতিদিন সরকার উৎখাতের জন্য বক্তৃতা-বিবৃতি দিয়ে আন্দোলনের নামে জ্বালাও-পোড়াও করে যাচ্ছেন, দুর্যোগে মানুষের পাশে অন্যরা কোথায়?

গতকাল সকালে গণভবনে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র ও অসহায় মানুষকে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে আর্থিক সহায়তা কার্যক্রমের দ্বিতীয় পর্যায়ের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বক্তব্য প্রদানকালে তিনি এসব কথা বলেন।

এ কার্যক্রমের আওতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঈদ উপহার হিসেবে সাড়ে ৩৬ লাখ নিম্ন আয়ের মানুষ আড়াই হাজার টাকা করে সহায়তা পাবেন। উদ্বোধনের দিনই ২২ হাজার ৮৯৫ জনের কাছে সহায়তার টাকা পৌঁছে গেছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস গণভবন থেকে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন। আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আবদুর রউফ তালুকদার এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া অন্যান্যের মধ্যে এ সময় উপস্থিত ছিলেন।  

করোনা পরিস্থিতিতে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্‌বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখা হাসিনা বলেন, নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে হবে, অন্যকেও সুরক্ষিত করতে হবে। আমরা টিকা দিচ্ছি এবং টিকা আরও নিয়ে আসছি। যত টাকা লাগুক আরও টিকা নিয়ে আসব। আমরা এ দেশের মানুষের কাছে টিকা পৌঁছে দেব। কিন্তু আপনাদের সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষার যেসব নির্দেশনাগুলো আমরা দিচ্ছি, সেটা দয়া করে আপনারা মেনে চলবেন। তিনি বলেন, আমি জানি রোজার সময়। সামনে ঈদ। বহুদিন হয়েছে, আমরা আত্মীয়-স্বজন ও পরিবার থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন। তবু এখন তো মোবাইল ফোন আছে। টেলিভিশনে সব দেখতে পারেন। তাই এটাই বলব, ঈদের আনন্দ সবার হবে। কিন্তু এই যে ঘরে ঘরে মানুষ মারা গেছে, তাদের কথা একটু চিন্তা করবেন। কাজেই নিজের জীবনটা যেন নষ্ট না হয় বা পরিবার-বন্ধু বান্ধবের জীবনটা নষ্ট না হয়। সেদিকে সবাই মিলে একটু দৃষ্টি দেবেন। তাই টিকা নেওয়া সত্ত্বেও মাস্কটা পরে থাকার পাশাপাশি গরম পানির গার্গেল করা, ভাপ নেওয়াসহ করোনাভাইরাস সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা পেতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি প্রতি পালন করতে হবে। শেখ হাসিনা আরও বলেন, যেহেতু আমরা আন্তজেলা যাতায়াতটা বন্ধ করেছি। তাতে অনেক পরিবহন শ্রমিক তাদের অসুবিধা হচ্ছে। আমরা তাদের প্রণোদনার ব্যবস্থা এবং তাদের জন্য কিছু সহযোগিতার ব্যবস্থা করে দিচ্ছি। যেসব এলাকায় এখন করোনা নাই, সেই জেলার ভিতর যোগাযোগটা যেন করতে পারে, সে ব্যবস্থাটা থাকবে। কিন্তু করোনাভাইরাস যেসব জেলায় আছে, সেখান থেকে আরেক জেলায় যেন যাতায়াতটা করতে না পারে। সেখান থেকে যাতে এটা সারা দেশে ছড়াতে না পারে, এ ব্যাপারে জনগণকে সচেতন হতে হবে। তিনি বলেন, করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। তবে অন্যান্য রাজনৈতিক দলের ততটা উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ আজকে ক্ষমতায়। আমাদের সবার চেষ্টা, কীভাবে এই দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াব এবং সেই প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এই সময় সারা বিশ্ব করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। তখন খুব স্বাভাবিকভাবেই ব্যবসা-বাণিজ্য, রপ্তানি সবকিছুতেই একটা ভাটা পড়ে গেছে। অর্থনৈতিকভাবে অনেক উন্নত দেশই হিমশিম খাছে। সেখানে আমরা প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। কারণ আমাদের ছোট ভূখন্ডে আমাদের অধিক জনসংখ্যা। এই জনসংখ্যাকে একদিকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা দেওয়া, অপরদিকে তাদের খাদ্যের ব্যবস্থা করা, তাদের জীবনকে সচল রাখার ব্যবস্থা, সেটা কীভাবে করা যায়, আমরা সেই প্রচেষ্টাই চালিয়ে যাচ্ছি এবং সে কারণেই আমরা এই অসহায় বঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। ১৯৭২ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক ভাষণে বলেছিলেন, আমাদের এমন একটা সমাজব্যবস্থা গড়ে তুলতে হবে, যে সমাজে কৃষকরা... ক্ষুধার্ত জনগণ আবার হাসতে পারবে। অর্থাৎ এ কৃষক-শ্রমিক বঞ্চিত মানুষ তাদের ভাগ্য গড়া এটিই ছিল জাতির পিতার স্বপ্ন। সেটাই তিনি করতে চেয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা সবসময় চাই মানুষকে কীভাবে সহযোগিতা করব। মানুষের পাশে দাঁড়াব এবং জাতির পিতা যেভাবে কাজ করতেন, আমরা সেই পদাঙ্ক অনুসরণ করেছি। জাতির পিতার আদর্শ-নীতির পদাঙ্ক অনুসরণ করে দেশে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছি। তিনি বলেন, সবসময় দুর্গত মানুষের পাশে কিন্তু আওয়ামী লীগ আছে। ধান কাটার অসুবিধা, আমরা ছাত্রলীগকে বলার সঙ্গে সঙ্গে নেমে গেছে। কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগ প্রত্যেকেই কিন্তু এই করোনা মহামারীতে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। চিকিৎসার জন্য অসুস্থ মানুষকে হাসপাতালে পৌঁছে দিয়েছে। লাশ দাফন করা অথবা মানুষের ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিয়েছে। ধান কেটে কৃষকের ঘরে তুলে দেওয়া, সব কাজে কে আছেন এখন? আওয়ামী লীগ আছে আর আমাদের সহযোগী সংগঠনের কর্মীরাই আছে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অনেকেই শক্তিশালী বিরোধী দল চায়। আমরাও তো বিরোধী দলে ছিলাম। বিরোধী দলে থাকতে সব সময় যে কোনো দুর্যোগ, দুর্বিপাকে সবার আগে আওয়ামী লীগ ছুটে যেত মানুষের পাশে। এটাই বিরোধী দলের কাজ। কিন্তু আজকে যারা নিজেদেরকে বিরোধী দল বা প্রতিদিন সরকার উৎখাতের জন্য বক্তৃতা-বিবৃতি, আন্দোলনের নামে জ্বালাও-পোড়াও করে যাচ্ছে, দুর্যোগে মানুষের পাশে কোথায় তারা? কয়টা দুর্গত মানুষের মুখে তারা খাবার তুলে দিয়েছে? কয়টা মানুষের পাশে তারা দাঁড়িয়েছে? কয়জন মানুষের কাফনের কাপড় কিনে দিয়েছে? কেউ নেই।

