শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ জুলাই, ২০১৫ ০০:০০

এখনকার ঈদ যান্ত্রিক মনে হয়

কাজী জাফর আহমদ, চেয়ারম্যান জাতীয় পার্টি

এখনকার ঈদ যান্ত্রিক মনে হয়
Google News

আজকালকার ঈদকে অনেকটা যান্ত্রিক মনে হয়। ছোটবেলার বর্ণিল ঈদের স্মৃতি এখনো হৃদয়ের মধ্যে এক আনন্দ দেয়। আর সেই দস্যিপনা ঈদের স্মৃতি এখনো ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়। এখন মনে পড়ে, ঈদের আগের দিন বাবা বিদেশ থেকে নতুন জামাকাপড় ও জুতা নিয়ে আসতেন। ঈদের নতুন জামা বলে কথা। কাউকে দেখাতাম না পুরনো হয়ে যাবে বলে। আর সেই নতুন কাপড় আর জুতা নিয়ে সারা রাত কাটিয়ে দিতাম। এভাবে সারা রাত নির্ঘুম কাটিয়ে দেওয়ার পর ফজরের আজান শোনামাত্রই উঠে যেতাম। গোসল সেরে নিতাম। তখনকার সময় মা গোসলে গরম পানি (শীতের সময়) করে দিতেন। গোসল করেই ফজরের নামাজ পড়তাম মসজিদে গিয়ে। এরপরই ঈদের নামাজের প্রস্তুতি নিতাম। ঈদগাহে নামাজ পড়তে যেতাম। এখনকার মতো সে সময় এত মসজিদ ছিল না। ঈদের নামাজ পড়তে ঈদগাহে যেতে হতো। ঈদের নামাজ পড়েই বাসায় এসে সেমাই, জর্দা ও মিষ্টি মুখ করতাম। অনেকেই আবার নামাজে যাওয়ার আগে সেমাই, জর্দা খেয়ে নিত। আমাদের বাড়ির সামনে ঈদমেলা বসত। মেলায় নতুন জামাকাপড়, মণ্ডা-মিঠাই, মাটির পুতুল, স্নো-পাউডারসহ অনেক কিছুই পাওয়া যেত। এ মেলায় জুয়ার আসরও বসত। ভালো ছেলেরা কখনই জুয়ার ধারে ঘেঁষত না। ঈদের দিন আমরা বড়শি দিয়ে মাছ ধরতাম। ঈদের দিন উপজেলায় প্রীতি ফুটবল ম্যাচ, সাঁতার প্রতিযোগিতা হতো। মোট কথা, ঈদের দিন আমাদের আনন্দের সাগরে ভাসিয়ে দিত। অতীত ঈদের স্মৃতিচারণ এখনো অনেক ভালো লাগে।

 

এই বিভাগের আরও খবর
Bangladesh Pratidin

Bangladesh Pratidin Works on any devices

সম্পাদক : নঈম নিজাম,

নির্বাহী সম্পাদক : পীর হাবিবুর রহমান । বসুন্ধরা মিডিয়া লিমিটেডের পক্ষে ময়নাল হোসেন চৌধুরী কর্তৃক প্লট নং-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, বারিধারা, ঢাকা থেকে প্রকাশিত এবং ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেড প্লট নং-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ ও কালিবালা দ্বিতীয় বাইপাস রোড, বগুড়া থেকে মুদ্রিত।
ফোন : পিএবিএক্স-০৯৬১২১২০০০০, ৮৪৩২৩৬১-৩, ফ্যাক্স : বার্তা-৮৪৩২৩৬৪, ফ্যাক্স : বিজ্ঞাপন-৮৪৩২৩৬৫।
ই-মেইল : [email protected] , [email protected]

Copyright © 2015-2021 bd-pratidin.com