শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৩৪

হোয়াইট হাউসের সতর্ক দৃষ্টি

সেই জর্জ ফ্লয়েড হত্যার রায় যে কোনো সময়

লাবলু আনসার, যুক্তরাষ্ট্র

Google News

বিশ্বব্যাপী বিস্তৃত বিক্ষোভের সেই কৃষ্ণাঙ্গ বিদ্বেষমূলক হত্যাকান্ড তথা মার্কিন যুবক জর্জ ফ্লয়েড হত্যা মামলার রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সারা আমেরিকায় টানটান উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। এ জন্য কর্তৃপক্ষ যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলার সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়েছে। হোয়াইট হাউসও নজর রেখেছে পরিস্থিতির ওপর। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এই মামলার রায় নিয়ে জণগণকে উসকে দেওয়ার মতো কোনো পোস্টিং গ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে। উল্লেখ্য, টানা ১৪ দিনের যুক্তি-তর্ক শেষে সোমবার জুরিবোর্ড তাদের মতামত উপস্থাপন শুরু করেছেন। অর্থাৎ যে কোনো সময় বহুল আলোচিত এ মামলার রায় দেবেন মিনেসোটার বিচারকেরা। গত বছর মে মাসে শ্বেতাঙ্গ পুলিশ অফিসার ডেরেক সৌভিনের হাঁটুর চাপায় প্রাণ হারান জর্জ ফ্লয়েড। ৯ মিনিটেরও অধিক সময়ের এই নিষ্ঠুর আচরণের দৃশ্য পথচারী এক স্কুলছাত্রীর স্মার্ট ফোনের ভিডিওতে ধারণ করার পর তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। যদিও মামলার রায় কোন দিকে যাবে তা বলা যাচ্ছে না। রায়ে সাবেক শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তা হত্যার দায় থেকে মুক্তি পেলে আবারও চরম ক্ষোভে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনের কর্মীরা মাঠে নামতে পারেন। ইতিমধ্যে মিনিয়াপোলিস সিটিতে লোকজনের অবস্থান-বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। সেখানে কারফিউ জারি করা হয়েছে। নিউইয়র্ক, বস্টন, ফিলাডেলফিয়া, লস অ্যাঞ্জেলেস, ওয়াশিংটন ডিসিসহ বেশ কটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সমাবেশের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এ অবস্থায় প্রশাসনও প্রস্তুতি নিয়েছে যে কোনো ধরনের উত্তেজনা প্রশমনে। উল্লেখ্য, এই বিচার ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবং সিএনএনসহ সব কটি শীর্ষস্থানীয় টিভিতে তা সরাসরি প্রচারিত হওয়ায় অনেকের মধ্যে সংশয় দেখা দিয়েছে, অভিযুক্ত পুলিশ অফিসার দোষী না-ও হতে পারেন। এ আশঙ্কা থেকেই রাজপথ পুনরায় ফুঁসে ওঠার অবস্থা বিরাজ করছে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ সোমবার বলেছে, ডেরেক সৌভিনের বিরুদ্ধে প্রদত্ত রায়ের পর কেউ যাতে উসকানিমূলক মতামত/মন্তব্য অথবা ভিত্তিহীন/বিদ্বেষমূলক মতামত পোস্ট করতে না পারে, সে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এমনকি লোকজনকে অস্ত্রসহ রাজপথে নামার আহ্‌বানও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে না ওঠানোর ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক। ফেসবুকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মনিকা বিকার্ট বলেন, ‘আমরা জানি এই বিচার প্রক্রিয়া অনেক মানুষের জন্যই বেদনাদায়ক। এ জন্য আমরা উদ্ভূত পরিস্থিতির সঠিক ভারসাম্য রক্ষা করতে চাই। রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে নিজ নিজ মতামত প্রকাশের অধিকার সুরক্ষা করতে আমরা বদ্ধপরিকর। একই সঙ্গে সবার নিরাপত্তার ব্যাপারেও আমরা যথেষ্ট সচেতন। এমন কিছু করা যাবে না, যাতে জনজীবনের শান্তি বিঘ্নিত হতে পারে। সহিংসতা উসকে দেওয়ার মতো কোনো কিছু ফেসবুক প্রচার করবে না।’ অন্যদিকে হোয়াইট হাউস থেকে জানানো হয়েছে, এই বিচারের দিকে গুরুত্বের সঙ্গে দৃষ্টি রাখছেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন। মামলার রায় ঘোষণার পর তিনি জাতির উদ্দেশে বক্তব্য দেবেন বলেও প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি গণমাধ্যমকে বলেছেন। জেন সাকি বলেন, সংবিধানের প্রথম সংশোধনীতে আমেরিকার জনগণকে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ করার অবাধ স্বাধীনতা দেওয়া আছে। লোকজন তাদের এই অধিকার বিনা বাধায় চর্চা করতে পারবে। তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট বাইডেন মনে করেন, লোকজন প্রতিবাদ সমাবেশ করতেই পারে। কিন্তু এসব প্রতিবাদ সমাবেশ অবশ্যই যেন শান্তিপূর্ণ থাকে।

এই বিভাগের আরও খবর