সরকারের সমালোচকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নিজে কয়টা লোককে সাহায্য করেছেন? তার একটা হিসাব পত্রিকায় দিয়ে দেন। তাহলে মানুষ আস্থা পাবে, বিশ্বাস পাবে। সেটা হচ্ছে বাস্তবতা। তিনি বলেন, সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ করে দিয়েছে এবং অনেকগুলো বেসরকারি টেলিভিশন করে দিয়েছে, রেডিও করে দিয়েছে, পাশাপাশি বেসরকারি খাতে অনেকগুলো পত্রিকা হয়ে গেছে এবং তারা বেশ ঘরে বসে বসে বিবৃতিই দিয়ে যাচ্ছেন। যারা সমাজে ‘বুদ্ধিজীবী’ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন, তাদের সমালোচনা করে সরকারপ্রধান বলেন, তাদের বুদ্ধিটা যখন খোলে এবং তারা পরামর্শ দেন, তার আগেই কিন্তু আমাদের সরকার আওয়ামী লীগ এই ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়ে নেয়। সরকার যখন মানুষের কল্যাণে সব পরিকল্পনা গুছিয়ে আনে বা বাজেটে কোন কোন খাতের ওপর বেশি গুরুত্ব দেবে, তা যখন চূড়ান্ত হয়ে যায়, তখন সেই বুদ্ধিজীবীদের ‘দুই একটা বুদ্ধি খোলে’ বলেও মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আমাদের যেই কাজগুলো, সেইগুলো আবার তারা আমাদেরকে পরামর্শ দেন। তো ঠিক আছে। তারা বুদ্ধিজীবী, তাদের এত বুদ্ধি, বুদ্ধি বেচেই জীবনযাপন করবেন। কাজেই তাদের পরামর্শের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ। সরকার বুদ্ধিজীবীদের পরামর্শের জন্য বসে না থেকে মানুষের কল্যাণের জন্য কাজ করে যাচ্ছে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কারণ এই দেশটা আমাদের। এই দেশটা আমার বাবা স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন। রাজনীতি আমাদের জনগণের জন্য, জনগণের কল্যাণের জন্য। এই কথাটা আমরা ভুলি না।

বিএনপির রাজনৈতিক ইতিহাস তুলে ধরতে গিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা ও জাতীয় চার নেতাকে হত্যার পর তারা ভেবেছিল, আওয়ামী লীগ আর কখনো ক্ষমতায় আসতে পারবে না। অপরাধ কী ছিল? আওয়ামী লীগ স্বাধীনতা এনে দিয়েছিল। এটাই তো অপরাধ ছিল?