শিরোনাম
প্রকাশ : ৮ মার্চ, ২০২১ ১৪:৪১
প্রিন্ট করুন printer

কুমিল্লায় বিচারকের খাস কামরায় আসামিকে হত্যার ঘটনায় একজনের ফাঁসি

কুমিল্লা প্রতিনিধি

কুমিল্লায় বিচারকের খাস কামরায় আসামিকে হত্যার ঘটনায় একজনের ফাঁসি
রায় প্রদানের পর কুমিল্লা আদালত প্রাঙ্গণে হাসানের মায়ের আহাজারি।

কুমিল্লায় বিচারকের খাস কামরায় এক আসামিকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় এক যুবককে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। আজ সোমবার জেলা ও দায়রা জজ আতাবুল্লাহ এ আদেশ দেন। ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মো.হাসান (২৩) কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার ভোজপাড়া গ্রামের শহিদুল্লাহর ছেলে। সাত কার্যদিবস বিচার কার্য পরিচালনার পর এ রায় ঘোষণা করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর  অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলাম সেলিম।

সূত্র জানায়, ২০১৯ সালের ১৫ জুলাই সকালে কুমিল্লার ৩য় আদলতের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজের এজলাস কক্ষে একটি সাক্ষ্য গ্রহণ চলাকালে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মো. হাসান ছুরি নিয়ে ফারুক (২৪)-কে ধাওয়া করে। ফারুক সম্পর্কে হাসানের মামাতো ভাই। তারা দু'জনই অপর একটি হত্যা মামলার হাজিরা দিতে আদালতে অবস্থান করছিল। এসময় আত্মরক্ষার্থে ফারুক এজলাসের মধ্য দিয়ে দৌড়াতে থাকে। হাসানও তাকে ধাওয়া করে ছুরিকাঘাতের চেষ্টা করে। একপর্যায়ে বিচারকের খাস কামরায় ঢুকে পড়ে ফারুক। সেখানে ঢুকে হাসান তাকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করতে থাকে। 

কোতয়ালি থানা পুলিশ ও আদালতের লোকজন তাকে যতক্ষণে আটক করে ততক্ষণে মারাত্মক জখম হয় ফারুক। ফারুককে আহত অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে তার মৃত্যু হয়। ফারুক মনোহরগঞ্জের কান্দি গ্রামের ওহিদুল্লাহর ছেলে। এ ঘটনায় কুমিল্লার বাঙ্গরা বাজার থানার এএসআই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ফিরোজ আহমেদ কোতয়ালি মডেল থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন। 

ওই বছরের ১৮ আগস্ট কুমিল্লা আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন কুমিল্লা জেলা গোয়েন্দা পুলিশ পরিদর্শক প্রদীপ মণ্ডল। এ হত্যাকাণ্ডের পর কুমিল্লা জুড়ে হইচই সৃষ্টি হয়। বিচারকের সামনে এক আসামিকে অপর আসামির কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় আদালতের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।

 

বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর