শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২১:৪৬
প্রিন্ট করুন printer

এবার পরিবহন ধর্মঘট স্থগিত করলো বরিশাল মালিক-শ্রমিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

এবার পরিবহন ধর্মঘট স্থগিত করলো বরিশাল মালিক-শ্রমিকরা
ফাইল ছবি

দিনভর বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়ক অবরোধের পর ৩ শর্তে বিকেল সাড়ে ৫টায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা সাময়িক অবরোধ স্থগিত করেছে। অপরদিকে শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দায়ের করা মামলায় গ্রেফতারকৃত দুই আসামিকে নিঃশর্ত মুক্তি এবং এই মামলায় পরিবহন মালিক শ্রমিকদের হয়রানি না করার শর্তে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ৭ জেলায় ১৭ রুটে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় স্থগিত করেছে পরিবহন মালিক শ্রমিকরা। 

এর ফলে বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কসহ সব রুটে সব ধরনের বাস চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। যদিও দিনভর যান চলাচল বন্ধ থাকায় ঢাকা-বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কসহ বরিশাল নগরী অংশে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। 

গত মঙ্গলবার গভীর রাতে নগরীর রূপাতলী হাউজিংয়ের বিভিন্ন মেসে ঢুকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতারসহ ৩ দফা দাবিতে শনিবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কের বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের এলাকা অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। বিকেলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে শিক্ষার্থীদের আলোচনা শেষে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ৩ শর্তে সাময়িক অবরোধ তুলে নেয় তারা।

এদিকে শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের মামলায় গত শুক্রবার রাতে পুলিশ দুই সন্দেহভাজন শ্রমিককে গ্রেফতার করে। এই দুই শ্রমিক নিরীহ দাবি করে তাদের মুক্তির দাবিতে শনিবার সকাল ১০টার পর নগরীর রূপাতলী বাস টার্মিনালে বিক্ষোভ শুরু করেন পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা। একই সাথে রূপাতলী বাস টার্মিনাল থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ৭ জেলায় ১৭ রুটে অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘট শুরু করেন তারা। 

দিনভর ধর্মঘটের পর সন্ধ্যার পর পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনার প্রেক্ষিতে গ্রেফতারকৃত দুই শ্রমিকের নিঃশর্ত মুক্তি এবং এই মামলায় পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের হয়রানি না করার শর্তে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘট স্থগিত করার কথা বলেন বরিশাল মোটরযান শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ। 

গ্রেফতারকৃত শ্রমিকদের অনতিবিলম্বে মুক্তি না দেয়া হলে আবারও ধর্মঘটের হুঁশিয়ারী দেন বরিশাল-পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাওছার হোসেন শিপন।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর