শিরোনাম
প্রকাশ : ১০ এপ্রিল, ২০২১ ০৯:৫৫
প্রিন্ট করুন printer

‘পরমাণু সমঝোতার ভবিষ্যত নির্ভর করছে আমেরিকার সিদ্ধান্তের ওপর’

অনলাইন ডেস্ক

‘পরমাণু সমঝোতার ভবিষ্যত নির্ভর করছে আমেরিকার সিদ্ধান্তের ওপর’
Google News

ইরানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইয়্যেদ আব্বাস আরাকচি বলেছেন, আমেরিকা তার দেশের ওপর থেকে সব নিষেধাজ্ঞা একবারে প্রত্যাহার করবে কিনা- সে ব্যাপারে তাকে কঠিন রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আর সে সিদ্ধান্তের ওপর পরমাণু সমঝোতার ভবিষ্যত নির্ভর করছে।

তিনি শুক্রবার ভিয়েনায় পরমাণু সমঝোতা বিষয়ক যৌথ কমিশনের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে অংশগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ মন্তব্য করেন। মার্কিন সরকার কীভাবে পরমাণু সমঝোতায় ফিরতে পারে এবং আমেরিকা ফিরে আসার পর ইরান কীভাবে তার পূর্ণ প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন শুরু করতে পারে তা নিয়ে মূলত ভিয়েনা বৈঠকে আলোচনা হয়।

আরাকচি বলেন, পরমাণু সমঝোতায় আমেরিকা যেসব নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে সেগুলোর সঙ্গে ট্রাম্প প্রশাসনের চার বছরের শাসনামলে আরোপিত সব নিষেধাজ্ঞা পরিপূর্ণভাবে প্রত্যাহার করতে হবে। তিনি বলেন, এ পথে অনেক সমস্যা বিদ্যমান থাকলেও ভিয়েনা বৈঠকের আলোচনা ছিল ইতিবাচক ও গঠনমূলক।

ইরানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সব নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হওয়ার অর্থ ইরানের দাবি পূরণ করা আর সেক্ষেষত্রে পরমাণু সমঝোতায় প্রত্যাবর্তনের পথ সুগম হবে। তিনি বলেন, তিন ইউরোপীয় দেশ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, চীন ও রাশিয়া সবাই ইরান ও আমেরিকাকে পরমাণু সমঝোতায় ফেরাতে চায়।

২০১৮ সালে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার দেশকে একতরফাভাবে পরমাণু সমঝোতা থেকে বের করে নেন। এরপর তিনি তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। এরপর ইরান ইউরোপীয়দের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের জন্য এক বছরের বৃথা অপেক্ষার পর পরমাণু সমঝোতায় দেওয়া নিজের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের মাত্রা কমাতে থাকে। বর্তমানে ইরান পরমাণু সমঝোতা পূর্ব অবস্থায় অর্থাৎ শতকরা ২০ মাত্রায় পুরোদমে ইউরোনিয়াম সমৃদ্ধ করে যাচ্ছে। ইরান বলছে, আমেরিকা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে পরমাণু সমঝোতায় ফিরলে তেহরানও পূর্ণ মাত্রায় তার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে ফিরে যাবে।

বিডি প্রতিদিন/কালাম

এই বিভাগের আরও খবর