শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৪:২৩
আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৬:৫৭

চায়না টাউন প্রতিষ্ঠায় প্রয়োজনে জমি দেবে বসুন্ধরা গ্রুপ

অনলাইন ডেস্ক

চায়না টাউন প্রতিষ্ঠায় প্রয়োজনে জমি দেবে বসুন্ধরা গ্রুপ
বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর এবং ঢাকায় নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং

ঢাকায় চায়না টাউন প্রতিষ্ঠার জন্য জমির প্রয়োজন হলে বসুন্ধরা গ্রুপ তা দিতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর। এছাড়া বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি রাস্তাকে চায়না স্ট্রিট নামকরণের প্রস্তাব দিয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ। 

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ঢাকায় নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং দেশের সর্ববৃহৎ মিডিয়া হাউজ ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ পরিদর্শনে এলে তাকে এসব প্রস্তাব দেওয়া হয়।

এদিন ডেইলি সানের কনফারেন্স হলে চীনা রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে একটি মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন- বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক ও নিউজ টোয়েন্টিফোর, রেডিও ক্যাপিটালের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নঈম নিজাম, ডেইলি সানের সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরী, কালের কণ্ঠের সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, বাংলানিউজটোয়েন্টিফোরের সম্পাদক জুয়েল মাজহার, কালের কণ্ঠের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোস্তফা কামাল প্রমুখ।

মতবিনিময় সভায় বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর চীনা রাষ্ট্রদূতকে প্রস্তাব দেন, চীন আগ্রহী হলে ঢাকায় চায়না টাউন প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। এ জন্য জমির প্রয়োজন হলে বসুন্ধরা গ্রুপ তা দিতে প্রস্তুত। এ প্রস্তাবে সন্তোষ প্রকাশ করে লি জিমিং বলেন, বসুন্ধরার এই প্রস্তাব চীন বিবেচনা করবে।

বাংলাদেশে একটি চীনা ব্যাংক প্রতিষ্ঠায় লি জিমিংয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরও বলেন,  বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের ব্যবসা ও বিনিয়োগের পরিমাণ অনেক। এখানে চীনা ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হলে ব্যবসা, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ আরো সহজ হবে।  

এ প্রস্তাবে একমত পোষণ করে চীনা রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশে চীনা ব্যাংক প্রতিষ্ঠায় কোনো বাধা নেই। কীভাবে এ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা যায় সে বিষয়ে তিনি উদ্যোগ নেবেন বলে আশ্বাস দেন।

সভায় বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি রাস্তাকে চায়না স্ট্রিট নামকরণের ঘোষণা দেন। চীনা রাষ্ট্রদূত আনন্দের সঙ্গে এ প্রস্তাবে সম্মতি দেন।

এরপর ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া হাউজ পরিদর্শন করে উচ্ছ্বসিত হয়ে চীনা রাষ্ট্রদূত বলেন, ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া হাউজে এসে আমি আনন্দিত। এটি সত্যিই বড় একটি মিডিয়া হাউজ।   

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য