শিরোনাম
প্রকাশ : ২১ অক্টোবর, ২০২০ ১৬:৩১
আপডেট : ২১ অক্টোবর, ২০২০ ১৬:৩৭

২টিতে স্বতন্ত্র ১টিতে আওয়ামী লীগ, দুর্গতেই হারলো জাতীয় পার্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

২টিতে স্বতন্ত্র ১টিতে আওয়ামী লীগ, দুর্গতেই হারলো জাতীয় পার্টি

জাতীয় পার্টির দুর্গ হিসেবে খ্যাত রংপুর সদরের ৩ ইউপি নির্বাচনের সব কয়টিতেই হেরেছে জাপার প্রার্থীরা। দুটিতে জিতেছে স্বতন্ত্র প্রার্থী, একটিতে নৌকা প্রতীক বিজয়ী হয়েছে। তবে বিজয়ী ৩ প্রার্থীই সাবেক চেয়ারম্যান।

মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা রেজাউল করিম এ ফলাফল ঘোষণা করেন। এসব ইউনিয়নে ৮০ শতাংশ ভোট পড়েছে। জাতীয় পার্টির প্রার্থীদের পরাজয়ে নেতাকর্মীদের মাঝে হতাশার সুর নেমে এসেছে।

হরিদেবপুর ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী ইকবাল হোসেন ঢোল প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নিয়ে ১১ হাজার ৭৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জাতীয় পার্টির মফিজুল ইসলাম জর্দ্দা লাঙ্গল প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৭৯৬ ভোট পড়েছে।

আওয়ামী লীগের নৌকা মার্কায় একরামুল হক পেয়েছেন ৪ হাজার ১৯১ ভোট। এই ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ২৭ হাজার ২৯৭ জন। এখানে ৮০ দশমিক ৬২ ভাগ ভোটার তাদের ভোট প্রদান করেছেন। 

সদ্যপুষ্করিনী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হেরেছে সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সোহেল রানার কাছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তিনি পেয়েছেন ৬ হাজার ৫৬০ ভোট।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জাতীয় পার্টির ফজলুল হক ফুলবাবু লাঙ্গল প্রতীকে ৬ হাজার ১২৭ ভোট এবং আওয়ামী লীগের প্রার্থী মকছেদুর রহমান দুলু ৫ হাজার ৫২৬ ভোট পেয়েছেন। এই ইউনিয়নে ৮০ দশমিক ৮৭ শতাংশ ভোট পড়েছে। 

চন্দনপাট ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আমিনার রহমান নৌকা প্রতীকে ৫ হাজার ৬০৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

তার নিকটতম  প্রতিদ্বন্দ্বি জাতীয় পার্টির রুহুল আমিন লিটন লাঙ্গল প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৩৭৮ ভোট। এই ইউনিয়নে ২৪ হাজার ৮৫৩ জন ভোটারের মধ্যে ৮০ ভাগ ভোটার ভোটাধিকার প্রদান করেছেন।

এছাড়াও রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার ১ নম্বর আলমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর