শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৮:১৩

স্ত্রীর পরকীয়ার জেরে স্বামীর আত্মহত্যার অভিযোগ

বোয়ালমারী (ফরিদপুর) প্রতিনিধি

স্ত্রীর পরকীয়ার জেরে স্বামীর আত্মহত্যার অভিযোগ

স্ত্রীর পরকীয়ার জেরে স্বামী ফয়সাল মোল্লা (২৮) আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার সকালে ফয়সালের মৃতদেহ সাভার থেকে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

ফয়সালের মৃতদেহ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসেন তার স্ত্রী তাহমিনাসহ তার পরিবারের পাঁচ সদস্য। তবে ‘ফয়সালকে হত্যা করা হয়েছে’ মর্মে অভিযোগ তুলে গ্রামবাসী তাহমিনাসহ তার পরিবারের পাঁচ সদস্যকে আটক করে।

খবর পেয়ে আলফাডাঙ্গা থানার পুলিশ লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়ে দেন। তাহমিনাসহ তার পরিবারের সদস্যদের থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ।

ফয়সাল মোল্লা আলফাডাঙ্গার উত্তর মালা গ্রামের ওহিদুজ্জামানের ছেলে। সাভারের একটি পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানে ম্যাকানিক্যাল বিভাগে কাজ করতেন। তার স্ত্রীর নাম তহমিনা আক্তার ওরফে মুন্নু (২৬)। তিনিও সাভারের একটি পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানে অপারেটর হিসেবে কর্মরত। ফয়সাল-তাহমিনা দম্পতি সাভার এলাকার একটি বাসায় ভাড়া থাকতেন। তাদের একটি মেয়ে রয়েছে।

ফয়সালের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকালে ফয়সালের মৃতদেহ নিয়ে তাহমিনাসহ তার পরিবারের পাঁচ সদস্য ফয়সালের বাড়িতে আসেন। তারা জানায়, ফয়সাল গত বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে ফ্যানের সাথে গলায় রশির ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

ফয়সালের বাবা ওহিদুজ্জামান মোল্লা অভিযোগ করে বলেন, প্রেম করে বিয়ে করে ফয়সাল ও তাহমিনা। বিয়ের পর তাহমিনা পরকীয়ায় আসক্ত হয়ে পড়েন। এ নিয়ে স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। পরকীয়ার কারণে তার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে।

আলফাডাঙ্গা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নাজমুল করিম বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ফয়সাল আত্মহত্যা করেছেন। নিরাপত্তার স্বার্থে তহমিনাসহ তার পরিবারের পাঁচ সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য