শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:০৩

সংক্রমণ কমার পর পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেওয়ায় সর্বনাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

সংক্রমণ কমার পর পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেওয়ায় সর্বনাশ
ড. বিজন কুমার শীল

করোনার নতুন ধরন অনেক বেশি শক্তিশালী ও প্রাণঘাতী বলে মন্তব্য করেছেন অণুজীব বিজ্ঞানী ও সার্স ভাইরাসের কিট উদ্ভাবক অধ্যাপক ড. বিজন কুমার শীল। তিনি বলেন, গত বছর বাংলাদেশে আসা করোনাভাইরাসের সংক্রমণের হার কমে আসার পর পর্যটন কেন্দ্রগুলো খুলে দেওয়া হয়। গণপরিবহনও চালু করা হয়। এটাই সর্বনাশ হয়েছে। করোনাকে শূন্যের কোটায় নিয়ে আসতে অন্তত আরও একটি বছর পর্যটন কেন্দ্রগুলো সিলগালা করে দেওয়া উচিত ছিল। মনে রাখতে হবে, গত বছরের ভাইরাসের গতিবিধি, আর আজকের করোনাভাইরাসের গতিবিধি সম্পূর্ণ ভিন্ন। এটাকে আটকানো বেশ জটিল। এটা অনেক বেশি শক্তিশালী ও প্রাণঘাতী। এটাকে নিয়ন্ত্রণ করতে হলে আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতেই হবে। বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক ব্যবহার করতেই হবে। সুতি কাপড়ের মাস্ক তুলনামূলক বেশি ভালো। স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি জনগণকেও সচেতন হতে হবে।

সিঙ্গাপুর থেকে টেলিফোনে গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপে করোনাভাইরাস শনাক্তের ‘জি র‌্যাপিড ডট ব্লট’ কিট উদ্ভাবক ড. বিজন কুমার শীল এসব কথা বলেন। আলাপকালে তিনি বলেন, সরকারকে মাস্ক পরিধান বাধ্যতামূলক করতে হবে। এক্ষেত্রে আইনের প্রয়োগ করতে হবে। কারণ মানুষের বিবেক কাজ না করলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। সুতির মাস্ক সব থেকে ভালো। মুখ থেকে আর্দ্রতা বের হচ্ছে। সেটা সুতির মাস্কের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র যেসব ছিদ্র তা ব্লক করে দেয়। ভাইরাস তখন ঢুকতে পারে না। বাজারে যে মাস্ক পাওয়া যায়, তা মুখের সেই আর্দ্রতা শুরুতে গ্রহণ করে না। এ জন্য বলা হয়েছে যে, সুতির মাস্ক সব থেকে ভালো। শক্তিশালী এই ভাইরাসকে প্রতিহত করতে মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

অধ্যাপক শীল বলেন, সবাইকে মনে রাখতে হবে, গতবারের করোনাভাইরাস আর এবারেরটা এক নয়। গত বছরের ভাইরাসের গতিবিধি, আর আজকের করোনাভাইরাসের গতিবিধি সম্পূর্ণ ভিন্ন। এটাকে আটকানো বেশ জটিল। এটা অনেক শক্তিশালীও। কারণ, এটা অ্যান্টিবডিকে বাইপাস বা শরীরের ইমিউনিটি সিস্টেমকে অতিক্রম করা শিখে গেছে। এটি প্রতিনিয়ত মিউটেশন পরিবর্তন করে। যখনই বাধাগ্রস্ত হয়, তখন চেঞ্জ করে। মানে যত বেশি অ্যান্টিবডি আসবে, তত বেশি চেঞ্জ করবে। অ্যান্টিবডির প্রতিরোধে বেশিরভাগ ভাইরাস মারা যাবে। যে দু-একটা বেঁচে থাকবে তারা রূপ পরিবর্তন করবে এবং ছড়িয়ে পড়বে।

ড. বিজন কুমার শীল। বলেন, বাংলাদেশে করোনাভাইরাস অনেকটাই নিয়ন্ত্রণের মধ্যেই ছিল। বলা চলে ২ শতাংশে নেমে এসেছিল। এখন বেড়ে যাওয়ার কারণ হলো, দেশে বাইরে থেকে নতুন মানুষ প্রবেশ করেছে। নতুন নতুন ভাইরাসও ঢুকছে। আইসিডিডিআর’বি জানিয়েছে, বাংলাদেশে ব্রিটিশ ট্রেন্ড বি ১১৭ পাওয়া গেছে। এটাই এখন আশঙ্কার কারণ। এটা এখন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এই ভাইরাসকে সহজভাবে নেওয়ার কোনো অবকাশ নেই। এটা শিগগিরই আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। এটাকে নিয়ন্ত্রণ করতে স্বাস্থ্যবিধি মানার বিকল্প নেই। মানুষের বিবেক যেহেতু কাজ করছে না, তাই সরকারকে আইনানুগভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে বাধ্য করতে হবে।

ভ্যাকসিন বা টিকা নিলেও মাস্ক পরিধান জরুরি জানিয়ে এই অণুজীব বিজ্ঞানী বলেন, টিকা নেন আর না নেন, মাস্ক পরতে হবে। করোনায় আক্রান্ত হন আর না হন, নাক দিয়ে ভাইরাস ঢুকলে তা বেড়ে উঠবেই। ভাইরাস যখন চলাফেরা করে রক্তে প্রবেশ করবে, তখন সে প্রতিরোধের মুখে পড়বে। করোনা থেকে সেরে ওঠা ব্যক্তিদের অ্যান্টিবডি দ্রুত গড়ে উঠবে, যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের অ্যান্টিবডি হতে দেরি লাগবে। এই সময়ে ভাইরাস যখন নাকে বেড়ে উঠবে, তখন হাঁচি দিলে তিনি করোনা ছড়াবেন। এ জন্য ভ্যাকসিন নেওয়ার পরও মাস্ক পরা উচিত। নিজের নিরাপত্তাসহ অন্যের জন্যও মাস্ক পরা উচিত।

অধ্যাপক বিজন কুমার শীল বলেন, যারা একবার করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়েছেন, তাদের প্রতিরোধ ক্ষমতা ভ্যাকসিন বা টিকার চেয়ে অনেক বেশি। তাদের টিকার একটি ডোজ নেওয়া উচিত। দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার প্রয়োজন নেই। কেউ যখন করোনা থেকে সেরে উঠেন, তখন তার মধ্যে অনেক বেশি অ্যান্টিবডি তৈরি হয়। যে মেমোরি সেল তৈরি হয়, তা শ্বাসতন্ত্র ও পরিপাকতন্ত্রের পাশেই থাকে। একজন মানুষের প্রতিরোধী যেসব সেল আছে, তার ৭০ শতাংশ থাকে এখানে। এ জন্য করোনা থেকে সেরে ওঠা ব্যক্তির ডিফেন্স সিস্টেম টিকা নেওয়া ব্যক্তির চেয়ে অনেকগুণ বেশি।

ড. শীল আরও বলেন, বাংলাদেশে প্রয়োগ হওয়া টিকার নিজস্ব গবেষণা হওয়া উচিত। এই টিকায় কেমন অ্যান্টিবডি তৈরি হচ্ছে, টিকা নেওয়ার পর নতুন কেউ আক্রান্ত হচ্ছে কি না-এর একটি সমীক্ষা হওয়া জরুরি। এই টিকা নেওয়ার পর মারা যাওয়ার সংখ্যা কেমন, আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা কেমন তাও জানা জরুরি। গত এক বছরে বাংলাদেশের অনেকের অ্যান্টিবডি আসছে। ব্রিটেনে ছিল ৩ শতাংশ, যুক্তরাষ্ট্রে ৯ শতাংশ, সুইডেনে ৫ শতাংশ, ভারতে ছিল ৪৫ শতাংশ এবং বাংলাদেশে ৫০ শতাংশের মতো অ্যান্টিবডি আছে। যাদের শরীরে অ্যান্টিবডি আছে, তাদের শরীরে যদি ভাইরাস টিকে থাকে তাহলেই চিন্তার বিষয়।

অধ্যাপক ড. বিজন কুমার শীল বলেন, গত বছর আমি বলেছিলাম, করোনা নভেম্বর বা ডিসেম্বরের মধ্যে কমে যাবে এবং তাই হয়েছে। ওই সময় আমার সমীকরণ করা সহজ ছিল। কারণ, ভাইরাস একটা সাইক্লোনের মতো এসে ধীরে ধীরে কমে গেছে। কিন্তু এখন যে ভাইরাস বাংলাদেশে এসেছে বা অন্য দেশে হচ্ছে, এই ভাইরাসটা এই অ্যান্টিবডি বা প্রতিরোধ ক্ষমতার বিরুদ্ধে বেঁচে থাকার মতো শক্তি সঞ্চয় করেছে। এই শক্তি সঞ্চয় করায় তার গতিপথ সরল নয়, বাঁকা হয়ে গেছে। সে প্রতিরোধ পেলেই তা অতিক্রম করতে পারবে। এটা শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে, তা এখন বলা খুবই দুষ্কর।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর