শিরোনাম
বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

বিজয়ী ও পরাজিত পক্ষের গোলাগুলি

ইউপি সদস্যের ভাতিজার রগ কাটা লাশ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিজয়ী ও পরাজিত পক্ষের গোলাগুলি

নির্বাচনী সংঘাত-সহিংসতা বন্ধ হচ্ছে না। গতকাল দিনাজপুরে নবনির্বাচিত এক ইউপি সদস্যের ভাতিজার পায়ের রগ কাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নির্বাচনী বিরোধের জেরে এ হত্যাকান্ড বলে অভিযোগ তুলেছে পরিবার। এ ঘটনায় পুলিশ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সদস্য পদের লড়াইয়ে হেরে যাওয়া একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে। পাবনার ঈশ্বরদীর লক্ষ্মীকুন্ডা ইউনিয়নে বিজয়ী ও পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে গোলাগুলি ঘটেছে। এ ছাড়া নির্বাচনী সংঘাতে বিভিন্ন এলাকায় মামলা হয়েছে। গতকাল পর্যন্ত নির্বাচনী সংঘাতে প্রাণহানি হয়েছে ৭৪ জনের। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

দিনাজপুরে এক তরুণের পায়ের রগ কাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ; যাকে নির্বাচনী বিরোধের জেরে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছে পরিবার। এ ঘটনায় পুলিশ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সদস্য পদের লড়াইয়ে হেরে যাওয়া একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে বলে নবাবগঞ্জ থানার আফতাবগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক নোয়াবুর রহমান জানিয়েছেন। নিহত সৌরভ হোসেন (২৩) জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার জয়পুর ইউনিয়নের চামুন্ডাই গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে এবং ওই ইউনিয়নের বিজয়ী সদস্য সানোয়ার হোসেনের ভাতিজা। পরিদর্শক নোয়াবুর রহমান বলেন, বুধবার সকালে উপজেলার নলশীষা নদীর পাড়ে সৌরভের লাশ দেখে স্থানীয়রা থানায় খবর দেন। পুলিশ বেলা ১১টার দিকে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আবদুর রহিম মেডিকেল কালেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। তাকে দুই পায়ের রগ কেটে হত্যা করা হয়েছে।

সৌরভের চাচা সানোয়ার হোসেন বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় হেলালের লোকজন সৌরভকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর সৌরভ আর ফিরে আসেনি। নির্বাচনে হেরে যাওয়ার ক্ষোভ থেকে হেলাল উদ্দিনের লোকজন সৌরভকে হত্যা করেছে।

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার রাতে ওই জয়ী প্রার্থীর সমর্থকরা কালিরহাট বাজারে এক নৈশভোজের আয়োজন করেন। ওই নৈশভোজে সৌরভও অংশ নেন। খাওয়া শেষে সৌরভকে আর পাওয়া যায় না। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে কল করলেও রিসিভ হয়নি। পরে গতকাল সকালে স্থানীয়রা নলশীষা নদীর তীরে সৌরভের লাশ দেখেতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন। পাবনার ঈশ্বরদীর লক্ষ্মীকুন্ডা ইউনিয়নে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় বিজয়ী ও পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে গোলাগুলি হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে চরকুড়ুলিয়ায় তারা সংঘর্ষে জড়ান। এতে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। তার মধ্যে আলম বাদশা নামে এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন। বগুড়ার ধুনটে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ ২৯ জনের নাম উল্লেখ করে মোট ৩৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল হাই খোকন এবং স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর ছেলে রাসেদুজ্জামান সবুজ বাদী হয়ে পৃথক দুটি মামলা করেন। এ ছাড়া বগুড়ার ধুনট উপজেলার ১০ ইউনিয়নে নির্বাচনে নৌকার বিপক্ষে অবস্থান নেওয়ার অভিযোগে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ১০ নেতা-কর্মীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দিন সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী মক্কি ইকবাল হোসেনের সমর্থকদের ব্যালট বাক্স ছিনতাই-চেষ্টার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে খিলছাদক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার এ কে এম শাহাবউদ্দিন বাদী হয়ে মামলাটি করেন। ওই মামলায় ১৮ জনের নাম উল্লেখপূর্বক ২৫-৩০ জনকে অজ্ঞাত আসামি দেখানো হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর