শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:০৩

স্বপ্ন দেখতেই পারে টাইগাররা

ক্রীড়া প্রতিবেদক

স্বপ্ন দেখতেই পারে টাইগাররা

এক যুগ আগে ২০০৭ সালের কুইন্সটাউনের ম্যাচটি এখনো দুঃস্বপ্ন হয়ে আছে মাশরাফি, তামিম, সাকিব, মুশফিকদের! সিরিজের তৃতীয় ম্যাচটি স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড ১০ উইকেটে জিতেছিল ৪৪ ওভার বা ২৬৪ বল হাতে রেখে। অবিশ্বাস্য ম্যাচটির পর আরও তিনবার নিউজিল্যান্ড সফর করেছে বাংলাদেশ। কিন্তু ব্যর্থতার গোলকধাঁধা ভেঙে সাফল্যের দেখা পায়নি। তবে দুঃস্বপ্ন ফিরেনি কখনোই। তিন ওয়ানডে ও তিন টেস্ট খেলতে এরই মধ্যে মুশফিকদের এক গ্রুপ (৮জন) পা রেখেছে নিউজিল্যান্ড। মাশরাফিদের গ্রুপটি ১৩ফেব্রুয়ারি নেপিয়ারে প্রথম ওয়ানডে খেলতে নিউজিল্যান্ড যাবে ৯ ফেব্রুয়ারি। রিক্তহস্তে আগের সফরগুলো থেকে দেশে ফিরলেও এবার স্বপ্ন দেখতেই পারেন মাশরাফি। দেশ ছাড়ার আগে বাংলাদেশের একমাত্র দুই দুটি ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম এবার স্বপ্ন দেখতে বলেছেন ক্রিকেটপ্রেমীদের। মাশরাফিদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সই স্বপ্ন দেখার রসদ জোগাচ্ছে। নিউজিল্যান্ড সফর দিয়েই বিশ্বকাপ বছর শুরু করছে টাইগাররা।

কোচ স্টিভ রোডসের নেতৃত্বে গতকাল নিউজিল্যান্ড পা রেখেছেন সৌম্য, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির, মেহেদী হাসান মিরাজ, মুস্তাফিজ ও নাঈম। ৯ ফেব্রুয়ারি যাবেন মাশরাফি, সাকিব, তামিম, লিটন, মিথুন, রুবেল, শফিউল ও সাইফউদ্দিন।      

নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ প্রথম ওয়ানডে খেলেছিল ১৯৯০ সালে অস্ট্রেলেশিয়া কাপে। প্রথম নিউজিল্যান্ড সফর ২০০৭ সালে। ২০১৬ সালের অক্টোবরে সর্বশেষ সফরে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-২০-এর একটি ম্যাচও জিতেনি। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের মাটিতে সফরটিকে এখন পর্যন্ত সেরা বলছেন ক্রিকেটাররা। ওই সফরের পারফরম্যান্স দলকে আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে বলেন সাবেক অধিনায়ক মুশফিক, ‘এবার জেতার সম্ভাবনা অবশ্যই আছে। সর্বশেষ যখন সফর করেছিলাম সেখানে, খেয়াল করে দেখবেন দুটি ওয়ানডে খুব কাছাকাছি গিয়ে হেরেছিলাম। এবার সেই সম্ভাবনা রয়েছে বলে বিশ্বাস করি। সেজন্য আমাদের সুযোগগুলোকে পুরোপুরি কাজে লাগাতে হবে।’ শুধু জেতার স্বপ্ন দেখছেন না মুশফিক। বিশ্বকাপ ক্রিকেটের বেশ ভালো প্রস্তুতি হিসেবেও দেখছেন, ‘আমি মনে করি বিশ্বকাপের আগে সফরটা আমাদের জন্য বেশ ভালো প্রস্তুতি হবে। বেশ কিছু হাই স্কোরিং ম্যাচ হতে পারে। আমি মনে করি, এটা চ্যালেঞ্জিং হবে।’ সাবেক অধিনায়ক মনে করলেও কোচ স্টিভ রোডস অবশ্য সেটা মানছেন না।

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে উপমহাদেশীয় দলগুলোর সাফল্য হাতে গোনার মতো। যদিও এক সপ্তাহ আগে ভারত ৪-১-এ বিধ্বস্ত করেছে নিউজিল্যান্ডকে। তাই স্বপ্ন দেখতেই পারে টাইগাররা। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে প্রায় তিন বছর পর পা রাখছেন গেল বছর ভালো কাটানো মাশরাফিরা। গেল বছর মাশরাফিরা হারিয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ, শ্রীলঙ্কা, জিম্বাবুয়ে, পাকিস্তান, আফগানিস্তানের মতো দলকে। উড়তে থাকা মাশরাফি বাহিনী। অনিন্দ্য সুন্দর নিউজিল্যান্ডে পা রাখছে টি-২০ টুর্নামেন্ট বিপিএল খেলার ছন্দ নিয়ে।         

২০০১ সাল থেকে নিউজিল্যান্ড সফরে বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-২০ মিলিয়ে ২১ ম্যাচ খেলেছে। তিন সংস্করণের কোনো ম্যাচ জিতেনি টাইগাররা। এবার তিন ওয়ানডে ও তিন টেস্ট খেলবে। সফরে ১৩ ফেব্রুয়ারি নেপিয়ার, ১৬ ফেব্রুয়ারি ক্রাইস্টচার্চ ও ২০ ফেব্রুয়ারি ডুনেডিনে ওয়ানডে তিনটি খেলবে। বৈরী পরিবেশ ও অপরিচিত উইকেট। তারপরও স্বপ্ন দেখতেই পারেন মাশরাফিরা। আত্মবিশ্বাসী মুশফিক তাই স্বপ্ন দেখতে বলছেন, ‘নিউজিল্যান্ড সফর অনেক চ্যালেঞ্জিং। ওয়ানডেতে ভারত জিতেছে। আমার বিশ্বাস আমাদের দলটিও ভালো করবে।’


আপনার মন্তব্য