শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৬ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:২৬

প্রতিপক্ষের আতঙ্ক টু-আর

ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রতিপক্ষের আতঙ্ক টু-আর

বসুন্ধরা কিংসের চোখ দেশ ও বিদেশে। সিডিউল পরিবর্তন না হলে ৩০ এপ্রিল পেশাদার ফুটবলে দ্বিতীয় লেগে মাঠে নামবে তারা। ১২ ম্যাচে ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে কিংস। অভিষেকেই লিগ জয়ের কৃতিত্ব রয়েছে কিংসের। এবার শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখার মিশনে নামবে তারা। নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বীর চেয়ে তারা ভালোই অবস্থানে আছে। দ্বিতীয় লেগে বড় কোনো অঘটন না ঘটলে কিংসই ফুটবলের কিংয়ের খ্যাতিটা ধরে রাখবে। এ নিয়ে কোনো সংশয় নেই। এত গেল ঘরোয়া ফুটবলের কথা। বসুন্ধরা কিংসের আরও একটি মিশনে নামতে হবে। আর তা বিদেশের মাটিতে। আগামী মাসেই মালদ্বীপের মালেতে বসছে এএফসি ক্লাব কাপ চ্যাম্পিয়নশিপ। মালদ্বীপের মাজিয়া, ভারতের মোহনবাগানের বিপক্ষে ‘ডি’ গ্রুপে লড়বে কিংস। গ্রুপের চতুর্থ দল হিসেবে খেলবে কারা তা এখনো ঝুলে আছে। ঢাকা আবাহনীরও খেলার সম্ভাবনা রয়েছে।

নিঃসন্দেহে গ্রুপে শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষে লড়তে হবে কিংসকে। তবে শীর্ষে থেকে পরবর্তী রাউন্ডে যাওয়ার সামর্থ রয়েছে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নদের। গত এএফসি কাপের অভিষেক আসরে প্রথম ম্যাচেই বাজিমাত করে কিংস। আর্জেন্টিনায় মেসির সঙ্গে খেলা বার্কোসের হ্যাটিিট্রকে মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টসকে ৫-১ গোলে বিধ্বস্ত করেছিল। প্রথম ম্যাচেই বুঝিয়ে দিয়েছিল চ্যাম্পিয়ন হতেই আসরে নেমেছে কিংস। দুর্ভাগ্য বলতে হয়, করোনাভাইরাসে টুর্নামেন্ট বাতিল হয়ে যায়। এএফসি কাপে বসুন্ধরা বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছে। সুতরাং এখানে দেশের সুনামও জড়িত। তাইতো কিংসের সভাপতি ইমরুল হাসান জানালেন আমরা জানপ্রাণ দিয়ে লড়ব।

এবার বার্কোস বা কলিনড্রেস নেই। তাতে কী বসুন্ধরা আগের চেয়ে আরও শক্তিশালী। আছেন দুই বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন দেশ ব্রাজিলের রবসন রবিনহো ও আর্জেন্টিনার রাউল বেসেরা। এক সময় ক্রিকেটে টু ডব্লিউ ওয়াসিম ও ওয়াকার যেমন ব্যাটসম্যানদের ভীতির কারণ হয়ে দাঁড়াতেন তেমনি বসুন্ধরার টু-আর রবিনহো ও রাউল প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগে আতঙ্কের নাম। তারা কতটা অপ্রতিরোধ্য তা পেশাদার লিগেই প্রমাণ মিলে। প্রথম লেগে দলটি ৩২ গোল প্রতিপক্ষের জালে পাঠিয়েছে। সেখানে টু-আরের গোল সংখ্যা ২৩টি। রবিনহো ১২ গোল দিয়ে যুগ্মভাবে শীর্ষে। অন্যদিকে রাউলের সংখ্যা ১১। ঘরোয়া ফুটবলে যে আলো ছড়িয়েছেন। এএফসি কাপেও প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগে ভীতি ছড়াবেন তারা তা আশা করা যায়।

বসুন্ধরা অপ্রতিরোধ্য গতিতে ছুটছে টু-আরের ঝলকে। ঘরোয়া ফুটবলের ইতিহাসে এখনই তারা সেরা জুটির খেতাব পেয়ে গেছে। ফার্নান্দেজ ও খালিদ শাফির নৈপুণ্যতো আছে। যোগ হয়েছে নতুনভাবে দুই প্রবাসী ফুটবলার ওবায়দুর ও আবিদ। সব মিলিয়ে দেশ ও বিদেশে টিম বসুন্ধরাকেই দেখা যাবে।