শিরোনাম
প্রকাশ : ৯ জুন, ২০২১ ১১:১৫
প্রিন্ট করুন printer

দাম কম দেখিয়ে বিটুমিন খালাস

আমদানিতে মূল্য ঘোষণায় কারসাজি, ধরাছোঁয়ার বাইরে শুল্ক ফাঁকি, রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

রুহুল আমিন রাসেল

দাম কম দেখিয়ে বিটুমিন খালাস
ফাইল ছবি
Google News

সারা দেশের সড়ক-মহাসড়ক নির্মাণের অন্যতম উপকরণ হিসেবে ফিনিশড বা তৈরি বিটুমিন আমদানিতে মূল্য ঘোষণায় কারসাজির তথ্য পাওয়া গেছে। কাস্টমস সূত্র বলছে, অসাধু আমদানিকারকরা আন্ডারইনভয়েসিং বা দাম কম দেখিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার বিটুমিন ভর্তি ড্রাম খালাস করেন। ফলে ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকছে শুল্ক ফাঁকি। বড় অঙ্কের রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার।

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ শফি উদ্দিন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বিটুমিন আমদানিতে আন্ডারইনভয়েসিং বন্ধে চট্টগ্রাম কাস্টমস সক্রিয় রয়েছে। পাশাপাশি অর্থ পাচার প্রতিরোধ আইনের আওতায় অসাধু আমদানিকারকদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তবে দেশের প্রাচীন বাণিজ্য সংগঠন ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) সভাপতি রিজওয়ান রাহমান বলেন, আন্ডারইনভয়েসিং বা দাম কম দেখিয়ে শুল্ক ফাঁকি দেওয়া হচ্ছে। সহজ কথায় ২০ টাকার জিনিস আমদানি করে ২ টাকা দাম দেখিয়ে শুল্ক ফাঁকি দেওয়া। এই আন্ডারইনভয়েসিং বন্ধে কাস্টমসের পুরোপুরি অটোমেশন চালু করতে হবে। এর মাধ্যমে বাড়াতে হবে কাস্টমসের নজরদারি।
চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (সিসিসিআই) সভাপতি ও বিটুমিন আমদানিকারক মাহবুব আলম বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারদর দেখে কাস্টমসকে বিটুমিনের শুল্কায়ন করতে হবে। আন্ডারইনভয়েসিং বন্ধে কাস্টমসের নজরদারি রাখতে হবে। পাশাপাশি দেশীয় বিটুমিন ব্যবহারে জোর দিতে হবে। তার মতে, ‘বিপুল বৈদেশিক মুদ্রা খরচ করে বিটুমিন আমদানি করতে হচ্ছে। কিন্তু দেশে যেহেতু উন্নত মানের বিটুমিন উৎপাদন হচ্ছে, তাই আমদানি উৎসাহিত করার কোনো সুযোগ নেই। বরং বিটুমিন রপ্তানিকে আমরা উৎসাহিত করতে পারি। দেশীয় শিল্প বিকশিত হোক।’ জানা গেছে, রাস্তা নির্মাণে ব্যবহৃত বিটুমিন আমদানিতে মিথ্যা ঘোষণা থামছে না। ভেজাল বিটুমিন আসছেই, অথচ নীরব কাস্টমস। মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে আসছে বিটুমিন। রাজস্ব ফাঁকি ধরাছোঁয়ার বাইরে। কার্যত বিটুমিন আমদানির পুরো প্রক্রিয়াই প্রশ্নবিদ্ধ। বিএসটিআই, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন ও বুয়েটের অনুমোদন ছাড়াই বিটুমিন আসছে দেশে। আর চট্টগ্রাম বন্দরের একশ্রেণির অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে সেগুলো ছাড়পত্রও পেয়ে যাচ্ছে। এ প্রসঙ্গে ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির (আইইউটি) সহকারী অধ্যাপক এবং বিটুমিন বিশেষজ্ঞ ড. নাজমুস সাকিব বলেন, ‘এমন একটি শিপ বা জাহাজ থেকে বিটুমিন নেওয়া হচ্ছে, যেটি ৩ থেকে ৪ মাস সাগরে ভাসছে। সেখানেই শিপের পরিত্যক্ত তেল ও তেলজাতীয় ক্ষতিকর পদার্থ বিটুমিনে মেশানো হচ্ছে। এক কথায় বলতে গেলে চোরাই প্রক্রিয়ায় মানহীনভাবে তৈরি বিটুমিন বাংলাদেশে আসছে। স্বাভাবিকভাবেই মানহীন ও রাজস্ব ফাঁকির সুযোগ থাকায় ভেজাল বিটুমিনের দামও কিছুটা কম হয়। এই অল্প দামে পাওয়া খারাপ বিটুমিন সারা দেশের রাস্তা নির্মাণে ব্যবহৃত হচ্ছে। আসলে আবর্জনাকে আমরা রাস্তায় বিটুমিন হিসেবে ব্যবহার করছি।’

জানা গেছে, বিপুল বিনিয়োগে গড়ে ওঠা দেশীয় বিটুমিনশিল্পে উৎপাদন পর্যায়ে অযৌক্তিকভাবে ২৬ শতাংশ পর্যন্ত কর বিদ্যমান থাকলেও আমদানিতে অনেক কম। এভাবে শুরুতেই দেশীয় বিটুমিনশিল্প ধ্বংসের পাঁয়তারা চলছে। দেশে বিটুমিন উৎপাদনের কাঁচামাল আমদানিতে অন্যায্যভাবে ১৫ শতাংশ ভ্যাট বিদ্যমান। অথচ পরিশোধিত বিটুমিনে আমদানিতে কোনো ভ্যাটই নেই। আবার আমদানির বিটুমিন সরবরাহ পর্যায়ে যেখানে ভ্যাট মাত্র ৫ শতাংশ, সেখানে দেশীয় উৎপাদকের ওপর ১৫ শতাংশ ভ্যাটের খড়্্গ রয়েছে। এমনকি দেশীয় বিটুমিন উৎপাদনে প্রতি টনের কাঁচামাল আমদানিতে খরচ ৫৭০ ডলার হলেও আমদানিতে তা ২৬০ ডলার। এই বৈষম্যমূলক কর কাঠামো বাতিল করে দেশীয় শিল্প সুরক্ষার দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। এ প্রসঙ্গে ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, ‘দেশীয় শিল্পের বিকাশ ও সুরক্ষার স্বার্থে কোনোভাবেই বৈষম্যমূলক করকাঠামো দেখতে চাই না। যেখানে তৈরি পণ্য আমদানিতে ভ্যাট নেই, সেখানে দেশীয় শিল্পের উৎপাদনের কাঁচামাল আমদানি পর্যায়ে ১৫ শতাংশ ভ্যাট অযৌক্তিক ও অন্যায়। দেশীয় বিটুমিন সরবরাহ পর্যায়ে ১৫ শতাংশ ভ্যাটও অপ্রত্যাশিত।’ সব মিলিয়ে দেশীয় বিটুমিনশিল্পের সুরক্ষায় যৌক্তিক কর নির্ধারণে পরামর্শ দিয়েছেন এই শীর্ষ ব্যবসায়ী নেতা।

এ প্রসঙ্গে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) অবসরপ্রাপ্ত জ্যেষ্ঠ সদস্য মো. ফরিদ উদ্দিন বলেন, বিটুমিন আমদানির চেয়ে দেশীয় শিল্প-কারখানায় উৎপাদনের ক্ষেত্রে বাড়তি কর আরোপের কোনো সুযোগ নেই। এমনটা করা হলে তা দেশীয় শিল্পের স্বার্থবিরোধী। সরকারের দেশীয় শিল্প সুরক্ষানীতিরও পরিপন্থী। দেশীয় শিল্পের সঙ্গে এই বৈষম্যমূলক করকাঠামো যথাযথ কর্তৃপক্ষের সংশোধন করা উচিত। কারণ শিল্পের সংরক্ষণ ও সুরক্ষার দায়িত্ব সরকারের।

তথ্যমতে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের পরিকল্পনা ও আন্তরিক চেষ্টায় কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছাতে হলে ব্যাপক দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ প্রয়োজন। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রথম শর্ত যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন। সড়কব্যবস্থা প্রধান যোগাযোগমাধ্যম। টেকসই সড়ক নির্মাণের মূল উপাদান হলো ভালো মানের বিটুমিন। আর বিটুমিন তারকলজাতীয় পদার্থের মুখ্য সংঘটক। অ্যাসফল্ট বা বিটুমিন কঠিন বা অর্ধতরল অবস্থায় পাওয়া যায়, অথবা পেট্রোলিয়াম পরিশোধনের সময় উৎপন্ন হয়। অ্যাসফল্ট বা বিটুমিনের ব্যবহার বিভিন্নভাবে হয়। দেশে সড়ক নির্মাণকাজে বিটুমিন ব্যবহার হলেও বর্তমানে এর বহুবিধ ব্যবহার শুরু হয়েছে। বর্তমানে দেশে বিটুমিনের বার্ষিক চাহিদা প্রায় সাড়ে ৫ লাখ টন, যা অবকাঠামো উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে প্রতি বছরই বাড়ছে।

জানা গেছে, স্থানীয়ভাবে বিটুমিন উৎপাদনের জন্য প্রধান কাঁচামাল হচ্ছে পেট্রোলিয়াম অয়েলস অ্যান্ড অয়েলস অবটেইন্ড মিনারেলস, ক্রুড। যার এইচএস কোড : ২৭০৯.০০.০০। এই কাঁচামাল আমদানিতে শুল্ককর বা সিডি সিডি ৫ শতাংশ, ভ্যাট ১৫ শতাংশ, আগাম কর বা এটি ৩ শতাংশ এবং অগ্রিম আয়কর বা এআইটি ২ শতাংশ। এই করকাঠামো পর্যালোচনায় দেখা যায়, ৫ শতাংশ সিডিসহ মোট আমদানি শুল্ক দাঁড়িয়েছে ২৬ শতাংশ। এ ছাড়া প্রতি ব্যারেলের ট্যারিফ মূল্য ৪০ ডলার নির্ধারিত।

অন্যদিকে বর্তমানে দেশে এইচএস কোড ২৭১৩.২০.১০ ও ২৭১৩.২০.৯০ এর মাধ্যমে ফিনিশড বা তৈরি বিটুমিন আমদানি হয়ে থাকে। ড্রামে বিটুমিন আমদানিতে প্রতি টনের শুল্ককর নির্ধারিত আছে ৪ হাজার ৫০০ টাকা। এর সঙ্গে অগ্রিম আয়কর বা এআইটি ২ শতাংশ এবং আগাম কর বা এটি ৫ শতাংশ। অন্যদিকে অন্যান্য বিটুমিন নামে যদি কেউ বাল্ক আকারে আমদানি করে, সে ক্ষেত্রে প্রতি টনে ৩ হাজার ৫০০ টাকা আমদানি শুল্ক নির্ধারিত রয়েছে। এর সঙ্গে এআইটি ২ শতাংশ এবং এটি ৩ শতাংশ প্রযোজ্য।

জানা গেছে, স্থানীয়ভাবে বিটুমিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান না থাকায় বিটুমিনাস ক্রুডের চেয়ে পরিশোধিত বিটুমিনের আমদানি শুল্ক কম রাখা হয় কেবল স্থানীয় অবকাঠামো উন্নয়নের স্বার্থে। কিন্তু বর্তমানে গুণগত মানসম্পন্ন বিটুমিন স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত হওয়ায় দেশীয় শিল্পের সুরক্ষা বিবেচনায় আমদানি শুল্ক কাঠামো স্থানীয় শিল্পবান্ধব করে পুনরায় নির্ধারণ করা প্রয়োজন। পাশর্^বর্তী দেশ ভারতসহ পৃথিবীর অনেক দেশ তাদের স্থানীয় শিল্পের প্রতিরক্ষণার্থে শিল্পের মূল কাঁচামালের ওপর থেকে শুল্ক ও অন্যান্য কর প্রত্যাহার করে সংশ্লিষ্ট শিল্পের সুষ্ঠু বিকাশের নিমিত্তে ফিনিশড পণ্যের ওপর বিভিন্ন শুল্ক ও অন্যান্য কর আরোপের মাধ্যমে বিদেশি পণ্যের অবাধ প্রবেশ নিয়ন্ত্রণ করে উন্নতির শীর্ষে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছে। জাতীয় বৃহত্তর স্বার্থে দেশীয় শিল্প রক্ষায় এ ধরনের নীতি বাংলাদেশেরও অনুসরণ করা উচিত। স্থানীয় শিল্প প্রতিষ্ঠা লাভ করলে দেশের জিডিপি আয় বৃদ্ধির পাশাপাশি আমদানি খাতে কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হবে।

এদিকে আমদানি হওয়া ফিনিশড বিটুমিন এবং দেশীয় উৎপাদিত বিটুমিনের স্থানীয় সরবরাহ পর্যায়ের বৈষম্যমূলক চিত্রের দেখা মিলেছে। জানা গেছে, ড্রাম ও অন্যান্য বিটুমিন আমদানিতে কোনো অগ্রিম ভ্যাট বা মূল্য সংযোজন কর (মূসক) পরিশোধ করতে হয় না। অর্থাৎ সংশ্লিষ্ট পণ্যসমূহ ‘মূল্য সংযোজন কর’ অব্যাহতি প্রাপ্ত। মূল্য সংযোজন কর ও স¤পূরক শুল্ক আইন, ২০১২-এর তৃতীয় তফসিল টেবিল-১ অনুযায়ী, বাল্ক বিটুমিন আমদানিতে স্থানীয়ভাবে সরবরাহের ক্ষেত্রে ভ্যাটের হার ৫ শতাংশ। পক্ষান্তরে স্থানীয়ভাবে বিটুমিন উৎপাদনে কাঁচামাল আমদানিতে ১৫ শতাংশ অগ্রিম ভ্যাট প্রযোজ্য, যা সরবরাহ পর্যায়ে সমন্বয়যোগ্য। অর্থাৎ স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত বিটুমিনে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপিত। ফলে আমদানি হওয়া বিটুমিনের তুলনায় স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত বিটুমিনের উৎপাদন খরচ স্বাভাবিকভাবেই বেশি হবে এবং বাজারে অসম প্রতিযোগিতার কারণে কোনোভাবে দেশীয় বিটুমিন উৎপাদনকারী শিল্পপ্রতিষ্ঠান টিকে থাকতে পারবে না।

জানা গেছে, দেশীয় প্রতিষ্ঠান কর্তৃক উৎপাদিত বিটুমিনের পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকা সত্ত্বেও শুধু ন্যূনতম শুল্ক ও ভ্যাট বিদ্যমান থাকায় কিছুসংখ্যক আমদানিকারক স্থানীয় বাজারে সরবরাহ করছেন। ফলে স্থানীয় প্রতিষ্ঠানসমূহ তাদের উৎপাদিত পণ্যের বিপণন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে না পারায় লোকসান গুনতে হচ্ছে। এতে আমদানি খাতে দেশের কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রার অপচয়ের পাশাপাশি স্থানীয় পর্যায়ে মূল্য সংযোজন কর খাতে বিঘিœত হচ্ছে রাজস্ব আয়। এ অবস্থা দীর্ঘমেয়াদি চলতে থাকলে দেশীয় বিটুমিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার উপক্রম হবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। কারণ স্থানীয় বাজারে বাজারজাত হওয়া বিটুমিন যে গ্রেডের কথা বলে বিক্রি করা হয়, তা মূলত ওই গ্রেডের নয়, বরং নিম্নমানের। ফলে রাস্তার আয়ুষ্কাল কমে যাওয়ার পাশাপাশি মেরামত ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। সে বিবেচনায় স্থানীয়ভাবে বিটুমিনাস ক্রুড থেকে উৎপাদিত গুণগত মানসম্পন্ন বিটুমিন ব্যবহারে রাস্তার আয়ুষ্কাল বৃদ্ধিসহ মেরামত ব্যয়ও হ্রাস পাবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রীসহ সমগ্র জাতির স্বপ্ন পূরণের রূপকল্প-২০৪১-এর মূল স্লোগান, ‘কমাতে হবে আমদানি নির্ভরতা, বাড়াতে হবে উৎপাদনশীলতা, তাহলে তৈরি হবে কর্মসংস্থান’। টেকসই উন্নয়ন ও উন্নত যোগাযোগব্যবস্থার স্থায়িত্ব বৃদ্ধির লক্ষ্যে দেশে প্রথম বিটুমিন অ্যাসফল্ট প্লান্ট স্থাপন হয়েছে, যা দেশীয় চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানিতেও সক্ষম। বিশেষজ্ঞ মহলের বিশ্বাস, ২০০০ সালের মতো প্রধানমন্ত্রী দেশীয় সিমেন্টশিল্পের গুরুত্ব অনুধাবন করে বাল্ক সিমেন্ট আমদানির ওপর ৩০০ শতাংশ ডিউটি আরোপ করে সিমেন্টশিল্পকে রক্ষা করেছেন, ঠিক তেমনি নিম্নমানের বিটুমিন আমদানির ওপর উচ্চ হারে আমদানি শুল্ক ও অন্যান্য কর আরোপের মাধ্যমে দেশীয় প্রিমিয়াম মানের বিটুমিন উৎপাদন শিল্পকে বিকশিত করলে তা রূপকল্প-২০৪১ বাস্তবায়নে অন্যতম মাইলফলক হবে।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর