Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ আগস্ট, ২০১৯ ২৩:২৫

ছেলেকে বাঁচাতে কর কমিশনারের বেআইনি চেষ্টা

ধর্ষণ মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

ছেলেকে বাঁচাতে কর কমিশনারের বেআইনি চেষ্টা

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি) নির্যাতিতাদের নিরাপদ চিকিৎসা ও আইন সহায়তা কেন্দ্রে কর্তব্যরত চিকিৎসক ও আইনজীবী ছাড়া নির্যাতিতার সঙ্গে তার পরিবারের সদস্যদেরও দেখা করার নিয়ম নেই। কিন্তু ছেলের বিরুদ্ধে করা ধর্ষণ মামলা রফাদফা করতে সেখানে গিয়েছিলেন খুলনা কর কমিশনার প্রশান্ত কুমার রায়। এদিকে ওসিসিতে আসামির পরিবারের সদস্যদের প্রবেশ করার খবর জানাজানি হলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। গতকাল দুপুরের পর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ষণ মামলার বাদী খুলনার বেসরকারি নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির ওই ছাত্রীকে ওসিসি থেকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে কর কমিশনার প্রশান্ত কুমার রায়ের ছেলে শিঞ্জন রায় (২৫)-কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এর আগে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই ছাত্রীকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে নেয় পুলিশ। এরপর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশের সহায়তায় ওসিসিতে প্রবেশ করেন কর কমিশনার। অভিযোগ রয়েছে, সেখানে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী ও তার      পরিবারকে মামলা তুলে নিতে চাপ প্রয়োগ করা হয়। ওসিসির কো-অর্ডিনেটর ডা. অঞ্জন কুমার চক্রবর্ত্তী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, ওসিসির অভ্যন্তরে কোনোভাবেই বাইরের লোক প্রবেশ করতে পারে না। কিন্তু পুলিশের সঙ্গে কর কমিশনার পরিচয় গোপন করে ভিতরে প্রবেশ করেন। পরে বিষয়টি জানতে পারায় তাকে বাইরে বের করে দেওয়া হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ছেলেকে ছাড়াতে কর কমিশনার প্রশান্ত কুমার রায় বৃহস্পতিবার ভোর ৪টা পর্যন্ত সোনাডাঙ্গা থানায় অবস্থান করেন। শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়ে শুক্রবার সকালে পুলিশ কর্মকর্তার সহায়তায় ওসিসিতে প্রবেশ করেন। বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা, খুলনার সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট মোমিনুল ইসলাম বলেন, নিয়ম ভেঙে হাসপাতালের ওসিসিতে প্রবেশ করে ভিকটিমের ওপর অন্যায়ভাবে প্রভাব বিস্তার করা হয়েছে। যারা এই কাজে সহযোগিতা করেছেন তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে। ভিকটিমের পরিবার এখন কারও সঙ্গেই দেখা করতে চায় না। চাপের মুখে তারা হাসপাতাল ছেড়েছেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সোনাডাঙ্গা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. তৌহিদুর রহমান জানান, আসামি শিঞ্জন রায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।

 

 


আপনার মন্তব্য