৩০ অক্টোবর, ২০২২ ১৭:১০

বিশ্বে প্রতি ছয় সেকেন্ডে একজন স্ট্রোকে মারা যায়

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম:

বিশ্বে প্রতি ছয় সেকেন্ডে একজন স্ট্রোকে মারা যায়

স্ট্রোক হলে দেরি না করে রোগীদের অবশ্যই স্ট্রোক সেন্টারে গিয়ে চিকিৎসা নিতে হবে। কারণ স্ট্রোক পরবর্তী প্রতি মিনিটে ১ দশমিক ৯ মিলিয়ন ব্রেনের কোষ মারা যায়। এতে মস্তিস্কের স্থায়ী ক্ষতি হয়। পুরো বিশ্বে প্রতি দুই সেকেন্ডে একজন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয় এবং প্রতি ছয় সেকেন্ডে একজন রোগী মারা যায়। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে স্ট্রোকের রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে।

রবিবার দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের নিউরোলজি বিভাগের উদ্যোগে শহীদ শাহ আলম বীর উত্তম মিলনায়তনে ‘বিশ্ব স্ট্রোক দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত সেমিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন। 

‘মূল্যবান সময় বাঁচান’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে ‘স্ট্রোক ব্যবস্থাপনায় নতুনত্ব কী’ শীর্ষক মূল বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নিউরোলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. মো. হাসানুজ্জামান।

চমেকের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. হাফিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চমেকের নিউরোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. মুহিতুল ইসলাম, ডা. প্রদীপ কুমার কায়স্থগীর, ডা. শিউলি মজুমদার, ডা. পঞ্চানন দাশ, সহকারী অধ্যাপক ডা. মাহবুবুল আলম খন্দকার, ডা. মসিহুজ্জামান আলফা, ডা. তৌহিদুর রহমান, আনোয়ারুল কিবরিয়া, ডা. জামান আহম্মদ, ডা. একরামুল আজম শাহেদ, নিউরোলজি বিভাগের কনসালটেন্ট ডা. সীমান্ত ওয়াদ্দাদার ও রেজিস্টার ডা. পীযুষ মজুমদার।

বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধে অধ্যাপক ডা. মো. হাসানুজ্জামান বলেন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের নিউরোলজি ওয়ার্ডের রোগী ভর্তির পরিসংখ্যানের দিকে তাকালেই স্ট্রোকের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে উঠে। মূলত আমাদের জীবন যাপনের পরিবর্তন এবং অনিয়ন্ত্রিত ডায়বেটিস, উচ্চ রক্তচাপের কারণে স্ট্রোক বাড়ছে। স্ট্রোকের চিকিৎসা শতভাগ নিরাময়যোগ্য না হলেও নিয়মতান্ত্রিক চলাফেরা করে সুস্থ থাকা সম্ভব। দুই ধরণের স্ট্রোক রয়েছে। এর মধ্যে ৮৬ শতাংশই হলো ইস্কেমিক স্ট্রোক এবং ১৪ শতাংশ হলো হেমোরজিক স্ট্রোক। ইস্কেমিক স্ট্রোক তখন হয় যখন মস্তিষ্কের রক্তনালীতে জমাট বেঁধে রক্ত সঞ্চালন ব্যাহত হয়। আবার  হেমোরজিক স্ট্রোক হলো- যখন মস্তিষ্কের রক্তনালী ফেটে গিয়ে রক্তক্ষরণ হয়। স্ট্রোক রোগীর পুনবার্সন প্রক্রিয়া নিয়েও আমাদের ভাবতে হবে। কারণ স্ট্রোকের চিকিৎসা খুবই দীর্ঘমেয়াদী। তবে বর্তমানে আমাদের নিউরোলজি ওয়ার্ডে আধুনিক চিকিৎসা শুরু করেছি। স্ট্রোকের লক্ষণ শুরু হওয়ার ৩ ঘণ্টার মধ্যে আমাদের ওয়ার্ডে আসলে থ্রম্বোলাইটিক থেরাপির মাধ্যমে স্ট্রোক সম্পূর্ণ নিরাময় করা সম্ভব। ইতোমধ্যে আমরা যতগুলো থেরাপি দিয়েছি, শতভাগ সফল হয়েছে। রোগীরা সুস্থ জীবন যাপন করছেন।

বিডি প্রতিদিন/এএম

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর