Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ জুলাই, ২০১৯ ১০:০১

'২৬ জুলাইয়ের মধ্যে ঘোষণা করা হবে জাকসুর নির্বাচন কমিশন'

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

'২৬ জুলাইয়ের মধ্যে ঘোষণা করা হবে জাকসুর নির্বাচন কমিশন'

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (জাকসু) নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশন আগামী ২৬ জুলাইয়ের মধ্যে ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম। বাংলাদেশ প্রতিদিনের সাথে আলাপচারিতায় এ কথা জানান তিনি। 

কমিশন গঠনের কাজ চলছে জানিয়ে উপাচার্য বলেন, জাকসু নির্বাচনকে আমি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি। যে কোনো মূল্যে নির্বাচন দেয়াই এখন আমাদের লক্ষ্য। রেজিস্ট্রারড গ্রাজুয়েট নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছিলাম। সেটা যখন দিতে পেরেছি জাকসুও দিবো। সুষ্ঠু এবং শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের লক্ষ্যে দক্ষ এবং অভিজ্ঞ শিক্ষকদের সমন্বয়ে একটি নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে।

প্রসঙ্গত, সর্বশেষ ১৯৯২ সালে জাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ফলে দীর্ঘ ২৭ বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটে নেই নির্বাচিত ছাত্র প্রতিনিধি।

এদিকে, চলমান সাড়ে ১৪শ কোটি টাকার মেগা প্রজেক্টের অধীনে ৫টি নতুন আবাসিক হল নির্মাণ এবং এ লক্ষ্যে সহস্রাধিক গাছ কাটার সিদ্ধান্তে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের একাংশের প্রতিবাদের বিষয়ে জানতে চাইলে উপাচার্য বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাকে ভরসা করে এই মেগা প্রজেক্টের দায়িত্ব দিয়েছেন। অভিজ্ঞ ও বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়েই নতুন হল নির্মাণের স্থান নির্ধারণ ও মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করা হয়েছে। কোনো কিছুই আমাকে জাবির উন্নয়ন কার্যক্রম থেকে বিরত রাখতে পারবে না।

এ সময় তিনি বলেন, প্রাকৃতিক পরিবেশের কথা বিবেচনা করেই মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করা হয়েছে। এখন আর প্রকল্পের কাজ থেকে সরে আসার কোনো সুযোগ নেই। হয় উন্নয়ন কাজ চালিয়ে যাবো নইলে উপাচার্যের পদ ছেড়ে দিবো।

উল্লেখ্য, উপাচার্য গত ৩০ জুন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পের অধীনে প্রথম ধাপের পাঁচটি আবাসিক হল নির্মাণের উদ্বোধন করেন। ১০ তলা বিশিষ্ট পাঁচটি হলের মধ্যে তিনটি ছাত্রদের এবং দুটি ছাত্রীদের জন্য নির্মিত হবে। ছাত্রদের তিনটি হলের জন্য স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলের পার্শ্ববর্তী এলাকা এবং ছাত্রীদের হল দুটির জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মেহের চত্বর (টারজান পয়েন্ট) সংলগ্ন এলাকা। সরেজমিনে দেখা যায় হলগুলো নির্মাণ করতে গেলে প্রায় ১১৩২টি গাছ কেটে ফেলতে হবে।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য