শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ জুলাই, ২০১৯ ২৩:৫৪

খালেদার মুক্তিতে আজ বরিশালে সমাবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা ও বরিশাল

খালেদার মুক্তিতে আজ বরিশালে সমাবেশ

বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি নিয়ে আজ থেকে ফের মাঠে নামছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে বরিশাল মহানগরের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে আজ বিকাল ৩টায় বিভাগীয় সমাবেশ ডাকা হয়েছে। বেগম জিয়া কারাগারে যাওয়ার দেড় বছর পর এই প্রথম বিভাগীয় পর্যায়ে শোডাউনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। ঈদুল আজহার আগেই আট বিভাগে সমাবেশ করবে দলটি। বিএনপি প্রধানের কারামুক্তির পাশাপাশি তার সুচিকিৎসা ও নতুন নির্বাচনের দাবিও থাকবে এসব সমাবেশে। কর্মসূচি বাস্তবায়নে ব্যাপক লোক সমাগমেরও চেষ্টা করছে বিএনপি। তৃণমূলকে চাঙ্গা করতে সামগ্রিক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। রাজধানী ঢাকায় সমাবেশ হবে সবশেষে। অনুমতি পেলে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এই সমাবেশের আয়োজন করা হবে। জানা যায়, আজ বরিশাল, ২০ জুলাই চট্টগ্রাম ও ২৫ জুলাই খুলনায় সমাবেশের তারিখ চূড়ান্ত করা হয়েছে। ২৯ থেকে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে যে কোনো দিন রাজশাহী বিভাগে সমাবেশ। এ ছাড়া আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে সিলেট ও রংপুর বিভাগের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এসব সমাবেশে বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মীর সমাগম ঘটানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সমাবেশের সত্যতা নিশ্চিত করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আমরা আগামী ঈদের আগেই আট বিভাগীয় শহরে সমাবেশ করব। এরই মধ্যে কয়েকটি বিভাগে সমাবেশের তারিখ চূড়ান্ত করা হয়েছে। বরিশাল থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, নগরীর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে সমাবেশ করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে দক্ষিণাঞ্চল বিএনপি। ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা এবং মহানগরীর সব ওয়ার্ড থেকে ওই সমাবেশে লাখো মানুষের উপস্থিতি হবে বলে আশা করছেন দলটির দায়িত্বশীল নেতারা। বিএনপিকে কয়েকটি শর্ত সাপেক্ষে সমাবেশের অনুমতি দেওয়ার কথা জানিয়েছে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ। এর আগে গত বছরের ৭ এপ্রিল একই স্থানে বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভাগীয় সমাবেশ করেছিল বিএনপি।

সমাবেশে প্রধান অতিথি থাকবেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মহানগর বিএনপির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ারের সভাপতিত্বে সমাবেশে দলের স্থায়ী কমিটির দুই সদস্য সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুসহ কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য দেবেন।                         

এক সংবাদ সম্মেলনে অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, রাতের আঁধারে ভোট কারচুপি করার জন্যই আওয়ামী লীগ সরকার পরিকল্পিতভাবে বেগম জিয়াকে কারাগারে আটকে রেখেছে। তারা আশা করছিলেন, আইনি প্রক্রিয়ায়ই বেগম জিয়া মুক্ত হবে। কিন্তু সরকার নানাভাবে তার জামিন আটকে দিচ্ছে। তাই দুর্বার আন্দোলনের মাধ্যমেই বেগম জিয়াকে মুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে বরিশালে আয়োজন করা হয়েছে বিভাগীয় সমাবেশের। এই সমাবেশ সফল করে বেগম জিয়ার মুক্তি ত্বরান্বিত করতে দলের নেতা-কর্মীসহ জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানান সরোয়ার। মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন সিকদার জিয়া বলেন, পুলিশ কমিশনারের কাছে আবেদনে অনুমতির পাশাপাশি সহযোগিতাও চাওয়া হয়। পুলিশ সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে ঠিকই কিন্তু নানা শর্ত জুড়ে দিয়েছে। জনসমাগম ঠেকাতে গ্রামগঞ্জে পুলিশ দলের বিএনপি নেতা-কর্মীদের ধরপাকড় শুরু করেছে। ক্ষমতাসীন দলের নেতারা সমাবেশে না যেতে বিএনপি নেতা-কর্মীদের নানাভাবে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (বিশেষ শাখা) আবু রায়হান মো. সালেহ বলেন, যে কোনো রাজনৈতিক সভা-সমাবেশের অনুমতি চাইলে জনস্বার্থে পুলিশ নানা শর্ত জুড়ে দেয়। বিএনপির সমাবেশের ক্ষেত্রেও জনভোগান্তি রোধে এবং শৃঙ্খলা রক্ষায় কিছু শর্ত দেওয়া হয়। এটা স্বাভাবিক নিয়ম।


আপনার মন্তব্য