শিরোনাম
প্রকাশ : ২৮ এপ্রিল, ২০২১ ১৯:২০
প্রিন্ট করুন printer

তবুও রাজশাহীতে কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে তরমুজ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

তবুও রাজশাহীতে কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে তরমুজ

রাজশাহীতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিযান চালিয়ে কেজি দরে তরমুজ বিক্রি করা যাবে না বলে নির্দেশনা দিয়েছিলেন। কিন্তু একদিন পরই আবারও খুচরা ও পাইকারি বাজারে কেজি দরে তরমুজ বিক্রি শুরু হয়েছে। 

মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসনের দুইজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আড়তে আড়তে গিয়ে এ কথা জানিয়ে এসেছেন। বুধবার আবার আগের অবস্থায় ফিরে যান বিক্রেতারা। খুচরা বিক্রেতারা বলছেন, আড়তে তাদের কাছ থেকে কেজি দরে দাম নেওয়া হচ্ছে। বাধ্য হয়ে তারাও কেজি দরে বিক্রি করছেন।    

বাজারে এবার তরমুজের দাম বেশি হওয়ায় তা সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। এই গরমে মন চাইলেও অনেকে তরমুজ ছুঁয়ে দেখতে পারছেন না। সাধারণ ক্রেতারা অভিযোগ করছেন, চাহিদা থাকায় সিন্ডিকেট করে তরমুজের দাম বৃদ্ধি করে দেওয়া হয়েছে। এমন অভিযোগ পেয়ে মঙ্গলবার বাজারে নামেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিজিত সরকার ও কৌশিক আহমেদ। তাদের সঙ্গে জেলা মার্কেটিং কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেনও ছিলেন। 

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তারা নগরীর শালবাগানে তরমুজের আড়তগুলোতে যান। তাদের দেখে কোন কোন আড়ৎদার আড়তের বেড়া লাগিয়ে পালিয়ে যান। তবে কর্মকর্তারা দুটি আড়তে গিয়ে ব্যবসায়ীদের সতর্ক করেন। মামা-ভাগ্নে ফল ভাণ্ডারে গিয়ে দুই ম্যাজিস্ট্রেট সব আড়ত মালিকদের ডাকেন। 

তারপর জানিয়ে দেন, তরমুজের দাম সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে নেই। তাই বুধবার থেকে কেজি দরে তরমুজ বিক্রি করা যাবে না। পিস হিসেবে বিক্রি করতে হবে। তাহলে ক্রেতারা দাম করার সুযোগ পাবেন। দামও তাহলে কমে আসবে।

মামা-ভাগ্নে ফল ভাণ্ডারের মালিক শাহিন হোসেন কালু বলেন বরগুনা, চুয়াডাঙ্গা, খুলনা থেকে যেসব ব্যবসায়ীরা তরমুজ এই আড়তে আনেন তাদেরও কেজি দরে মূল্য পরিশোধ করতে হয়। তাই এটি বাস্তবায়ন করতে কয়েকদিন সময় লাগবে।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর

এই বিভাগের আরও খবর