Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ১৭:১২

এলজিইডির নিম্নমানের কাজ

লালমনিরহাটে উপ-সহকারী প্রকৌশলীকে পেটালেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা

লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

লালমনিরহাটে উপ-সহকারী প্রকৌশলীকে পেটালেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা
প্রতীকী ছবি

জেলাজুড়ে রাস্তা মেরামতের নামে এলজিইডি বিভাগের প্রকৌশলীদের বিরুদ্ধে লুটপাটের বিস্তর অভিযোগ উঠেছে। কাজের মান নিয়ে জেলাজুড়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ হলেও তোয়াক্কা করছেন না এই বিভাগের প্রকৌশলীরা। রাস্তা কার্পেটিংয়ের এক সপ্তাহের মধ্যেই রাস্তা ফিরে যাচ্ছে পুরনো চেহারায়। 

নিম্নমানের কাজ কেন হচ্ছে- এমন প্রশ্ন করলেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার উপর তেড়ে আসেন আদিতমারি উপজেলায় কর্মরত এলজিইডির উপ-সহকারী প্রকৌশলী জাকিরুল ইসলাম। এ ঘটনার পর উপ-সহকারী প্রকৌশলী ও কার্য সহকারীকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি একেএম হুমায়ন কবির ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে। 

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় জাকিরুল ইসলাম (৪৮) ও আশরাফুল আলমকে(৪৯) উদ্ধার করে আদিতমারী হাসপাতালে ভর্তি করা করেছে।
আহত জাকিরুল ইসলাম লালমনিরহাট সদর উপজেলার রাজপুর ইউনিয়নের চাংরা গ্রামের শাহাজাহান আলীর ছেলে আর আশরাফুল আলম সদর উপজেলার তিস্তা পূর্বদালালপাড়া গ্রামের মৃত আ. মজিদের ছেলে। 

আজ বৃহস্পতিবার সকালে আদিতমারী উপজেলার সারপুকুর ইউনিয়নের সরলখাঁ নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, উপজেলার সারপুকুর ইউনিয়নের সরলখাঁ উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় একটি রাস্তার কার্পেটিং এর কাজ চলছে। উপজেলা প্রকৌশলী অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে এ কাজটি চলছে। আর এ কাজ তদারকির জন্য আদিতমারী উপজেলা প্রকৌশলী অধিদপ্তরের উপ-সহকারী প্রকৌশলী জাকিরুল ইসলাম ও কার্য সহকারী আশরাফুল  আলম ঘটনাস্থলে আসেন। এসময় কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেন সারপুকুর ইউনিয়নের বাসিন্দা ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা হুমায়ন কবির ও তার দলবল। কিন্তু কাজ সঠিক হচ্ছে বলেই দাবি করেন ওই প্রকৌশলী। কথার এক পর্যায়ে হুমায়ন কবির ও তার ছোট ভাই রাশেদ অতর্কিতভাবে উপ-সহকারী প্রকৌশলী জাকিরুলের উপর হামলা চালায়। এসময় তাকে রক্ষা করতে গিয়ে কার্য-সহকারী আশরাফুল আলমকেও মারধর করা হয়েছে। 

এদিকে খবর পেয়ে আদিতমারী থানা পুলিশ ও প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থল থেকে তাদের দুজনকে উদ্ধার করেন।

হাসপাতালের চিকিৎসাধীন অবস্থায় জাকিরুল ইসলাম বলেন, কোন কিছু বুঝে উঠার আগে কবির ও তার দলবল হামলা চালায় বলে তিনি দাবি করেন। তিনি আরও বলেন,শিডিউল মোতাবেক কাজ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা একেএম হুমায়ন কবির মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের জানান, আদিতমারি উপজেলাজুড়ে এলজিইডির তত্বাবধানে যেসব কাজ হচ্ছে তার অধিকাংশই নিম্নমানের।  কাজের মান খারাপ হওয়ায় এলাকাবাসী বাধা প্রদান করেন। তিনি তাকে মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করেন।

আদিতমারী হাসপাতালের জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডাঃ কাশফিয়া আনম জানান, তাদের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে গুরুতর নয় বলে তিনি দাবি করেন।

আদিতমারী থানার অফিসার ইনচার্জ মাসুদ রানা জানান, সরকারি কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার


আপনার মন্তব্য