শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ আগস্ট, ২০২১ ২২:৫৬

মুমূর্ষু মুহূর্তের সারথি ‘নিষ্ঠা’

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

মুমূর্ষু মুহূর্তের সারথি ‘নিষ্ঠা’
Google News

‘শুক্রবার। জুমার দিন। চলছে লকডাউন। গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি পড়ছে। ছুটির দিনে একটু ফুরসত মিলবে বিশ্রামের। সময় কাটানো যাবে পরিবারের সঙ্গে। এমনই সময়ে ডাক এলো নিষ্ঠা ফাউন্ডেশন থেকে। চলেই গেলাম গন্তব্যস্থলে।’ কথাগুলো বললেন নিষ্ঠার টিম সদস্য রিয়াদ। তিনি বলেন, নগরের আগ্রাবাদ একটি বেসরকারি হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন সুজুতা চাকমা নামের এক রোগী। পৌঁছাতে হবে রাঙামাটি। হাসপাতালে গিয়ে লাশ অ্যাম্বুলেন্সে করে রাঙামাটি ফিশারি ঘাট পর্যন্ত যাই। এরপর লাশ কাঁধে নিয়ে নৌকায় তুলে নদীর ওপারের কারিসকুন গ্রামে পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়।

এভাবে প্রতিদিনই লাশ পরিবহন করে দাফন-কাফন এবং সৎকার করছে নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের টিম। একই সঙ্গে রোগীও পরিবহন করা হচ্ছে ফাউন্ডেশনের দুটি অ্যাম্বুলেন্সে। করোনায় লাশ দাফন-কাফন ও সৎকার এবং মুমূর্ষু রোগী পরিবহন ও সেবায় সারথি হয়েছে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের টিম। গত দেড় বছর ধরে সংগঠনটি চট্টগ্রামসহ সারা দেশে এভাবে সেবা দিয়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে সংগঠনটি লাশ গোসল, কাফন-দাফন ও সৎকার করেছে ১৩৫ জনকে, বিনামূল্যে অক্সিজেন দিয়েছে ১ হাজার ২৫৫ জনকে, অ্যাম্বুলেন্স সেবা দেওয়া হয় ১ হাজার ১৯৫ জনকে। সংস্থাটির ৪০ স্বেচ্ছাসেবী দিনরাত সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। 

নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ নুর হোসাইন বলেন, করোনা প্রকোপের প্রথম ঢেউয়ের শুরু থেকেই মানবিক কাজগুলো শুরু করা হয়। সবার সহযোগিতায় ইতিমধ্যে বঞ্চিত হাফেজ, টিউশনিনির্ভর শিক্ষকসহ সমাজের নানা শ্রেণি-পেশার মানুষকে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে। নিষ্ঠার সাংগঠনিক সম্পাদক প্রকৌশলী আরিফ উদ্দিন বলেন, সংস্থার উদ্যোগে গত কোরবানির সময় ২৩৬ জনের কোরবানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সংস্থার উদ্যোগে ১০ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মাধ্যমে টেলিমেডিসিন সেবা, ক্যাম্পেইন ও লিফলেট বিতরণ, শুক্রবার মসজিদে মাস্ক বিতরণ, নন এমপিও শিক্ষক ও প্রাইভেট শিক্ষকদের আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে।