শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:২৯

বন্দুকযুদ্ধে তিন স্থানে নিহত ৩

প্রতিদিন ডেস্ক

বন্দুকযুদ্ধে তিন স্থানে নিহত ৩

ঢাকার মিরপুর, সাভার ও মাদারীপুরে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া লালমনিরহাটে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। গতকাল রাত থেকে ভোর পর্যন্ত এসব বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর—

মিরপুর : রাজধানীর মিরপুরের বেড়িবাঁধ এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্ধুকযুদ্ধে’ মোহাম্মদ আসাদুল (৩০) নামে একজন নিহত হয়েছেন। র‌্যাব দাবি করেছে, নিহত আসাদুল মাদক ব্যবসায়ী। র‌্যাব-২ এর সহকারী পুলিশ সুপার এএসপি সাইফুল মালিক বলেছেন, নিহত আসাদুল সংঘবদ্ধ মাদক কারবারি চক্রের সদস্য। তিনি রাজধানীর আগারগাঁও এলাকায় মাদক কারবার করতেন। তার সঙ্গে আরও অনেক মাদক কারবারির যোগাযোগ ছিল। তাদেরকেও খোঁজা হচ্ছে। র‌্যাব জানিয়েছে, মাদকদ্রব্যের একটি বড় চালান নেওয়ার জন্য মাদক কারাবারিদের একটি দল বিরুলিয়া এলাকায় অবস্থান করছিল। গতকাল রাত সোয়া ৩টার দিকে বেড়িবাঁধের বিরুলিয়া এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় সেখানে অবস্থানকারী মাদক কারবারিরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে থাকে। তখন র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। প্রায় আধাঘণ্টা পর সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যাওয়ার পর পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়। পরে সেখানে তল্লাশি চালিয়ে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ওই হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। এদিকে নিহত আসাদুল পরিবারের দাবি, পরিবারের সঙ্গে আগারগাঁও বিএনপি বাজার এলাকায় থাকতেন আসাদ। কয়েকদিন ধরেই পরিবারের সঙ্গে তার কোনো যোগাযোগ ছিল না। মোবাইল ফোনও বন্ধ ছিল। গতকাল সকালে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ মর্গে গিয়ে আসাদুলের লাশ শনাক্ত করেন তারা। র‌্যাব জানায়, অভিযানের সময় নিহত ব্যক্তির পকেট থেকে একটি কার্ড পাওয়া যায়। সেখান থেকে তার নাম আসাদুল বলে জানা যায়।

মাদারীপুর : মাদারীপুর সদর উপজেলার শিরখাড়া এলাকায় গতকাল ভোরে কথিত বন্দুকযুদ্ধে আলিম মোল্লা ওরফে আলি মোল্লা নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি, নিহত যুবক একাধিক ডাকাতি ও চুরি মামলার আসামি। তিনি মাদারীপুরের ডাসার থানার পূর্ব কমলাপুর গ্রামের সামসুল হক মোল্লার ছেলে। পুলিশ জানায়, মাদারীপুর সদর উপজেলার শিরখাড়া এলাকায় গভীর রাতে একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এই সংবাদের ভিত্তিতে মাদারীপুর গোয়েন্দা পুলিশ ঘটনাস্থালে গেলে ডাকাতরা গুলি ছোড়ে। এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। গোলাগুলির এক পর্যায়ে ডাকাত দল পালিয়ে গেলে গুলিবিদ্ধ যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়। মাদারীপুর পুলিশ সুপার সুব্রত কুমার হালদার জানান, নিহতের বিরুদ্ধে মাদারীপুর ও রংপুরসহ বিভিন্ন থানায় একাধিক ডাকাতির মামলা রয়েছে। তিনি মোটরসাইকেল চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান উদ্ধার করেছে। লালমনিরহাট : লালমনিরহাট সদর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মনসুর আলী (৩৫) নামে এক ডাকাত গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তিনি অপহরণ ও মাদকের ১১টি মামলার আসামি বলে জানিয়েছে পুলিশ। লালমনিরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহফুজ আলম জানান, রবিবার দিনগত রাতে উপজেলার বড়বাড়ি ইউনিয়নের বিদ্যাবাগিশ এলাকায় পুলিশের সঙ্গে এ বন্দুকযুদ্ধ হয়। গুলিবিদ্ধ মনসুর আলী ওই গ্রামের নিয়াজ উদ্দিন আহমেদের ছেলে। পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার রাতে বিদ্যাবাগিশ এলাকা থেকে মনসুর ডাকাতকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বাকিদের গ্রেফতার করতে তাকে নিয়ে ওই এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় ডাকাত চক্র পুলিশের ওপর হামলা করে মনসুরকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। পরে পুলিশ শটগানের দুই রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এতে মনসুর দুই পায়ে গুলিবিদ্ধ হন। এ অবস্থায় তাকে গ্রেফতার করে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে চারটি রামদা, দুটি ধারালো ছোরা ও বেশ কিছু লাঠি জব্দ করা হয়েছে।


আপনার মন্তব্য