Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ অক্টোবর, ২০১৮ ২৩:০৪

দুই দলের প্রতিক্রিয়া

পুরো সন্তুষ্ট নই ফাঁসি চাই মাস্টারমাইন্ডের : কাদের

ভালো রায় মনে করে আওয়ামী লীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

পুরো সন্তুষ্ট নই ফাঁসি চাই মাস্টারমাইন্ডের : কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘এ রায়ে আমরা অখুশি নই। কিন্তু পুরোপুরি সন্তুষ্ট নই। আমরা গ্রেনেড হামলার প্ল্যানার ও মাস্টারমাইন্ড তারেক রহমানের ফাঁসি চাই। এজন্য উচ্চ আদালতে আপিল করব।’ গতকাল বিকালে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি ও জাহাঙ্গীর কবির নানক; সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম, আহমদ হোসেন; সংস্কৃতি সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণালকান্তি দাস, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুর, শিল্প-বাণিজ্যবিষয়ক সম্পাদক আবদুস সাত্তার, কৃষি ও সমবায়বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মারুফা আক্তার পপি, রেমন্ড আরেং প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘১৪ বছর পর ইতিহাসের বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলা মামলার রায় হয়েছে। আমরা ন্যায়বিচার চেয়েছি। বিচারককে কখনো প্রভাবিত করিনি। আমরা মনে করি এটি ভালো রায়। আদালতকে ধন্যবাদ জানাই। তবে মাস্টারমাইন্ডের সর্বোচ্চ শাস্তি দরকার ছিল, ক্যাপিটাল পানিশমেন্ট। আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করব।’ তিনি বলেন, ‘২১ আগস্টের ঘটনা ছিল রাষ্ট্রীয় মদদে সরকারি জঙ্গি হামলা। ওই সময়ে দায়িত্বরত সেনা গোয়েন্দা সংস্থার প্রধানের ভাষ্য থেকে এ কথা পরিষ্কার খালেদা জিয়া এ হামলা সম্পর্কে অবগত ছিলেন। আমরা খালেদা জিয়ারও বিচার দাবি করছি।’”আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যার পর এমন জিঘাংসামূলক ঘটনা আর ঘটেনি। সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা দাঁড়িয়ে কথা বলতে চাইলেও ফ্লোর দেওয়া হয়নি। বিএনপি নেতারা তখন এ হামলা নিয়ে হাস্যরস করেছিল। মির্জা ফখরুল বলেছিলেন, এ ঘটনায় পাশের দেশ জড়িত। তবে জাতির কাছে আজ সত্য প্রকাশিত হয়েছে। সত্য ধামাচাপা দেওয়া যায় না।’ এর আগে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এক অনুষ্ঠানে তত্ক্ষণাৎ প্রতিক্রিয়ায় ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ওই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের প্রধান টার্গেট ছিলেন তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাকে প্রধান টার্গেট করে যে হামলা এবং যে হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনাকারী, মাস্টারমাইন্ড কে— তা দেশের জনগণ ভালো করে জানে, তা এখন আর গোপন কিছু নয়। প্রকাশ্য দিবালোকের মতো সত্য।’ কাদের বলেন, ‘এই নির্মম হত্যাকাণ্ডের কোনো মূল্য সে সময়কার সরকারের কাছে ছিল না। এমনকি তখনকার সরকার মামলার আলামত পর্যন্ত নষ্ট করে দিয়েছে। এফবিআইকে তদন্ত করতে দেয়নি। স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডকে বাংলাদেশে আসতে দেওয়া হয়নি। একটা ছেলেকে ধরে এনে জজ মিয়া নাটক সাজানো হয়েছিল।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর