Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২২:৫৭

ড. কামাল না বি. চৌধুরী

কে হবেন জাতীয় ঐক্যের মূল নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদক

ড. কামাল না বি. চৌধুরী

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের মতিঝিলের চেম্বারে ঐক্য প্রক্রিয়া ও যুক্তফ্রন্টের সোমবারের বৈঠকে যোগ দেননি বিকল্পধারার সভাপতি অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। অন্যদিকে গতকাল রাতে ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বাড়ির বৈঠকে যাননি ড. কামাল হোসেন। দুজনই আলাদাভাবে বলেছেন, শরীর খারাপের জন্য তারা বৈঠকে যোগ দিতে পারেননি। তবে এর বাইরে অন্য কোনো কারণ আছে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। কেউ কেউ বলছেন, বৃহত্তর ঐক্য প্রক্রিয়ার প্রধান নেতা কে হবেন— তা নিয়ে তাদের মধ্যে কিছুটা সংশয় রয়েছে। বিএনপির পক্ষ থেকে বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে বলা হয়েছে, তাঁর প্রতি তাদের সম্মান অক্ষুণ্ন থাকবে। অতীতের সব ভুল বোঝাবুঝির অবসান চায় দলটি। তবে ঐক্য প্রক্রিয়ার প্রধান নেতা হিসেবে ড. কামাল হোসেনকেই দেখতে চায় বিএনপি। দলীয় নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর পুরো বিষয়টিই খোলাসা করেছেন কামাল হোসেনের কাছে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, প্রধান নেতা নিয়ে ঐক্য প্রক্রিয়ায় আরও টানাপড়েন হতে পারে। তা ছাড়া জামায়াতে ইসলামীকে নিয়েও ঐক্য প্রক্রিয়ায় সংশয় আছে। কারও কারও জামায়াত সম্পর্কে নমনীয় মনোভাব থাকলেও কারও মনোভাব কঠোর। সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও ডাকসুর সাবেক সহসভাপতি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, এখানে নেতৃত্বের বিষয়টি মুখ্য নয়। সবকিছু যৌথ নেতৃত্বের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে। বৃহত্তর ঐক্যের ঘোষণাপত্রেও যৌথ নেতৃত্বের কথা উল্লেখ আছে। তিনি বলেন, ক্ষেত্র প্রস্তুতের পর জনগণ নির্ধারণ করবে কে হবেন নেতা। নেতায় নেতায় ঐক্য নয়। জনগণের ঐক্য হচ্ছে মূল কথা। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জামায়াতে ইসলামী কোনো নিবন্ধিত দল নয়। আমাদের ঐক্য প্রক্রিয়ায় তারা নেই। যুদ্ধাপরাধী ছাড়া সবার সঙ্গেই আমরা ঐক্যে আগ্রহী। তিনি আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসেবে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত হয়েছেন বলে মন্তব্য করেন। অন্যদিকে গতকাল রাতে বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বারিধারার বাসভবনে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া ও যুক্তফ্রন্টের বৈঠক হয়। বৈঠকে বিকল্পধারার প্রেসিডেন্ট ডা. অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, সহসভাপতি তানিয়া রব, সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, মমিনুল ইসলাম, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সদস্যসচিব আ ব ম মোস্তফা আমিন, বিএনপির পক্ষে সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, গণস্বাস্থ্যের ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের পক্ষে আ উ ম শফিক উল্লাহ ও জগলুল হায়দার আফ্রিক উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপির অনুরোধে পেছাল লিয়াজোঁ কমিটি গঠন : বিএনপির অনুরোধে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার লিয়াজোঁ কমিটি গঠন। গত রাত সাড়ে ৮টায় রাজধানীর বারিধারায় নিজ বাসায় যুক্তফ্রন্ট ও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান যুক্তফ্রন্ট চেয়ারম্যান বদরুদ্দোজা চৌধুরী। বৈঠকে বিকল্পধারার পক্ষ থেকে জাতীয় নেতৃবৃন্দের কাছে একটি রেজুলেশন দিয়ে বলা হয়, জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন না করা হলে বিএনপিকে যেন জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত করা না হয়। যুক্তফ্রন্ট চেয়ারম্যান বি চৌধুরী বলেন, আমি বিশ্বাস করি, আমাদের ঐক্যের ভিত্তি ভারসাম্যের ভিত্তিতে হবে। যারা মুক্তিযুদ্ধের মানচিত্রকে এখনো অস্বীকার করে, তাদের বাদ দিয়ে বাংলাদেশের সবার সঙ্গে আমরা ঐক্য কামনা করি। বি চৌধুরী আরও বলেন, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছি। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে বিএনপি ও আমরা অনেক কাছাকাছি এসেছি। বিএনপির প্রতিনিধি জানালেন, ২৯ সেপ্টেম্বর তাদের সমাবেশ আছে। তাদের অনুরোধের কারণেই আমরা তাদের সমাবেশের পর লিয়াজোঁ কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সেই জনসভার মাধ্যমে আমাদের সঙ্গে ভবিষ্যৎ প্রক্রিয়া কী হবে, তা তারা বলবেন। আশা করি, ভবিষ্যতে আমরা আরও কাছাকাছি হতে পারব। তিনি জানান, বিএনপির প্রস্তাব অনুসারে ২৯ সেপ্টেম্বরের পরই লিয়াজোঁ কমিটি হবে। এ ব্যাপারে বৈঠকের সবাই একমত হয়েছেন। বিএনপির সমাবেশে বি চৌধুরী যাবেন কিনা— এমন প্রশ্নে সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আমাকে তো এখনো দাওয়াতই দেওয়া হয়নি।’ বিএনপির প্রতিনিধি দলের ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু সাংবাদিকদের বলেন, ‘বি চৌধুরী সাহেব সব বলে দিয়েছেন। ২৯ সেপ্টেম্বর আমাদের সমাবেশ আছে। ওই সমাবেশ থেকে আমাদের পরিকল্পনা জনগণের কাছে তুলে ধরব।’ টুকু বলেন, ‘২২ সেপ্টেম্বর সমাবেশের মধ্য দিয়ে যে ঐক্য তৈরি হয়েছে, তা যাতে সফল হয়, আমরা সে চেষ্টা করব।’ মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘বর্তমান স্বৈরাচার সরকারের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া নিয়ে ব্যাপক আগ্রহের সৃষ্টি হয়েছে। ৩০ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহে সমাবেশের মাধ্যমে আমরা ঐক্য প্রক্রিয়ার গণসংযোগ শুরু করব।’ বিকল্পধারার যুগ্মমহাসচিব মাহী বি চৌধুরী বলেন, ‘বিকল্পধারার পক্ষ থেকে আমরা রেজুলেশন নিয়ে জাতীয় নেতৃবৃন্দকে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছি, স্বাধীনতাবিরোধী কোনো দল বা ব্যক্তিকে শরিক রাখলে বিএনপিকে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত করা যাবে না।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর