শিরোনাম
প্রকাশ : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৭:২০
প্রিন্ট করুন printer

ডয়চে ভেলের প্রতিবেদন

আফ্রিকার সঙ্গে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করছে তুরস্ক

অনলাইন ডেস্ক

আফ্রিকার সঙ্গে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করছে তুরস্ক
সোমালিয়ার পরিকাঠামোতে প্রচুর বিনিয়োগ করেছে তুরস্ক

গত ১৫ বছর ধরে আফ্রিকা, বিশেষ করে পূর্ব আফ্রিকার সঙ্গে রাজনৈতিক ও আর্থিক সম্পর্ক আরও ঘনিষ্ঠ করছে তুরস্ক। তুরস্ক এখন আফ্রিকার দেশগুলোর সঙ্গে বাণিজ্য, শিক্ষা, কূটনৈতিক, পরিকাঠামো, রাজনৈতিক, সামাজিক সম্পর্ক আরও বাড়াচ্ছে। তারা এখন নিজেদের ইউরেশিয়ান নয়, আফ্রো-ইউরেশিয়ান দেশ বলছে।

দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মতে, তুরস্কের পররাষ্ট্রনীতির ক্ষেত্রে আফ্রিকার দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক আরও ভালো করাকে খুবই গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। গত ১০ বছরে আফ্রিকায় তুরস্কের কূটনীতিকদের সংখ্যা চারগুণ বাড়ানো হয়েছে। ২০০৯ সালে আফ্রিকার দেশগুলোতে মাত্র ১২টি দূতাবাস ছিল। ২০১৯ সালে তা বেড়ে হয়েছে ৪২। আরও দুইটি দূতাবাস খোলা হচ্ছে।

২০০২ সালে সাব-সাহারান আফ্রিকার সঙ্গে তুরস্কের বাণিজ্যের পরিমাণ ছিল একশ কোটি ডলার। ২০১৯-এ তা হয়েছে ৭৬০ কোটি ডলার। বিদেশে তুরস্কের সবচেয়ে বড় সামরিক ঘাঁটি হলো সোমালিয়া। তুরস্কের সেনা সেখানে সোমালিয়ার সেনাকে প্রশিক্ষণ দেয়। সুদান, নাইজার, চাদ, জিবুতি, গিনির মতো দেশগুলোর পাশাপাশি সোমালিয়া তুরস্কের কাছ থেকে ঢালাও সাহায্য পেয়ে থাকে।

আরও বড় শক্তি হওয়ার লক্ষ্য

বছর কুড়ি আগে এরদোগান ক্ষমতায় আসার পর থেকে তুরস্ক বিশ্বে আরও বড় শক্তি হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে এগোচ্ছে। তাই প্রতিবেশী দেশগুলোর বাইরে তাদের নজর পড়েছে।

জেনোয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের তুরস্কের আফ্রিকা নীতি সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ শিক্ষাবিদ ফেডরিকো ডনেলি জানিয়েছেন, ২০০৪-০৫ সালে এরদোগান সরকার ঠিক করে, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে তুরস্ক নতুন করে অগ্রণী ভূমিকা নেবে। 

তুরস্কের দাবি ছিল, তারা বিশ্বের অবদমিত মানুষের হয়ে কথা বলছে। প্রেসিডেন্ট এরদোগানের বক্তব্য, বিশ্ব পাঁচ দেশের থেকে অনেক বড়। পাঁচ দেশ মানে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্য। এই নীতিকে সামনে রেখেই এগোচ্ছে এরদোগানের তুরস্ক।

দক্ষিণ আফ্রিকায় তুরস্কের রাষ্ট্রদূত এলিফ উলগেন বলেছেন, ‘‘তুরস্ক বিশ্বের ভুলে যাওয়া গোষ্ঠীদের হয়ে কথা বলে। জতিসংঘে এরদোগান নির্ভয়ে অবদমিত মানুষ ও দেশের হয়ে কথা বলেছেন। তাই তুরস্কের নেতৃত্বের দিকে এই দেশগুলো তাকিয়ে আছে।’’ 

ঔপনিবেশিক অতীত নেই

আফ্রিকার দেগুলোর কাছে তুরস্ক নিজেদের ভাইয়ের মতো এবং সাহায্যকারী দেশ হিসেবে তুলে ধরেছে। ইউরোপের দেশগুলোর অতীত ইতিহাসের তুলনায় এটা একেবারে উল্টো মেরুর অবস্থান। ইউরোপের দেশগুলো আফ্রিকায় উপনিবেশ স্থাপন করেছিল। 

ডনেলির মতে, তুরস্কের একটা সুবিধা আছে। অতীতে তারা ঔপনিবেশিক শক্তি ছিল না। অটোমান সাম্রাজ্যের সময় আফ্রিকার অনেক দেশের সঙ্গে তুরস্কের সম্পর্ক ভালো ছিল। পশ্চিমা দেশগুলোর ক্ষেত্রে তা বলা যাচ্ছে না। তারা ছিল ঔপনিবেশিক শক্তি।

কূটনীতিক উলগেনও জানিয়েছেন, তুরস্কের কোনো কলোনিয়াল-অতীত নেই। আর এই দেশগুলোকে উপনিবেশ হিসাবে থাকার স্মৃতি এখনো তাড়িয়ে বেড়ায়। 

তুরস্কের কৌশল 

২০১১ সালে এরদোগান মোগাদিসু গিয়েছিলেন। গত ২০ বছরের মধ্যে তিনিই প্রথম আফ্রিকার বাইরের দেশের নেতা যিনি মোগাদিসু গেলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘‘এখানে যে দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে, তা হলো সভ্যতা ও সাম্প্রতিক মূল্যবোধের পরীক্ষা।’’ সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘‘সোমালিয়ার ভাই ও বোনেদের পাশে থাকতে এসেছি। এটা একদিনের জন্য নয়। আমরা পাশে থাকব। একদিনের জন্যও ভাই, বোনেদের ছাড়ব না।’’ তাদের এই সফরের পর সোমালিয়া আবার গুরুত্ব পেল। 

সোমালিয়াকে তুরস্ক একশ কোটি ডলার সাহায্য করেছে পরিকাঠামো বানানোর জন্য। তুরস্কের সব চেয়ে বড় দূতাবাস সোমালিয়াতেই। 

২০২০ সালে সেনেগালের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকের সময়ও এরদোগান বলেছেন, আফ্রিকার মানুষদের আমরা নিজেদের ভাই-বোন মনে করি। আমরা মানবিকভাবে তাদের কষ্টকে দেখি। 

মিশন সফল?

তুরস্কের এই আফ্রিকা নীতির ফলে সেদেশের মানুষের মনোভাবে পরিবর্তন এসেছে। তুরস্ক এখন যে নীতি নিয়েছে, তা কাজে এসেছে। ডিডাব্লিউর সোমালিয়ার সংবাদদাতা জানিয়েছেন, সোমালিয়ার মানুষদের তুরস্কের জনগণ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে, তারা বলবেন, ওরা আমাদের ভাই ও বোন। 
ডনেলির মতে, আফ্রিকা সম্পর্কে তুরস্কের মানুষের ধারণাও বদলেছে।

সুপারপাওয়ার নয়

তুরস্ককে বলা যেতে পারে আফ্রিকায় নতুন শক্তি, তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, সুপারপাওয়ার নয়। লাইপজিগ বিশ্ববিদ্যালয়ের আফ্রিকার রাজনীতিবিষয়ক অধ্যাপক উলফ এঙ্গেল বলেছেন, আফ্রিকায় তুরস্ক সব চেয়ে বড় শক্তি নয়। তুরস্ককে আমিরাত, কাতার, সৌদি আরব বা ইরানের সমগোত্রীয় বলা যেতে পারে। তারা সীমাবদ্ধ অঞ্চলে নিজেদের ক্ষমতা প্রতিষ্ঠিত করতে চাইছে। 

ডনেলি মনে করেন, তুরস্কের আসল ক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেখা ঠিক হবে না। তারা চীন বা ফ্রান্সের মতো শক্তি নয়।

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

 

 
 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর