শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ জুলাই, ২০২০ ২১:২৬

চট্টগ্রামে ৩৪ হাজার শিক্ষার্থীর ক্ষতিপূরণে অনলাইন ক্লাস ‘ঘরে শিখি’

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে ৩৪ হাজার শিক্ষার্থীর ক্ষতিপূরণে অনলাইন ক্লাস ‘ঘরে শিখি’

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে চার মাস ধরে বন্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ফলে ছন্দপতন ঘটেছে শিক্ষার্থীদের পাঠদানে। একাডেমিক কার্যক্রম ছাড়াই চলে যাচ্ছে শিক্ষাজীবনের গুরুত্বপূর্ণ সময়টুকু। এসময়ে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের এ ক্ষতিটা পূরণে চালু করা হয়েছে অনলাইন ক্লাস ‘ঘরে শিখি’।

পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফারহানা জাহান উপমার উদ্যোগে শুরু হয় ফেসবুকভিত্তিক এ অনলাইন ক্লাস। শ্রেণি কার্যক্রম ‘ঘরে শিখি’র অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজ (www.facebook.com/puonlineclass) থেকে নির্ধারিত রুটিন অনুসারে চলবে ক্লাস। গত মঙ্গলবার পরীক্ষামূলক ম্যাথ ও ফিজিক্সের ক্লাস করা হয়। প্রথম দিন দুই হাজার ভিউয়ার (শিক্ষার্থী) অংশগ্রহণ করে।    

জানা যায়, পটিয়া উপজেলার ৪৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রায় ৩৪ হাজার শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত আছে। মাধ্যমিক পর্যায়ের সব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের একটি প্ল্যাটফরমে এনে ক্লাস অভিন্ন প্যানেলে অনলাইন শ্রেণি কার্যক্রম ‘ঘরে শিখি’র মাধ্যমে ক্লাস নেওয়া হবে। পটিয়া উপজেলা ও চট্টগ্রাম মহানগরীর মাধ্যমিক পর্যায়ের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ২২ জন শিক্ষক এ কার্যক্রমে পাঠদান করাবেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস এ কার্যক্রমে সহযোগিতা করছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফারহানা জাহান উপমা বলেন, ‘বৈশ্বিক মহামারি প্রাণঘাতি করোনা সামগ্রিক ক্ষেত্রে চরম আকারে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। এই সময়ে শিক্ষার্থীদের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে, চলে যাচ্ছে শিক্ষার্থীদের পাঠ্যজীবনের গুরুত্বপূর্ণ সময়। তাই তাদের এ ক্ষতি পূরণে ঘরে শিখি নামে অনলাইন ক্লাসের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ক্লাসগুলো থাকবে রেকর্ডেড। যা পরবর্তীতে শিক্ষার্থীরা দেখতে পারবে। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের শ্রেণীর কক্ষের সঙ্গে যুক্ত রাখা যাবে।’   

পটিয়ার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মাইনউদ্দিন মজুমদার বলেন, ‘বিষয়ভিত্তিক পৃথক প্যানেলের মাধ্যমে স্কুলের সিলেবাস অনুসরণ করে অনলাইন ক্লাস চলবে। জুলাই-আগস্টে সিলেবাস শেষ করার একটা পরিকল্পনা নিয়ে ক্লাস শুরু করা হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের শিক্ষকরা আগ্রহী হলে স্বেচ্ছায় ‘ঘরে শিখি’ টিমের সদস্য হিসেবে এ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। তাছাড়াও দেশের সকল শিক্ষার্থীর জন্যও শ্রেণি কার্যক্রমটি উম্মুক্ত।’

ঘরে শিখি কার্যক্রমের সমন্বয়ক পটিয়ার পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মীর আন-নাজমুস সাকিব বলেন, ‘পটিয়া উপজেলা ও চট্টগ্রাম মহানগরীর মাধ্যমিক পর্যায়ের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ২২ জন অভিজ্ঞ শিক্ষক এ কার্যক্রমে পাঠদান করবেন। ঘরে শিখি’র অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজ থেকে নির্ধারিত রুটিন অনুসারে নিয়মিত সম্প্রচার করা শুরু হবে।’

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর