Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০৮:৪৩
আপডেট : ১৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০৮:৫৯

কেরোসিন কেনে শামীম ডেকে নেয় পপি আগুন দেয় জাবেদ

ভয়ঙ্কর হত্যার বর্ণনা, নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে পরীক্ষা দেয় দুই ছাত্রী, পপিই সেই শম্পা, ওসির বিরুদ্ধে মামলা, বিচারের দাবিতে ক্ষোভ-বিক্ষোভ মানববন্ধন অব্যাহত

সাখাওয়াত কাওসার, ঢাকা ও জমির বেগ, ফেনী

কেরোসিন কেনে শামীম ডেকে নেয় পপি আগুন দেয় জাবেদ

সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে নৃশংসভাবে আগুনে পুড়িয়ে মারতে কেরোসিন কেনে শাহাদত হোসেন শামীম (২০)। পরীক্ষার হল থেকে নুসরাতকে ডেকে নেয় উম্মে সুলতানা পপি ওরফে শম্পা নামের এক ছাত্রী। আর ম্যাচের কাঠি দিয়ে নুসরাতের শরীরে আগুন দেয় জাবেদ হোসেন (১৯)। 

ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসেনের আদালতে ১৬৪ ধারায় দেওয়া নূর উদ্দীন ও শাহাদত হোসেন শামীমের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে উঠে এসেছে রাফিকে আগুনে পোড়ানোর গা শিউরে ওঠা সব তথ্য। অন্যদিকে পরীক্ষার হল থেকে নুসরাত জাহান রাফিকে ছাদে ডেকে নিয়ে নির্মমভাবে আগুনে পোড়ানোর পর ওই দিন আলিম পরীক্ষায় অংশ নেয় উম্মে সুলতানা পপি ও কামরুন নাহার মমি নামের আরেক ছাত্রী। 

হৃদয়বিদারক ওই ‘অপারেশন’ শেষ করার পর শাহাদত হোসেন শামীম ফোন করে তা অবহিত করে মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির এক প্রভাবশালী সদস্যকে। এদিকে গতকাল ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালে সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ ছাড়া নুসরাত হত্যা মামলায় তদন্ত-সংশ্লিষ্ট ও আদালত সূত্র জানায়, কারাবন্দী অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলা ও আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিনের মধ্যকার বিশেষ সম্পর্কের বিষয়টি এলাকায় ওপেন সিক্রেট।

নুসরাতকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা এবং পরবর্তী সময়ে গ্রেফতার- পুরো বিষয়টি ধামাচাপা দিতে রুহুল আমিনের সব ধরনের চেষ্টা ব্যর্থ হয়। তবে কোনো ধরনের কূলকিনারা করতে না পারায় নুসরাতকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারার নির্দেশ দেন কারাবন্দী অধ্যক্ষ সিরাজ। অপারেশনে অংশ নেয় শাহাদত হোসেন শামীম, জাবেদ হোসেন, জুবায়ের, উম্মে সুলতানা পপি ওরফে শম্পা ও আরেক ছাত্রী। পপি ওরফে শম্পা অধ্যক্ষ সিরাজের জ্যাঠাসের মেয়ে। নুসরাতকে নিষ্ঠুরভাবে পুড়িয়ে পপি ও আরেক ছাত্রী পরীক্ষায় অংশ নেয়।

যেভাবে আগুন দেওয়া হয় : সূত্র জানায়, ৬ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ৯টা ৪৫ মিনিটের মধ্যে ঘটানো হয় নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনা। নিশাতকে ছাদে মারধর করা হচ্ছে, পপির এমন তথ্যের ভিত্তিতে নুসরাত ছাদে ওঠে। ছাদে নিশাতকে না দেখলেও সেখানে আগে থেকে অপেক্ষমাণ ছিল শামীম, জাবেদ, জুবায়ের ও বোরকা পরিহিত আরেক ছাত্রী। পরে পপি ছাদে ওঠে। 

মামলা প্রত্যাহার করার জন্য নুসরাতকে বারবার হুমকি দেওয়ার পরও কোনো কাজ না হলে তাকে মুখ চেপে ধরে শামীম। নুসরাতকে ওড়না দিয়ে বুকে চাপ দেয় পপি। ওড়নার একটি অংশ দিয়ে নুসরাতের পা বেঁধে ফেলে আরেক ছাত্রী। এরই মধ্যে নুসরাতের শরীরে কেরোসিন ঢেলে দেয় জুবায়ের। সর্বশেষ ম্যাচের কাঠি দিয়ে নুসরাতের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয় জাবেদ। সকাল ১০টা ১২ মিনিটে ছয় সেকেন্ডের একটি কল করে শাহাদত হোসেন শামীম অবহিত করে ম্যানেজিং কমিটির এক প্রভাবশালী সদস্যকে। 

গতকাল পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) প্রধান বনজ কুমার মজুমদার বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘নুসরাত হত্যা মামলাটির তদন্তে আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছি। এরই মধ্যে যথেষ্ট সফলতাও এসেছে। শিগগিরই বাকি অপরাধীদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হব আমরা।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আগুনে পোড়ানোর ঘটনায় অংশ নেওয়া দুই ছাত্রীর একজন অধ্যক্ষ সিরাজের জ্যাঠাসের মেয়ে। ওই দিনও তারা পরীক্ষায় অংশ নেয়।

মাকসুদের পাঁচ দিনের রিমান্ড : নুসরাত হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মাকসুদ আলমের পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শরাফ উদ্দিনের আদালত। এর আগে বৃহস্পতিবার পিবিআই মাকসুদুর রহমানকে আদালতে তুলে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালত সোমবার শুনানির দিন ধার্য করে। গতকাল তার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। মাকসুদ সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির সদস্য।

বাদীপক্ষে অ্যাডভোকেট শাহজাহান সাজু জানান, ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেওয়া দুই আসামি নূর উদ্দীন ও শাহাদত হোসেন শামীম তাদের জবানবন্দিতে মাকসুদকে অর্থের জোগানদাতা হিসেবে উল্লেখ করেছে। মাকসুদকে রিমান্ডে নেওয়ার ফলে আরও তথ্য বের হয়ে আসবে। অন্যদিকে হত্যাকান্ডে সম্পৃক্ততার অভিযোগে শামীম আহমেদ নামে আরও একজনকে গ্রেফতার করেছে পিবিআই। আসামি নূর উদ্দীন ও শাহাদত হোসেন শামীমের জবানবন্দিতে তার নাম উঠে এসেছে।

পপিই শম্পা : নুসরাত হত্যা মামলায় ৯ এপ্রিল পুলিশের হাতে আটক পপিই হলো শম্পা বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইর পরিদর্শক শাহ আলম। শম্পা মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার জ্যাঠাসের মেয়ে। নুসরাত মৃত্যুর আগে এক অডিওবার্তায় বলে গেছেন, তিনি চার মুখোশধারী বোরকা পরা মেয়েদের মধ্যে শুধু শম্পাকে চিনতে পেরেছেন। বর্তমানে শম্পা পাঁচ দিনের রিমান্ডে রয়েছে।

দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন : মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যার প্রতিবাদে আজও উত্তপ্ত ছিল ফেনীর সোনাগাজী। সকালে সোনাগাজীর বিভিন্ন স্কুল, মাদ্রাসা, নুসরাতের স্বজন, পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের হাজার হাজার মানুষ সোনাগাজীর জিরো পয়েন্টে বিক্ষোভ করেন। বিক্ষোভ শেষে তারা মানববন্ধন করেন। এ সময় বক্তারা নুসরাতের শ্লীলতাহানি ও হত্যার ঘটনায় সোনাগাজী সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলাসহ সব অপরাধীকে শনাক্ত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। কোনোভাবে যেন মামলা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত না হয় সে জন্য সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেন তারা। একই দাবিতে ফেনীর আদালতপাড়ায় বিক্ষোভ করেছেন আইনজীবীরা। এ ছাড়া শহরের বিভিন্ন স্থানে সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করে।

ওসির বিরুদ্ধে মামলা : অপমানজনক ভাষা প্রয়োগ করে অসৎ উদ্দেশ্যে আইনবহির্ভূতভাবে বিচারপ্রার্থী নুসরাতের ভিডিও ধারণের পর ওয়েবসাইটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ঢাকায় অবস্থিত দেশের একমাত্র সাইবার ট্রাইব্যুনালে বাদী হয়ে এ মামলা করেন সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন নামের একজন আইনজীবী। 

এ বিষয়ে আদালতের পেশকার শামীম-আল-মামুন সাংবাদিকদের জানান, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৬, ২৯ ও ৩১ ধারায় মামলা করা হয়েছে। পরে বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে বিচারক মোহাম্মাদ আস্ সামছ জগলুল হোসেন ঘটনার বিষয়ে তদন্ত করে পিবিআইর ডিআইজি পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তাকে ৩০ এপ্রিলের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। 

গতকাল সন্ধ্যায় মামলার বাদী সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘থানার ওসিদের কক্ষ নিরাপদ না হলে ভুক্তভোগীরা কোথায় যাবে? কোথায় নিরাপত্তা খুঁজবে? আশা করছি এর যথাযথ বিহিত হবে।’ 

প্রসঙ্গত, ৬ এপ্রিল সকালে নুসরাত জাহান রাফি আলিম শ্রেণির আরবি প্রথম পত্র পরীক্ষা দিতে গেলে মাদ্রাসায় দুর্বৃত্তরা গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ ঘটনায় দগ্ধ নুসরাত ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাঁচ দিন পর বুধবার রাতে মারা যান। 

বৃহস্পতিবার বিকালে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়। এ ঘটনায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলাকে প্রধান আসামি করে, আটজনের নাম উল্লেখ করে, অজ্ঞাত আরও চার-পাঁচজনকে আসামি করে নুসরাতের ভাই নোমান মামলা করেন। ওই মামলায় এজাহারনামীয় সাতজনসহ এ পর্যন্ত ১৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বিডি প্রতিদিন/১৬ এপ্রিল ২০১৯/আরাফাত


আপনার মন্তব্য