শিরোনাম
প্রকাশ : ৩১ মার্চ, ২০২০ ২২:১৩
আপডেট : ৩১ মার্চ, ২০২০ ২২:১৪

টাঙ্গাইলে জ্বর-সর্দি-কাশি নিয়ে গার্মেন্টস কর্মীর মৃত্যু, বাড়ি লকডাউন

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলে জ্বর-সর্দি-কাশি নিয়ে গার্মেন্টস কর্মীর মৃত্যু, বাড়ি লকডাউন
প্রতীকী ছবি

টাঙ্গাইলের মধুপুরে হবিবুর রহমান হবি (৩৫) নামের এক গার্মেন্টস কর্মী কয়েক দিন জ্বর-সর্দি-কাশিতে ভোগার পর মঙ্গলবার দুপুরে মারা গেছেন। স্থানীয়দের ধারণা তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। 

নিহত হবি উপজেলার মহিষমারা ইউনিয়নের মহিষমারা গ্রামের টেক্কার বাজার এলাকার হাসান আলীর ছেলে। তিনি ঢাকায় গার্মেন্টেসে কাজ করতেন বলে জানা গেছে।

মহিষমারা ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়া লীগের সহ-সভাপতি কাজী মোতালেব হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ছেলেটি ঢাকায় থেকে কাজ করতো। কয়েক দিন আগে জ্বর নিয়ে বাড়িতে এসেছিল। বিষয়টি তারা গোপন রেখেছিল। মঙ্গলবার ডায়রিয়া শুরু হয়েছিল। আজ মঙ্গলবার রক্ত বমি হয়েছে। দুপুরে তার মৃত্যুর পরই এসব খবর শোনা গেছে।

এ ব্যাপারে  মধুপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফা জহুরা জানান, করোনাভাইরাস সংক্রান্ত টিমসহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স’র টিম পাঠানো হচ্ছে। মৃতের রক্তের নমুনা সংগ্রহ করে তার জানাজা শেষে দাফন হবে। আশেপাশের বাড়িসহ এলাকা লকডাউন করা হবে। 

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. রুবিনা ইয়াসমিন জানান, যতটুকু জানা গেছে করোনার উপসর্গের সাথে মিলে না। রক্ত বমি হওয়া তো করোনার উপসর্গ নয়। তবুও পরীক্ষা করে জানা যাবে করোনা কি না।

টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন ডা. ওয়াহীদুজ্জামান জানান, আইইডিডিসিআর এর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসক ও মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার নেতৃত্বে একটি দল মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করার জন্য তার বাড়িতে গিয়েছেন। ওই ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলো কিনা তা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হবে। 

টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক জানান,  মৃত ব্যক্তির বাড়ি অবরুদ্ধ (লকডাউন) করা হয়েছে। আর গত চার দিনে তার সাথে যারা দেখা করতে এসেছে তাদের খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। প্রয়োজন পড়লে তাদেরকে লকডাউনের আওতায় আনা হবে। প্রতিটি উপজেলায় একটি দল গঠন করা হয়েছে ঐ দলের তত্ত্বাবধায়নে মৃত ব্যক্তির দাফন সম্পন্ন হবে। 

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য