শিরোনাম
প্রকাশ : ৩ জুলাই, ২০২০ ১৯:৩৭

পুলিশের তৎপরতায় চাঁদাবাজমুক্ত ১৭০ কি.মি. মহাসড়ক

নাটোর প্রতিনিধি:

পুলিশের তৎপরতায় চাঁদাবাজমুক্ত ১৭০ কি.মি. মহাসড়ক

নাটোরের বড়াইগ্রামের বনপাড়া হাইওয়ে থানার আওতাধীন ১৭০ কিলোমিটার মহাসড়কে এখন নেই কোন চাঁদাবাজি। হাইওয়ে থানা পুলিশের তৎপরতায় থেমে গেছে পথে পথে পরিবহন সেক্টরের চাঁদাবাজি। ফলে কুষ্টিয়া-বনপাড়া-ঢাকা, রাজশাহী-বনপাড়া-ঢাকাসহ উত্তরাঞ্চল থেকে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে চলাচলকারী  ট্রাক, বাসসহ সব ধরণের যানবাহন চলাচল করছে নির্বিঘ্নে।

 বনপাড়া হাইওয়ে থানা সূত্রে জানা যায়, এই থানার আওতায় রয়েছে পাবনার পাকশী ব্রিজ থেকে রাজশাহীর পবা এবং নাটোর অঞ্চলসহ গুরুদাসপুর পর্যন্ত ১৭০ কি.মি মহাসড়ক। থানার আওতাধীন রয়েছে পবা পুলিশ ফাঁড়ি, ঝলমলিয়া পুলিশ ফাঁড়ি ও পাকশী পুলিশ ফাঁড়ি। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বছর খানেক আগে এই ১৭০ কি.মি মহাসড়কের দাশুড়িয়া মোড়, রাজাপুর, বনপাড়া, নাটোর বাইপাস, পুঠিয়া, বানেশ্বর, কাটাখালি, পবা আমচত্বর ও বড়াইগ্রাম থানার মোড় পয়েন্টে ট্রাক, লড়ি, কাভার্ডভ্যান থেকে নিয়মিত নেয়া হতো চাঁদা। কয়েকটি পরিবহন শ্রমিক সংগঠনের ব্যানারে এবং পাশাপাশি স্থানীয় পরিবহন শ্রমিকরা এই চাঁদা আদায় করতো। পরবর্তীতে হাইওয়ে থানার কড়া নিষেধাজ্ঞা, তদারকি ও তৎপরতায় প্রায় এক বছর ধরে বন্ধ সব ধরণের চাঁদাবাজি। 

শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে চাপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী গরুবাহী একটি ট্রাকের চালক নাস্তা করতে বনপাড়া ফাইভ স্টার হোটেলের সামনে ট্রাক থামালে তার কাছে জানতে চাওয়া হয় পথে পরিবহন সংগঠন বা পুলিশকে চাঁদা দিতে হয়েছে কিনা? ট্রাক চালক সেলিম হোসেন এক কথায় বলেন ‘না ভাই, কেউ কোন চাঁদা চায়নি।’ রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী একটি পরিবহনের চালক শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সড়কে এখন আর কোন চাঁদাবাজি নেই।’

বড়াইগ্রাম উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি ও স্থানীয় পরিবহন শ্রমিক নেতা মোস্তফা ব্যাপারী জানান, সড়কে চাঁদা বন্ধসহ নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে বনপাড়া হাইওয়ে থানা পুলিশের সাথে নিয়মিত সভা হচ্ছে। 

বনপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার শফিকুল ইসলাম বলেন, আমি ২০১৯ সালের ১ নভেম্বর যোগদান করার পর মহাসড়কে চাঁদাবাজি বন্ধে কার্যকরী ভূমিকা রাখার চেষ্টা করেছি। এখন যানবাহন থামিয়ে প্রথমেই প্রশ্ন করি কোথাও কি কোন চাঁদা দিয়েছেন কিনা। যখন 'না' শব্দটি শুনি তখন খুব তৃপ্তি পাই।’ ও

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর