শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২০ মে, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ মে, ২০২০ ২৩:৪৯

জাহাজশূন্য জেটি পণ্য ওঠানামা বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

জাহাজশূন্য জেটি পণ্য ওঠানামা বন্ধ

সুপার সাইক্লোন আম্ফানের সম্ভাব্য আঘাতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমাতে চট্টগ্রাম বন্দরের মূল জেটিগুলো জাহাজশূন্য করা হয়েছে। ‘বুম আপ’ বা নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে ১৪টি গ্যান্ট্রি ক্রেনসহ কনটেইনার হ্যান্ডলিংয়ের যন্ত্রপাতি। এর আগে সোমবার বহির্নোঙরে জাহাজ থেকে লাইটার জাহাজে পণ্য খালাস বন্ধ হয়ে যায়। ফলে জাহাজশূন্য বন্দরের জেটিতে সব ধরনের কার্যক্রম ও পণ্য ওঠানো-নামানো বন্ধ হয়ে গেছে। যে কোনো ঝুঁকি এড়াতে লাইটার জাহাজগুলো কর্ণফুলীর উজানে ও বহির্নোঙরে থাকা প্রায় ১০০ জাহাজকে সর্বক্ষণ ইঞ্জিন চালু রাখার এবং প্রয়োজনে গভীর বঙ্গোপসাগরের অপেক্ষাকৃত নিরাপদ স্থানে চলে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে। উল্লেখ্য, আম্ফানের কারণে আবহাওয়া অফিস পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর বিপৎসংকেত এবং কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরকে ৬ নম্বর বিপৎসংকেত দেখাতে বলেছে। ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে বন্দর থেকে। আম্ফান এখন চট্টগ্রাম বন্দর থেকে মাত্র ৮৯০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে বলে জানা গেছে।

বন্দরসূত্রে জানা গেছে, গতকাল সকাল ৮টা ২০ মিনিটে জেটির সর্বশেষ জাহাজটি বহির্নোঙরে নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে জেটিতে কোনো জাহাজ নেই। গ্যান্ট্রি ক্রেনগুলো ঝোড়ো হাওয়ায় যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, তাই বুম আপ অবস্থায় অ্যাংকর করা হয়েছে। তবে ইয়ার্ড থেকে কনটেইনার ডেলিভারি এখনো দেওয়া হচ্ছে। এমনিতেই করোনা পরিস্থিতির কারণে বন্দরে কনটেইনার ও জাহাজজট চলছিল, এর ওপর ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের সম্ভাব্য হানা বন্দরের এ জটকে আরও দীর্ঘায়িত করেছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। এ ছাড়া আসন্ন ঈদের কারণেও বন্দরে কার্যক্রমে ধীরগতি নেমে আসে। সব মিলিয়ে দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দর চট্টগ্রাম এখন কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি রয়েছে বলে জানিয়েছেন বন্দর কর্মকর্তারা। বন্দরের উপ-সংরক্ষক ক্যাপ্টেন ফরিদুল আলম জানান, সম্ভাব্য ঘূর্ণিঝড়ের কারণে বন্দরের জেটি থেকে ১৯টি জাহাজ সোমবার বিকাল ৪টা থেকে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার মধ্যে গভীর সাগরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। বহির্নোঙরে থাকা ৫১টি বড় জাহাজ গভীর সাগরে পাঠিয়ে দেওয়া হয় । ১৮, ১৫ নম্বর খাল ও গুপ্তখালের লাইটার-কোস্টার ভ্যাসেলগুলো বাংলাবাজার থেকে শাহ আমানত সেতুর উজানে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। বন্দরের নিজস্ব টাগ ও নৌযানগুলো নিরাপদ আশ্রয়ে রাখা হয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব মো. ওমর ফারুক বলেন, ‘আবহাওয়া অধিদফতরের সতর্কসংকেত অনুযায়ী চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ অ্যালার্ট-৩ জারি করেছে। তিনটি কন্ট্রোল রুম (নৌ বিভাগ-০৩১-৭২৬৯১৬, পরিবহন বিভাগ-০৩১-২৫১৭৭১১, সচিব বিভাগ-০১৭৫১৭১৩০৩৭) খোলা হয়েছে। বন্দরের জেটি থেকে জাহাজ সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। গ্যান্ট্রি ক্রেনসহ মূল্যবান সব যন্ত্রপাতি বুম আপ করে রাখা হয়েছে। আমরা সব ধরনের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।’

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর