শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৫ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৪ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:০৬

সাঁড়াশি অভিযানেও লাগামহীন পিয়াজের মূল্য

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

সাঁড়াশি অভিযানেও লাগামহীন পিয়াজের মূল্য

দেশের বৃহত্তম পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জ থেকে সিলেটগামী ট্রাকের চালানে মিয়ানমারের পিয়াজের মূল্য লেখা ১১০ টাকা। কিন্তু দোকানের মূল্য তালিকায় লেখা ৬০-৭০ টাকা। এমন অভিনব প্রতারণা খাতুনগঞ্জের অছি উদ্দিন ট্রেডার্সের। একইভাবে মেসার্স খাতুনগঞ্জ ট্রেডিং থেকে কুমিল্লা-ব্রাহ্মণবাড়িয়াগামী ট্রাকের চালানে লেখা আছে ১১০ টাকা। কিন্তু দোকানের মূল্য তালিকায় লেখা আছে ৬০-৬৫ টাকা। গত রবিবার সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত এ প্রতারণার চিত্র দেখতে পায়। অভিযানে অছি উদ্দিন ট্রেডার্সকে ৪০ হাজার এবং মেসার্স খাতুনগঞ্জ ট্রেডিংকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পিয়াজের মূল্য বৃদ্ধির পর থেকে খাতুনগঞ্জে পাঁচবার অভিযান পরিচালনা করা হয়। সর্বশেষ গতকাল দুপুরেও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. সেলিম হোসেনের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালিত হয়। প্রতি অভিযানের পরই দাম কমে। কিন্তু অভিযান শেষ হলেই ফের মূল্য বৃদ্ধি পায়। ইতিমধ্যে খাতুনগঞ্জের শতাধিক আড়ত পরিদর্শন করা হয়। তবুও লাগামহীন পিয়াজের মূল্য।

গতকালের অভিযানে গ্রামীণ বাণিজ্যালয় নামের একটি আড়তকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযোগ আছে, এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী ইচ্ছা করেই পিয়াজের দাম নিয়ে কারসাজি করছে। মিয়ানমার থেকে ৪২ টাকা দরে আমদানি করা পিয়াজ খরচ ও লভ্যাংশসহ ৬০ টাকার বেশি পাইকারি মূল্য হতে পারে না। খুচরা মূল্য হবে ৭০ টাকা। কিন্তু আড়তে ৯০ টাকা দামে বিক্রি করার কোনো যৌক্তিকতা নেই।

জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ‘এভাবে পিয়াজের দাম বৃদ্ধির কোনো মানে হয় না। তাই আমরা সাঁড়াশি অভিযান শুরু করেছি। অভিযানে কাউকেই ছাড় দেওয়া হচ্ছে না।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর