শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২০ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ জুন, ২০১৬ ২৩:৩২

গোপনে দাফন ফাহিমের লাশ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও মাদারীপুর প্রতিনিধি

মাদারীপুরে কলেজ শিক্ষক হত্যা চেষ্টার আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত জঙ্গি গোলাম সাইফুল্লাহ ফাহিম ফাইজুল্লাহকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে দাফন করা হয়েছে। গতকাল ভোর ৫টার দিকে পৌর এলাকার দ্বারিয়াপুর গোরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। দাফন অনুষ্ঠানে তার আত্মীয়স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে গোপনীয়তার মাধ্যমে ফাহিমের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। শনিবার বিকাল ৪টার দিকে মাদারীপুর সদর থানায় লাশ নিতে যান নিহত ফাহিমের মা ও বাবা। এ সময় গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে তাদের কথা বলতে দেওয়া হয়নি। এ ঘটনায় মাদারীপুর সদর থানায় হত্যা, পুলিশকে আহত ও অস্ত্র উদ্ধার নিয়ে তিনটি মামলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মাদারীপুর মডেল থানার ওসি জিয়াউল মোর্শেদ। বুধবার বিকালে মাদারীপুর সরকারি নাজিমউদ্দিন কলেজের ছাত্রী হোস্টেলের সামনে কলেজের প্রভাষক রিপন চক্রবর্তীর বাসায় হামলা চালায় ৩ দুর্বৃত্ত। হামলা শেষে পালিয়ে যাওয়ার সময় চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার দ্বারিয়াপুরের গোলাম ফারুকের ছেলে গোলাম সাইফুল্লাহ ফাহিমকে (২০) আটক করে স্থানীয় জনতা। পরদিন বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশের পক্ষ থেকে এ ঘটনায় ৬ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা হয় এবং শুক্রবার বিকালে ফাহিমকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। শনিবার সকালে মাদারীপুর সদর উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের মিয়ারচর গ্রামে বন্দুকযুদ্ধে ফাহিম মারা যায়। নিহত ফাহিমের চাচি সুলেরা বেগম জানান, ফাহিমের বাবা গোলাম ফারুক ঢাকায় বিয়ে করেন। ফাহিমের জন্ম ঢাকায়। তবে তার পিতা গোলাম ফারুকের চাঁপাইনবাবগঞ্জের বাড়িটি ভাড়া দেওয়া হয়েছে। ফাহিমরা ঈদ করতে বাড়িতে আসত। ফাহিমকে শান্ত এবং ভদ্র ছেলে হিসেবে দেখেছেন তারা। সে নিয়মিত মসজিদে গিয়ে নামাজও পড়ত। ফাহিম ইসলামের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করত এবং সবাইকে নামাজ পাড়ার তাগিদ দিত। সেই ফাহিম যে জঙ্গি তত্পরতায় জড়িয়ে পড়েছে এটা তারা ভাবতেই পারছেন না। এদিকে, বুধবার রাতে তার চাচা এমদাদুল হককে সদর মডেল থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বৃহস্পতিবার ছেড়ে দেওয়া হয়। এরপর থেকেই পুরো পরিবার অজানা আতঙ্কে রয়েছে।


আপনার মন্তব্য