শিরোনাম
প্রকাশ : ২৫ জুন, ২০১৯ ১০:০২
আপডেট : ২৫ জুন, ২০১৯ ১২:৫১

ভারতের কাছে হারের পর আত্মহত্যার কথা ভেবেছিলেন পাকিস্তানের কোচ

অনলাইন ডেস্ক

ভারতের কাছে হারের পর আত্মহত্যার কথা ভেবেছিলেন পাকিস্তানের কোচ

ম্যাঞ্চেস্টারে ভারতের বিরুদ্ধে হারের পর আত্মহত্যা করার কথা ভেবেছিলেন তিনি। এমনই বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি দিলেন পাকিস্তান দলের কোচ মিকি আর্থার।

রবিবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দুর্দান্ত জয়ে ফের লড়াইয়ে ফিরে এসেছেন সরফরাজ আহমেদরা।

গণমাধ্যম দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মিকি আর্থার বলেছেন, “গত ১৬ জুন ভারতের কাছে হারের পর আমি আত্মহত্যা করার কথাও ভেবেছিলাম।”

২০০৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ বিশ্বকাপের মধ্যে তৎকালীন কোচ বব উলমারের রহস্যমৃত্যু নিয়ে আলোড়িত হয়েছিল বিশ্বক্রিকেট। প্রবল অস্বস্তি  তৈরি হয়েছিল পাকিস্তান ক্রিকেটের অন্দরেও। ঘটনাচক্রে উলমারের মতো মিকি আর্থারও দক্ষিণ আফ্রিকার মানুষ। ফলে পাকিস্তান কোচের এমনই বিতর্কিত মন্তব্যে ফের প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, তিনিও কি এখন প্রয়াত পূর্বসূরির মতো প্রবল চাপের মধ্যেই রয়েছেন? 

সেই বিষয়ে কোনও কিছু স্পষ্ট করে বলতে চাননি আর্থার। বরং তার মন্তব্যের যৌক্তিকতা ব্যাখ্যা করতে গিয়ে সরফরাজদের কোচ বলেছেন, “একটা ম্যাচের হারের ধাক্কা সামলে ওঠার আগেই আবার একটা ম্যাচে হার। বিশ্বকাপের মতো আসরে সমস্ত দলকেই প্রচণ্ড চাপের মধ্যে থাকতে হয়। সংবাদমাধ্যম থেকে শুরু করে সমর্থকদের প্রত্যাশা—এত কিছুর মধ্যে নিজের অস্তিত্ব বাঁচানো কঠিন হয়ে পড়ে।”

সেখানেই না থেমে মিকি আরও বলেন, “ভারতের বিরুদ্ধে হারের পরে মানসিকভাবে এতটাই ভেঙে পড়েছিলাম যে, মনে হয়েছিল আত্মহত্যা করি।”

তবে পাকিস্তান সংবাদমাধ্যমের খবর, আর্থারের ভূমিকায় খুশি নন প্রাক্তন ক্রিকেটাররা ও ক্রিকেট বোর্ডেরও একাংশ। এমনও শোনা গেছে, বিশ্বকাপ শেষ হলেই আর্থারকে সরিয়ে দেওয়া হবে। তার সঙ্গে নতুনভাবে চুক্তি করার কোনও ইচ্ছেই নেই পিসিবির।

তবে আর্থার নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে এখনই কিছু ভাবতে চাইছেন না। বরং রবিবার লর্ডসে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে জয় দলের মতো তাকেও চাঙ্গা করে দিয়েছে। তিনি বলেছেন, “একটা ম্যাচে ভাল একটা পারফরম্যান্সের প্রয়োজন ছিল। রবিবার সেটা আমাদের দল দেখিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে। ক্রিকেটারেরা চাঙ্গা হয়ে গেছে। বুধবার আমরা নিউজিল্যান্ডকে হারানোর মানসিকতা নিয়েই খেলতে নামব। একটা ভাল পারফরম্যান্সই দলের সামগ্রিক মেজাজে বড় পরিবর্তন ঘটিয়েছে।”

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য