শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ ডিসেম্বর, ২০২০ ২৩:৪৩

বুদ্ধিজীবী হত্যার সেই নীলনকশা এখনো শেষ হয়নি : জাফরুল্লাহ

নিজস্ব প্রতিবেদক

বুদ্ধিজীবী হত্যার সেই নীলনকশা এখনো শেষ হয়নি : জাফরুল্লাহ

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের আলোচনায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, বাংলাদেশকে মেধাশূন্য করার যে পরিকল্পনা ছিল- এটা কি কেবল পাকিস্তান আর আলবদর, আলশামসের পরিকল্পনা ছিল? নাকি এ পরিকল্পনায় অন্য কেউ যুক্ত ছিল? তা আজ গবেষণার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বুদ্ধিজীবী হত্যার সেই নীলনকশা এখনো শেষ হয়নি।

গতকাল দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে পেশাজীবী পরিষদের ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস : বর্তমান বাস্তবতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তৃতায় এ মন্তব্য করেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। প্রধান অতিথি ছিলেন- সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। অন্যদের মধ্যে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ, বিএফইউজের (একাংশ) সভাপতি এম আবদুল্লাহ, আইনজীবী এ বি এম রফিকুল হক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মামুন আহমেদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ভাস্কর্য ভাঙা প্রসঙ্গে বলেন, এখন এক ব্যক্তির ভাস্কর্য ভাঙাটাই যেন অপরাধ, অন্য ভাস্কর্য ভাঙা যেন অপরাধ নয়। আমি বলব, প্রত্যেকটা ভাস্কর্য ভাঙাই অপরাধ। খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আসুন সময় হয়েছে। এ মুহূর্তে আজকে বাংলাদেশে গণবিপ্লব ঘটিয়ে অবৈধ সরকারকে বৈধভাবে দেশ থেকে বিতাড়িত করি।  মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আমাদের কথা হলো- মানুষের অধিকার ফিরিয়ে দিন। আমরা ভোটের অধিকার চাই, আমরা কথা বলার অধিকার চাই, আমরা নিজেদের মতো করে আমাদের ভবিষ্যৎ গড়ব। আমাদের অবস্থান পরিবর্তন করব।

বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ : গতকাল বেলা আড়াইটার দিকে রাজধানীর পুরানা পল্টনে মুক্তাঙ্গন ও জিরো পয়েন্টে রাস্তা অবরোধ করে সরকার পতনের দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছিলেন বিভিন্ন দল ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। এ সময় তারা সরকারবিরোধী বিভিন্ন স্লোগান দেন। পরে বিক্ষোভ মিছিল বের করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। বিক্ষোভকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে গেলে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়। জানা গেছে, এ ঘটনায় সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমসহ বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতা আহত হয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর