Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ মার্চ, ২০১৯ ২৩:১৪

প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে গৃহবধূর মানবেতর জীবন

কামরুজ্জামান সোহেল, ফরিদপুর

প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে গৃহবধূর মানবেতর জীবন

ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে প্রতিবন্ধীসহ দুই সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন রেশমা সুলতানা নামে এক গৃহবধূ। অভিযোগ রয়েছে, স্বামীর নির্যাতন ও প্রতারণার শিকার হয়ে সন্তানদের নিয়ে তিনি বাবার বাড়ি অবস্থান করছেন।

স্থানীয়রা জানান, বোয়ালমারী উপজেলার মোবারকদিয়া গ্রামের গাউজার রহমানের সঙ্গে ২০১৪ সালে প্রতিবেশী রেশমার বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েক মাস যেতেই গাউজার গোপনে যশোরে আরেকটি বিয়ে করে এবং কারণে-অকারণে রেশমার ওপর নির্যাতন চালায়। একপর্যায়ে রেশমা দ্বিতীয় বিয়ের কথা জেনে আদালতে মামলা করেন। সেই মামলায় গাউজারের পাঁচ বছর সাজা হয়। সাজা থেকে বাঁচতে কৌশলে রেশমার সঙ্গে আপস করে সে। দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দেওয়া হয়েছে বলে রেশমার সঙ্গে সংসার করতে থাকে। তালাক দেওয়ার জন্য দুই লাখ টাকাও নেয় রেশমার কাছ থেকে। এই দম্পতির দুই সন্তানের মধ্যে বড় মেয়ে মহিমা (১৩) প্রতিবন্ধী। স্ত্রী, সন্তানের জন্য বাড়ি করার কথা বলে স্কুলশিক্ষক শ্বশুরের কাছে জমি চায় গাউজার। মেয়ে-নাতিদের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে শ্বশুর হাবিবুল ৫০ শতাংশ জমি লিখে দেন গাউজারের নামে। জমি লিখে দেওয়ার পর সে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে। তালাকনামা পাঠায় রেশমাকে। এক বছর ধরে স্ত্রী-সন্তানের ভরণ পোষণ তো দূরে থাক খোঁজখবর নেওয়াও বন্ধ করে দিয়েছে। এরই মধ্যে রেশমার বাবা মারা গেলে দিশাহারা হয়ে পড়েন তিনি। বর্তমানে দুই মেয়ে নিয়ে অতিকষ্টে দিন কাটাচ্ছেন। গোপনে তালাক, ভরণ-পোষণ না দেওয়া ও প্রতারণার মাধ্যমে জমি লিখে নেওয়ার অভিযোগে রেশমা আদালতে মামলা করেছেন। মামলাটি বিচারাধীন।  রেশমা জানান, গাউজার আমার ও সন্তানের জীবন নষ্ট করে দিয়েছে। আমি এই প্রতারকের শাস্তি চাই। গাউজার জানান, রেশমা খারাপ প্রকৃতির মহিলা। আদালতে সে মামলা করেছে। যে রায় হবে তা মাথা পেতে নেব।


আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর