শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৫ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ আগস্ট, ২০২১ ২৩:০৫

তালেবানের ডাকে কিছু মানুষ ঘর ছেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

তালেবানের ডাকে কিছু মানুষ ঘর ছেড়েছে
Google News

ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার শফিকুল ইসলাম বলেছেন, ‘তালেবানের আহ্বানে বাংলাদেশ থেকে কিছু মানুষ আফগানিস্তানে যাওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ হয়েছে। কিছু মানুষ ঘর ছাড়ছে। আমরা ধারণা করছি কিছু মানুষ ভারতে ধরা পড়েছে আর কিছু হেঁটে বিভিন্নভাবে আফগানিস্তানে পৌঁছানোর চেষ্টা করছে।’ অনলাইনে জঙ্গিরা  এখনো কর্মী সংগ্রহ ও উদ্বুদ্ধ করার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। গতকাল সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের নিরাপত্তাব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ অভিমত ব্যক্ত করেন।

শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘পৃথিবী এখন সাইবার জগতে বন্দী। ডিএমপিসহ সরকারের সব গোয়েন্দা সংস্থা এ বিষয়ে তৎপর। গত পরশু জঙ্গি সংগঠনের একজনকে গ্রেফতার করেছি। তিনি বোমা বিশেষজ্ঞ। অনলাইনে বোমা তৈরির প্রশিক্ষণ দিতেন। নারায়ণগঞ্জে শক্তিশালী বোমা উদ্ধার হয়েছে, সেটিও তার সরাসরি তত্ত্বাবধানে তৈরি করা। এ মাসে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক জঙ্গি বা নাশকতাকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অর্থাৎ তারা যে থেমে নেই তা বলা যায়। কিন্তু আমরা সর্বোচ্চ শ্রম দিয়ে চেষ্টা করে যাচ্ছি, যাতে বাংলাদেশে আর জঙ্গিদের দ্বারা একটি ঘটনাও না ঘটে।’ ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘যারা জঙ্গি হামলাগুলো করে, এখন যারা হামলার চেষ্টা করছে তাদের প্রধান কাজই হলো আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে আসা। অর্থাৎ প্রতিটা ঘটনা ঘটিয়েই তাদের আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় আসতে হয়। এ ক্ষেত্রে ১৫ আগস্ট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তাদের ক্ষেত্রে। ১৫ আগস্টের ভেন্যুর আশপাশে না হোক, এর থেকে ২ কিলোমিটার দূরেও যদি বোমা ফাটাতে পারে তাতেও আন্তর্জাতিক দৃষ্টি আকৃষ্ট হবে। এদিক বিবেচনা করে তারা চেষ্টা চালাচ্ছে। কিন্তু যে গ্রুপ ডেভেলপ করে উঠছিল সেই পুরো ট্র্যাক ধরা পড়ে গেছে। আমাদের আশঙ্কা আছে। কিন্তু সর্বোচ্চ মেধা ও চেষ্টা দিয়ে এ ধরনের ঘটনা যাতে না ঘটে সেজন্য তৎপর আছি।’ ১৫ আগস্ট উপলক্ষে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে মাস্ক পরা ছাড়া কাউকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। সারা দিন পুলিশের নিরাপত্তা থাকবে, তাই যে কোনো সময় শ্রদ্ধা জানানো যাবে। সেলফি তোলা থেকে বিরত থাকার জন্যও অনুরোধ জানানো হয়েছে ডিএমপি থেকে।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘এদিন যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রিত থাকবে। চেকপোস্টে ভালোভাবে পরীক্ষা করেই আমরা লোকজন এখানে ঢুকতে দেব। প্রধানমন্ত্রী যতক্ষণ এখানে থাকবেন ততক্ষণ পর্যন্ত পুরো ভেন্যু জনশূন্য থাকবে। আশা করছি সকাল সাড়ে ৭টার দিকে তিনি ভেন্যু ত্যাগ করবেন। এরপর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, তারপর সাধারণ মানুষের জন্য ভেন্যু উন্মুক্ত থাকবে।’