শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ জানুয়ারি, ২০২০ ২২:৫৬

সামাজিক অপরাধের ভয়ঙ্কর চিত্র

মৌলভীবাজারে স্ত্রী-শাশুড়িসহ চারজনকে খুন করে আত্মহত্যা

মৌলভীবাজার ও চাঁদপুর প্রতিনিধি

মৌলভীবাজারে স্ত্রী-শাশুড়িসহ চারজনকে খুন করে আত্মহত্যা

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় স্ত্রী-শাশুড়িসহ চারজনকে কুপিয়ে হত্যা করে নিজেও আত্মহত্যা করলেন নির্মল কর্মকার (৪০) নামে এক ব্যক্তি। নিহতরা সবাই চা শ্রমিক। গতকাল ভোরে উপজেলার পাল্লাতল চা বাগানে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন ঘাতক নির্মলের স্ত্রী জলি বুনার্জি (৩৫), শাশুড়ি লক্ষ্মী বুনার্জি (৬০), পাশের ঘরের বসন্ত ভৌমিক (৬০) ও বসন্তের মেয়ে শিউলি ভৌমিক (১৬)। এ ছাড়া নির্মলের দায়ের কোপে গুরুতর আহত হয়েছেন বসন্ত ভৌমিকের স্ত্রী কানন ভৌমিক। তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, পারিবারিক কলহের জেরে ভোরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। এর এক পর্যায়ে নির্মল স্ত্রী জলিকে দা দিয়ে কোপাতে থাকেন। তাকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে শাশুড়ি লক্ষ্মী ও পাশের ঘরের বসন্ত এবং তার মেয়ে শিউলিকেও নির্মল কুপিয়ে হত্যা করেন। নির্মলের সৎ মেয়ে চন্দনা পালিয়ে রক্ষা পান। পরে নির্মল একটি ঘরে গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেন। এদিকে দুপুরবেলা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। স্থানীয়রা জানান, নির্মলের বাড়ি এ এলাকায় নয়। এক বছর আগে জলির সঙ্গে তার দ্বিতীয় বিয়ে হয়। তার পর থেকে শ্বশুরবাড়িতেই থাকতেন। তিনি মাদকাসক্ত ছিলেন বলে অনেকেই জানিয়েছেন। পুলিশ সুপার ফারুক আহমদ বিকালে জানান, ঘটনার কারণ হিসেবে এখন পর্যন্ত পারিবারিক কলহের বিষয়টিই পাওয়া গেছে। লাশগুলোর সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

স্কুলছাত্রকে জবাই : চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার আমিন মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র মারুফ হোসেন হৃদয়কে (১৫) ধারালো অস্ত্র দিয়ে জবাই করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল সকাল ৯টায় হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ বিদ্যালয় সংলগ্ন একটি চা দোকানের ভিতর থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করে। হৃদয় হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার ৪ নম্বর ওয়ার্ড ঘোষাইবাড়ীর ফারুক হোসেনের ছেলে। স্থানীয়রা জানান, সকালে চা দোকানদার ফরিদ দোকানে এসে স্কুলছাত্রের মৃতদেহ দেখতে পান। এ সময় ওই স্থানে থাকা লোকজন পুলিশকে খবর দিলে থানার ওসিসহ পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে আসেন। বিদ্যালয়ের সীমানাপ্রাচীরের অভ্যন্তরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি পরিত্যক্ত ভবন ও বিদ্যালয়ের মূল গেটের মধ্যে রক্তের দাগ দেখা গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, দুর্বৃত্তরা ওই ছাত্রকে পরিত্যক্ত ভবনে হত্যা করে বিদ্যালয়ের পাশের চা দোকানে মৃতদেহ রেখে চলে যায়। হাজীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন রনি জানান, খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। ধারণা করা হচ্ছে রাতের কোনো একসময় স্কুলছাত্রকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করে দোকানে রেখে গেছে। হত্যার কারণ তদন্ত ছাড়া এই মুহূর্তে বলা সম্ভব নয়। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর