শিরোনাম
শুক্রবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২৩ ০০:০০ টা

সেতু আছে সড়ক নেই

বাবুল আখতার রানা, নওগাঁ

সেতু আছে সড়ক নেই

নওগাঁর মান্দায় আত্রাই নদীর ওপর নির্মিত জোতবাজার ব্রিজের নির্মাণ শুরু হয় ২০১৮ সালে। প্রায় পাঁচ বছর পেরিয়ে গেলেও হয়নি সংযোগ সড়ক। এ কারণে বাঁশের সিঁড়ি দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্রিজটিতে উঠতে হয় শিশু শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষকে। এতে দুর্ভোগ পড়ছেন এ এলাকার হাজার হাজার মানুষ। জানা গেছে, ব্রিজটির নির্মাণ শেষ হলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সংযোগ সড়কের কাজ করেনি। তাই ব্রিজটি কোনো কাজে আসছে না। শিশু শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষ বাঁশের সিঁড়ি দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্রিজটিতে উঠছে। এমনকি নৌকায়ও তাদের পারাপার হতে হচ্ছে। একটি নৌকা এপার থেকে ওপার যেতে আধা ঘণ্টা সময় লাগে। নৌকায় যেতে স্কুলের সময় শেষ হয়ে যায়। উপজেলার বাইবুল্লাহ গ্রামের বাসিন্দা রনি আহম্মেদ বলেন, বাধ্য হয়েই বাঁশের মই দিয়ে ওঠানামা করতে হয়। ব্রিজের এপারে কোনো স্কুল-কলেজ না থাকায় এভাবেই পারাপার হতে হচ্ছে তাদের। নৌকা দিয়ে পারাপার করতে অনেক সময় অপেক্ষা করতে হয়। স্থানীয় বাসিন্দারা আরও জানায়, বন্যার সময় গ্রামগুলোর যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম নৌকা। শিক্ষার্থীরা জানায়, নৌকায় পারাপারের জন্য তাদের দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়। সময় মতো স্কুলে গিয়ে ক্লাস করতে পারে না। শিক্ষকের বকা খেতে হয়। নুরুল্লাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাইদ জালাল চঞ্চল বলেন, এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করেছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো কাজ হয়নি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মিলন ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী দেওয়ান ছেকার আহম্মেদ শিষান বলেন, শুরুর পর মহামারি করোনা। তারপরও ২০২৩ সালে ব্রিজটির নির্মাণকাজ শেষ করা হয়। সংযোগ সড়কের জন্য বন বিভাগকে বারবার গাছ কাটতে বলা হয়। তাদের গাফিলতির কারণে সময়মতো গাছ না কাটায় সংযোগ সড়কের কাজ করা যায়নি। বর্তমানে বাজার মূল্য বেশি। আগের রেটে কাজ করা সম্ভব নয়। নতুন রেট দিলে ব্লক দিয়ে সংযোগ সড়কের কাজ করা যাবে। এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী তোফায়েল আহম্মেদ বলেন, ডিজাইনে একটু সমস্যা আছে। আর নরমাল মাটি দিয়ে কাজ করলে সংযোগ সড়ক টিকবে না। তাই ব্লক দিয়ে কাজ দ্রুত শেষ করার চেষ্টা করেছি।

 

সর্বশেষ খবর