শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:১০

পদ্মায় লঞ্চ-কার্গো সংঘর্ষ রক্ষা পেলেন যাত্রীরা

রাজবাড়ী প্রতিনিধি

পদ্মায় লঞ্চ-কার্গো সংঘর্ষ রক্ষা পেলেন যাত্রীরা

রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে চলাচলরত লঞ্চের সঙ্গে চট্টগ্রাম থেকে আসা পাবনাগামী তেলবাহী সাংহাই কার্গোর সংঘর্ষ ঘটেছে। এতে অল্পের জন্য রক্ষা পান দৌলতদিয়ায় যাত্রীবাহী লঞ্চ এম ভি ফ্লাইবার্ড-২ এর দেড় শতাধিক যাত্রী। গতকাল দুপুরে পদ্মা নদীর দৌলতদিয়া অংশে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, দুপুরে দেড় শতাধিক যাত্রী নিয়ে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে আসে এমভি ফ্লাইবার্ড-২। লঞ্চটি দৌলতদিয়ার দিকে এলে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা পাবনাগামী ফার্নেস ওয়েল ভরা কার্গোর সাংহাই-৪ এর সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে সাতজন যাত্রী পদ্মা নদীতে পড়ে যান। লঞ্চটি ডুবে যাবে এই আতঙ্কে আরও ৩০ জনের অধিক যাত্রী পদ্মা নদীতে লাফ দেন। দুর্ঘটনার কাছে ফেরি কাজী কেরামত আলী থাকায় যাত্রীরা সাঁতার কেটে ফেরিতে ওঠেন। কিছু যাত্রীকে উদ্ধার করে ইঞ্জিনচালিত ট্রলারে ওঠানো হয়। কেরামত আলী ফেরিতে থাকা ব্যবসায়ী রেজাউল করিম বলেন, আমি ফেরিতে পপকর্ন ব্যবসা করি। হঠাৎ দেখতে পাই লঞ্চ থেকে মানুষ পানিতে ঝাঁপ দিচ্ছেন। আমি তখন ৯৯৯ এ ফোন করি। পরে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন আসে। ততক্ষণে যাত্রীরা সাঁতার কেটে ফেরিতে উঠে যান। এমভি ফ্লাইবার্ড-২ এর মাস্টার আবুল হোসেন বলেন, পাটুরিয়া থেকে আমি লঞ্চটি চালিয়ে দৌলতদিয়ার কাছাকাছি চলে আসি।

এ সময় দেখতে পাই দুটি ট্যাঙ্কার দ্রুত গতিতে পাবনার দিকে যাচ্ছে। আমি লঞ্চটিকে ব্রেক করে পেছনে নেওয়ার চেষ্টা করলেও ওয়েল ট্যাঙ্কার লঞ্চটিকে ধাক্কা দেয়। এতে ভয়ে কিছু যাত্রী নদীতে ঝাঁপ দেয়। বিআইডব্লিউটিএর দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটের ইন্সপেক্টর আফতাব উদ্দীন বলেন, দ্রুত গতিতে পাল্লা দেওয়া ওয়েল ট্যাঙ্কার চলার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটে। অল্পের জন্য লঞ্চের ১৬৭ জন যাত্রী রক্ষা পেয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর