শিরোনাম
প্রকাশ : ৯ মার্চ, ২০২১ ১৬:৩৫
প্রিন্ট করুন printer

মাদক নিয়ন্ত্রণ কার্যালয়ে ইয়াবা দিয়ে যুবককে নির্যাতন, বিচার দাবি এলাকাবাসীর

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

মাদক নিয়ন্ত্রণ কার্যালয়ে ইয়াবা দিয়ে যুবককে নির্যাতন, বিচার দাবি এলাকাবাসীর

বরিশালে এক যুবককে আটকের পর হাতকড়া পড়িয়ে হাতে ইয়াবা দিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে। ইয়াবা দিয়ে নির্যাতন করে ফাঁসানোর অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী যুবক নগরীর কাউনিয়া বিসিক রোডের বেগের বাড়ির মো. মারুফ সিকদার (২০)।

এ ঘটনা তদন্ত করে অভিযুক্ত কর্মকর্তার বিচার দাবী করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তবে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানো কিংবা নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক আব্দুল মালেক তালুকদার। অপরদিকে অভিযোগ তদন্ত করে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন সংস্থার অতিরিক্ত পরিচালক পরিতোষ কুমার কুন্ডু। 

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও পাওয়া যায়। ওই ভিডিও’তে দেখা যায়, বরিশাল মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক আব্দুল মালেক তালুকদারের অফিস কক্ষে হ্যান্ডকাফ পরিহিত এক যুবকের হাতে ৫ পিস ইয়াবা দিয়ে স্বীকারোক্তি আদায়ের চেষ্টা করা হচ্ছে। মাদকের কথা স্বীকার না করায় তাকে বেত্রাঘাত করা হয়।

এ সময় নির্যাতিত যুবক পানি পান করতে চাইলেও পানি না দিয়ে তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগাল করা হয়। বেতের লাঠি হাতে পরিদর্শক মালেক নির্যাতন করেন ওই যুবককে। এমন একটি গোপন ভিডিও এসেছে এই প্রতিবেদকের হাতে। 

গত ২২ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার দিকে মারুফ সিকদার নামে ওই যুবককে আটক করা হয় নগরীর কাউনিয়া বিসিক রোড থেকে। তার কাছ থেকে ৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার হয়েছে অভিযোগ করে ওই রাতেই নগরীর কাউনিয়া থানায় একটি মামলা করেন পরিদর্শক আব্দুল মালেক। ওই মামলায় ১৭ দিন হাজতবাসের পর কারাগার থেকে মুক্ত হলেও ফের হয়রানীর আশঙ্কায় ওই কর্মকর্তার বিচার চাইতে ভয় পাচ্ছেন তিনি। তবে তার কাছে ইয়াবা পাওয়ার কথা অস্বীকার করে মারুফ তাকে নির্যাতনের অভিযোগ করেন মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক আব্দুল মালেক তালুকদারের বিরুদ্ধে। 

স্থানীয় বাসিন্দা মো. মিজানুর রহমান জানান, মারুফের বিরুদ্ধে মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ কখনও শোনেননি তারা। মারুফকে অন্যায়ভাবে মাদক দিয়ে ফাঁসানো এবং নির্যাতনের ঘটনা তদন্ত করে অভিযুক্তের কঠোর বিচার দাবী করেন তিনি সহ স্থানীয়রা।

তবে নগরীর কাউনিয়া বিসিক রোড থেকে গত ২২ সেপ্টেম্বর প্রত্যক্ষদর্শীদের উপস্থিতিতে ইয়াবা সহ মারুফ সিকদার নামে ওই যুবককে আটক করা হয়েছে বলে দাবী করেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক আব্দুল মালেক তালুকদার। তাকে কোনো ধরনের নির্যাতন কিংবা ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি। 

মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক পরিতোষ কুমার কুন্ডু বলেন, মাদক দিয়ে কাউকে ফাঁসানো এবং নির্যাতন করা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কাজ নয়। মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কোন টর্চার সেল নয়। যিনি নির্যাতন করেছেন দায় তার নিজের। এই দায় সংস্থা নেবে না। এ ঘটনা তদন্ত করে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছে বলে জানান অতিরিক্ত পরিচালক পরিতোষ কুমার কুন্ডু।

দিনমজুর বাবা-মায়ের দুই সন্তানের মধ্যে মারুফ ছোট। ওই ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলা থেকে বাঁচতে মারুফের পরিবার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সাথে আপোষের চেষ্টা করছে বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর